ঢাকা     শুক্রবার   ১২ এপ্রিল ২০২৪ ||  চৈত্র ৩০ ১৪৩০

পেনশনের ৩৮ লাখ টাকা ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টে বিনিয়োগ করে প্রতারিত

রাজশাহী প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৫৩, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  
পেনশনের ৩৮ লাখ টাকা ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টে বিনিয়োগ করে প্রতারিত

পেনশনের সব টাকা দিয়ে সঞ্চয়পত্র কিনেছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অবসরপ্রাপ্ত এক কর্মকর্তা। তাঁকে প্রলোভন দেখানো হয়, ‘ইউএস অ্যাগ্রিমেন্ট’ নামে অ্যাপে বিনিয়োগ করলে মুনাফা মিলবে সঞ্চয়পত্রের চেয়ে অনেক বেশি। প্রলোভনে পড়ে সঞ্চয়পত্র ভেঙে অবসর জীবনের শেষ সম্বলটুকু এ ব্যক্তি বিনিয়োগ করেন ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টে। তারপর হয়েছেন প্রতারিত। এ নিয়ে বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) তিনি রাজশাহীর আদালতে প্রতারণার মামলা করেছেন।

এ নিয়ে ইউএস অ্যাগ্রিমেন্টের অর্থ কেলেঙ্কারির ঘটনায় রাজশাহীতে মোট ১০টি মামলা হলো। এ ছাড়া নাটোরে একটি মামলা হয়েছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার মামলা করা ব্যক্তি সামাজিক মর্যাদা ক্ষুণ্ন হওয়ার ভয়ে গণমাধ্যমে নিজের নাম প্রকাশ করতে চাননি। তবে তিনি জানিয়েছেন, প্রতারকচক্রের প্রলোভনে পড়ে তিনি ৩৮ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন। এছাড়া তার মামলার পাঁচজন সাক্ষী বিনিয়োগ করেছেন আরও ১ কোটি ১৯ লাখ টাকা। প্রতারিত এ পাঁচজনের মধ্যে একজন দীর্ঘদিন ব্যাংকে চাকরি করে অবসরে যাওয়া ব্যক্তিও আছেন।

মামলায় মোট চারজনকে আসামি করা হয়েছে। তারা হলেন, অ্যাপটির বাংলাদেশ প্রধান সজিব কুমার ভৌমিক ওরফে মাহাদি ইসলাম (৩৩), রাজশাহী বিভাগীয় প্রধান মো. ওয়াহেদুজ্জামান সোহাগ (৩৮), সোহাগের স্ত্রী ও বিভাগীয় ব্যবস্থাপক ফাতেমা তুজ জহুরা ওরফে মিলি (৩২) এবং জেলা এজেন্ট মিঠুন মণ্ডল (৩৬)। তাদের মধ্যে মাহাদি হলেন অ্যাপের হোতা।

নতুন এ মামলার বাদীর আইনজীবী শামীম আখতার হৃদয় জানান, বৃহস্পতিবার রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার আমলী আদালতে মামলা করা হয়েছে। আদালতের বিচারক ফয়সাল তারেক মামলা গ্রহণ করে তদন্তের জন্য পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী ২৪ এপ্রিল মামলার পরবর্তী ধার্য্য তারিখ রয়েছে।

ভুক্তভোগীরা জানান, ইউএস-অ্যাগ্রিমেন্ট দেশের একটি প্রতারকচক্রের তৈরি করা মোবাইল অ্যাপ। প্রতি এক লাখ টাকা বিনিয়োগে প্রতিমাসে ১১ হাজার ২০০ টাকা মুনাফা রেমিটেন্স আকারে দেয়ার লোভনীয় প্রলোভন দিয়ে এ অ্যাপে বিনিয়োগ করানো হয়। বলা হয়েছিল, বিনিয়োগ করা টাকা যে কোনো সময় তুলে নেয়া যাবে। কিন্তু বিনিয়োগ করার পর ভুক্তভোগীরা মুনাফা তো দূরের কথা, বিনিয়োগ করা আসল টাকাও তুলতে পারেননি। রাজশাহীর শতাধিক ব্যক্তি প্রায় ৫০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। সারা দেশে এ অ্যাপে প্রায় ২ হাজার মানুষ বিনিয়োগ করে অন্তত ৩০০ কোটি টাকা খুইয়েছেন। প্রতারণার বিষয়টি সামনে এলে গত ১৭ জানুয়ারি রাজশাহীর রাজপাড়া থানায় প্রথম মামলা হয়।

মামলার আসামিদের মধ্যে গত ১২ ফেব্রুয়ারি ফাতেমা তুজ জহুরা মিলির জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন রাজশাহীর আদালত। অন্য আসামিরা পলাতক। এই প্রতারণার ঘটনায় প্রথম মামলা দায়ের হলে রাজশাহী মহানগর পুলিশ আসামিদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে ইমিগ্রেশন বিভাগে চিঠি দেয়। এ ছাড়া তাদের ব্যাংক হিসাবে লেনদেন স্থগিত করতেও পুলিশের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি দেয়া হয়েছে।

ফাতেমা তুজ জহুরা মিলি কারাগারে যাওয়ার আগে উল্টো এ অ্যাপের ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধেই ভয়ভীতি দেখানো ও হুমকি-ধমকি দেয়ার অভিযোগে মামলা করেন। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি আদালত এ মামলা খারিজ করে দিয়েছেন। ফাতেমা তুজ জহুরা মিলি এখনও কারাগারে। তার স্বামী সোহাগ গত জানুয়ারিতেই ভারতে পালিয়ে গেছেন।

কেয়া/বকুল

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়