ঢাকা     মঙ্গলবার   ২১ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪৩১

স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ  

বরগুনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৪২, ১৮ এপ্রিল ২০২৪  
স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ  

মায়ের সামনে থেকে মেয়েকে ফিল্মি স্টাইলে অপহরণ করার অভিযোগ উঠেছে। আট দিনে মেয়ের সন্ধান না পেয়ে বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেছেন অপহৃত স্কুলছাত্রীর বাবা।  

ওই ট্রাইব্যুনালের বিচারক ও সিনিয়র জেলা জজ মশিউর রহমান খান মামলা গ্রহণ করে বরগুনার গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) কে সাত দিনের মধ্যে অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। গত ১১ এপ্রিল বিকেলে বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ রাওঘা গ্রাম থেকে তাকে অপহরণ করা হয়। 

আমতলীর রাওঘা গ্রামের বাসিন্দা স্কুলছাত্রীর বাবা ওই ট্রাইব্যুনালে অভিযোগে বলেন, তার মেয়ে আমতলীর একটি স্কুলে দশম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। একই উপজেলার পশ্চিম চিলা খাসতবক গ্রামের মোশাররফ বেপারীর ছেলে বায়েজিদ (১৮) মেয়েকে পথেঘাটে উত্ত্যক্ত করত। তার মেয়ের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে তিনি বায়েজিদকে নিষেধ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বায়েজিদের নেতৃত্বে একই এলাকার মাহিন বিশ্বাস, রাতুল বিশ্বাস, মোতাহার, মোশারফসহ কয়েকজন মিলে তার মেয়েকে জোর করে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

স্কুলছাত্রীর মা বলেন, ‘বায়েজিদের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী আমার সামনে থেকে মেয়েকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে যায়। আমি মা হয়েও মেয়েকে রক্ষা করতে পারিনি। বাধা দিলে আমাকে সন্ত্রাসীরা খুন-জখমের ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়।’ 

স্কুল ছাত্রীর বাবা বলেন, ‘আমি আমতলী থানায় মামলা করতে যাই। থানা পুলিশ মামলা নেয়নি। আমি জানতে পেরেছি, আমার মেয়েকে আটকে রেখে ধর্ষণ করা হচ্ছে।’

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমতলী থানায় কেউ মামলা করতে আসেনি। কেউ মামলা করতে আসলে অবশ্যই মামলা নিতাম।’  

বরগুনার ডিবি পুলিশের ওসি বশিরুল আলম রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘আদালত থেকে অনুসন্ধান করে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দিয়েছেন। আমরা কাজ শুরু করেছি।’ 
 

ইমরান/বকুল

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়