ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৮ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৪ ১৪৩১

মুনাফা করার পরেও বিকেবির সঙ্গে রাকা‌বের একীভূতকরণ নিয়ে প্রশ্ন

বগুড়া প্রতি‌নি‌ধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:০৯, ৪ মে ২০২৪  
মুনাফা করার পরেও বিকেবির সঙ্গে রাকা‌বের একীভূতকরণ নিয়ে প্রশ্ন

তারল্য সংকট নেই, প্রতি বছর মুনাফা করছে, তারপরও  বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের (বিকেবি) সাথে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের একীভূতকরণ কেন? এমন প্রশ্ন রেখে এই সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে বগুড়ায় মানববন্ধন করেছেন রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের (রাকাব) সাবেক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এ সময় ব্যাংকের সুবিধাভোগী কৃষকসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষ অংশ নেন।  

শনিবার সকাল ১০টায়  শহরের সাতমাথায় এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। 

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা জানান, ১৯৮৭ সালে সরকারের প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ নীতির আওতায় বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের তৎকালীন রাজশাহী বিভাগকে আলাদা করে গঠন করা হয়। এরপর দীর্ঘ তিন দশকে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক উত্তরাঞ্চলের কৃষকসহ সব স্তরে মানুষের কাছে নির্ভরশীল প্রতিষ্ঠান হয়ে ওঠে। এমনকি সেবা নিশ্চিতকরণে ২০১৪ সালে রাকাব আইন পাস হয়েছে। এ ছাড়াও রাজশাহীতে প্রধান কার্যালয় হওয়ায় গ্রাহক সহজেই তাদের সমস্যার সমাধান পান। কিন্তু বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের সঙ্গে একীভূত হলে এখানে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা বাড়বে। 

অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারী কল্যাণ সমিতি বগুড়া জোনের সভাপতি ও সাবেক রাকাব কর্মকর্তা মোজাফ্ফর হোসেন খান বলেন, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক উত্তরাঞ্চলের আপামর জনগণের সেবা নিশ্চিত করার জন্য প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। এই ব্যাংকের কোনো তারল্য সংকট নেই। প্রতিবছর ব্যাংকটি মুনাফা করছে। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের সঙ্গে মার্জ করলে উত্তরবঙ্গের কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ব্যবসায়ীরা ভোগান্তিতে পড়বে। 

রাকাবের সাবেক কর্মকর্তা গোলাম কুদ্দুস বলেন, রাকাব যখন গঠন হয় তখন আমাদের অবস্থা খুব খারাপ ছিল। বেতন ঠিকমতো হতো না। সেই অবস্থা থেকে আমরা একে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে নিয়ে এসেছি। সেবার মান উন্নত হয়েছে। এখন আমাদের বেতন নির্ধারিত সময়ে হয়। অনলাইনে কৃষক সেবা পান। অথচ বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক আমাদের থেকে খারাপ অবস্থায় রয়েছে। তাদের সঙ্গে একীভূত হলে আমাদের গ্রাহকদের সেবা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই সরকারের কাছে  আমাদের দাবি একীভূত করার সিদ্ধান্ত বাতিল করা হোক। 

মানববন্ধনে অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারী কল্যাণ সমিতি, রাকাব কর্মচারী সংসদ, সচেতন কৃষক সমাজ, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর ব্যানারে প্রায় শতাধিক মানুষ অংশ নেন।

এনাম//

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ