ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১২ ১৪৩১

শরীরে চুলকানি

ধুতরা পাতার শাক খেয়ে একই পরিবারের ৬ জন হাসপাতালে

শরীয়তপুর সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:০২, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  
ধুতরা পাতার শাক খেয়ে একই পরিবারের ৬ জন হাসপাতালে

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জে চুলকানি নিরাময়ের জন্য ধুতরা পাতার শাক খেয়ে তিন শিশুসহ একই পরিবারের ৬ জন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপজেলার চরকুমারিয়া ইউনিয়নের খাস গাজীপুর এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। 

অসুস্থরা হলেন- একই এলাকার মৃত নূর হক খানের স্ত্রী বেলাতুন নেসা (৬০), ছেলে লিটন খান (৪০), পুত্রবধূ লাকি বেগম (৩৫), লিটন খানের মেয়ে লামিয়া (৯), সামিয়া (৫) ও ছেলে সায়মন (৭)। 

স্বজন ও হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত ১ মাস ধরে খাস গাজীপুর এলাকার লিটন খান ও তার পরিবারের সদস্যরা চুলকানির সমস্যায় ভুগছিলেন। সমস্যা সমাধানে জয়নাল বেপারী নামের স্থানীয় এক ব্যক্তি লিটনকে ধুতরা পাতার শাক খাওয়ার পরামর্শ দেন। পরামর্শ অনুযায়ী ধুতরা পাতা সংগ্রহ করে আজ দুপুরে শাক রান্না করেন লিটন খানের স্ত্রী লাকি বেগম। সেই শাক পরিবারের সদস্যরা ভাতের সঙ্গে খাওয়ার পর একে একে সবাই অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাদের ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। পরে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে তারা সবাই সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। 

লিটন খানের চাচা মো. রুস্তম বলেন, ওদের পরিবারের সবার চুলকানির সমস্যা ছিলো। এক লোকের পরামর্শে লিটন ধুতরা পাতা নিয়ে তার বউয়ের কাছে দিলে সে পাক করে। সেই শাক ঘরের সবাই খাওয়ার পর অসুস্থ হয়ে পড়ে। আমরা তাদের হাসপাতালে নিয়ে আসি। 

লিটন খান বলেন, ‌‘আমার শরীরে অনেক দিন ধরে চুলকানির সমস্যা ছিলো। জয়নাল নামের এক লোক আমাকে ধুতরা শাক খাওয়ার পরামর্শ দেন। শাক খাওয়ার পর দেখি আমার মাথা ঘুরায়, দাঁড়াইয়া থাকতে পারি না। আমার মতো আমার মা, স্ত্রী আর বাচ্চাদেরও একই অবস্থা।’ 

সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শারমিন আক্তার বলেন, ধুতরা পয়জনিং নিয়ে প্রথমে ৪ জন রোগীকে এবং পরবর্তীতে আরো ২ জনকে নিয়ে আসা হয়। আমরা সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়েছি। এদের মধ্যে একজন বয়স্ক নারী ও এক শিশুর অবস্থা ক্রিটিকাল মনে হয়েছে। তাদেরকে ঢাকায় রেফার করার কথা বলা হয়েছে।

সাইফুল/মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়