ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১০ ১৪৩১

একদিনের সন্তান বিক্রির অভিযোগ দম্পতির বিরুদ্ধে

গাইবান্ধা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫৯, ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  
একদিনের সন্তান বিক্রির অভিযোগ দম্পতির বিরুদ্ধে

গাইবান্ধায় অভাবের তাড়নায় একদিনের শিশু সন্তানকে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে এক দম্পতির বিরুদ্ধে। তবে এই ছেলে শিশু বিক্রি নয় বরং দত্তক দিয়েছেন বলে দাবি করেছেন অভিযুক্ত ওই দম্পত্তি।

বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জেলার পলাশবাড়ি উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামে এই চাঞ্চল্যকর ঘটনার অভিযোগ পাওয়া যায়।

সন্তান বিক্রির সঙ্গে অভিযুক্ত দম্পতি হলেন- ভবানীপুর গ্রামের উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের মৃত নয়ন চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে হেরেন বিশ্বাস ও তার স্ত্রী ঝুম্পা বেগম।

অভিযুক্ত ক্রেতা দু'জন হলেন- গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার প্রান্ত ও একই উপজেলার পান্থাপাড়া গ্রামের গোবিন্দ দাসের স্ত্রী ভক্তিরানী।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হেরেন বিশ্বাস পেশায় একজন স্বর্ণের দোকানের কর্মকার। তিনি এলাকায় একজন জুয়ারি হিসেবেও পরিচিত। জুয়া খেলে তিনি ঋণগ্রস্ত হয়েছেন। এই ঋণ পরিশোধ করতে সদ্য ভূমিষ্ঠ হওয়া একদিনের ছেলে সন্তানকে বিক্রি করেছেন হেরেন ও ঝুম্পা দম্পত্তি।

আজ থেকে প্রায় বিশ বছর আগে বিয়ে হয় তাদের। বিয়ের পর সংসারে পর পর চার পুত্র সন্তানের জন্ম দেন এই দম্পতি। সর্বশেষ গত মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে আরও এক পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। সদ্য ভূমিষ্ঠ হওয়া এই একদিনের শিশু সন্তানকে দুই লাখ টাকায় বিক্রি করে দেয় ওই দম্পতি। সন্তান বিক্রির টাকায় রাতেই বেশ কয়েকজনের ঋণও পরিশোধ করেন বলে জানিয়েছেন তারা।

তবে সন্তান বিক্রির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত ওই দম্পতি। অভিযুক্ত পিতা হেরেন চন্দ্র মুঠোফোনে বলেন, আমি সন্তান বিক্রি করিনি, দত্তক দিয়েছি। আমি স্বর্ণের দোকানে কাজ করি। সামান্য মজুরি পাই। পর পর চারটি ছেলে সন্তান হওয়ায় এবার একটি মেয়ে সন্তান আশা করেছিলাম। মেয়ে হলে দত্তক দিতাম না।

টাকার বিনিময়ে দত্তক দিলেন কেন? এমন প্রশ্নের জবাব না দিয়ে তিনি ফোনের সংযোগ কেটে দেন।

পলাশবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরজু মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, সন্তান বিক্রি করা আইনত অবৈধ। সন্তান বিক্রি বা দত্তক দেওয়ার কোনো তথ্য আমার কাছে নেই। এ ঘটনায় কেউ লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

লুমেন/ফয়সাল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়