ঢাকা     রোববার   ০২ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৭ ১৪২৯ ||  ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে হলে ফিরলেন খুবি শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:২৮, ১৭ আগস্ট ২০২২  
দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে হলে ফিরলেন খুবি শিক্ষার্থীরা

আন্দোলনরত খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

১০ দফা দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করে হলে ফিরেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) শিক্ষার্থীরা। 

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) দিবাগত রাত ২টার পর বিশ্ববিদ্যালয়ের হাদী চত্বর থেকে শিক্ষার্থীরা হলে ফিরে যান।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) রাত সাড়ে ১০টার দিকে হলের তালা ভেঙে মূল ফটকের সামনে অবস্থান নেন অপরাজিতা হলের শিক্ষার্থীরা। পরে অন্য হলের শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে যোগ দিয়ে নিজেদের ১০ দফা দাবি তুলে ধরেন। 
শিক্ষার্থীদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- হলে রাইস কুকার ও রান্নার সরঞ্জাম ব্যবহারের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যৌন হয়রানির প্রতিবাদকারী শিক্ষার্থীকে ব্যক্তিগত আক্রমণের জন্য প্রাধ্যক্ষকে ক্ষমা চাইতে হবে।  হলে প্রয়োজনে অভিভাবক ও নারী আত্মীয়দের থাকার অনুমতি দিতে হবে। হলে পানি ও খাবারের সমস্যার সমাধান করতে হবে। হল প্রাধ্যক্ষ তার নিজ ডিসিপ্লিনের (বিভাগ) ছাত্রীদের ডেকে ব্যক্তিগত ও একাডেমিক বিষয়ে হয়রানি করতে পারবেন না। হলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের দুর্ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। সিট বাতিলের হুমকি দেওয়া বন্ধ করতে হবে এবং হলের ছাত্রীদের মতামতকে প্রাধান্য দিতে হবে। আন্দোলনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কোনো ছাত্রীকে ব্যক্তিগতভাবে হুমকি দেওয়া যাবে না। হলের মিল খাওয়া বাধ্যতামূলক থাকবে না। দাবিগুলো দ্রুত না মানলে প্রাধ্যক্ষ কমিটিকে পদত্যাগ করতে হবে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সূত্র জানায়, মঙ্গলবার দুপুরে আইন ডিসিপ্লিনের এক ছাত্রী ওই হলের বাথরুমে বটি দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে দ্রুত অপারেশনের (অস্ত্রোপচার) পর সে প্রাণে বেঁচে যায়। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ছাত্রীদের রান্না করার সরঞ্জাম জব্দ করার নিদের্শ দেন হল কর্তৃপক্ষ।

নির্দেশনায় বলা হয়- ইলেকট্রনিক ডিভাইস, রাইস কুকার, হিটারসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি না সরালে যার রুমে এগুলো পাওয়া যাবে তার সিট বাতিল হয়ে যাবে। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু করেন অপরাজিতা হলের আবাসিক ছাত্রীরা। এ

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, সমস্যাগুলো একদিনের নয়। দীর্ঘদিনের জমে থাকা ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ এই বিক্ষোভ কর্মসূচি। দাবিগুলো প্রশাসন মেনে নিয়েছে। দ্রুত এগুলো বাস্তবায়ন হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন।

ছাত্রীরা হলে ফিরে যাওয়ার পর সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন অপরাজিতা হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক রহিমা নুসরাত রিম্মি। তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা আমাদের সন্তানের মতো। আমরা চাই না, তাদের কোনো কষ্ট হোক। তাদের সবগুলো দাবি আমরা মেনে নিয়েছি। তারা যে সমস্যাগুলোর কথা বলেছে, সেগুলোও আমরা সমাধান করছি এবং এই চেষ্টা অব্যাহত আছে।’

নূরুজ্জামান/ মাসুদ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়