ঢাকা     সোমবার   ২৮ নভেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৪ ১৪২৯ ||  ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

সীমান্তে অস্থিতিশীলতা: স্থানান্তরিত এসএসসি কেন্দ্র পরিদর্শনে ডিসি

কক্সবাজার প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:১৫, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২   আপডেট: ১৫:১৯, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
সীমান্তে অস্থিতিশীলতা: স্থানান্তরিত এসএসসি কেন্দ্র পরিদর্শনে ডিসি

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে কক্সবাজার জেলার উখিয়া কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানান্তরিত এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র পরিদর্শন করেছেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি ও পুলিশ সুপার মো. তারিকুল ইসলাম।

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ সীমান্তে মিয়ানমারের গোলায় রোহিঙ্গা যুবক নিহত

সোমবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাইজিংবিডিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মো. হেলাল উদ্দিন।

 

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে গোলাগুলি ও বাংলাদেশ সীমান্তে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে গত শনিবার শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিবেচনায় পরীক্ষার কেন্দ্রটি সরিয়ে নেয় কর্তৃপক্ষ।

আরো পড়ুন: ‘জনগণের নিরাপত্তাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার’

এর আগে একই দিন সকাল ১১ টার দিকে ঘুমধুম সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেন বান্দরবান জেলা প্রশাসক ও পুলিশ প্রশাসন।

আরো পড়ুন: মিয়ানমার সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে বাংলাদেশি যুবক আহত

হেলাল উদ্দিন জানান, সকালে বান্দরবানের ডিসি-এসপি স্থানান্তরিত এসএসসি পরীক্ষার হল পরিদর্শন করেন। এসময় তারা পরীক্ষার্থীদের আতঙ্কিত না হয়ে ভালোভাবে পরীক্ষা দেওয়ার আহ্বান জানান। একই সঙ্গে পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে সীমান্তের ৩০০ পরিবারকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসার পরিকল্পনার কথাও জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি।

আরো পড়ুন: তুমব্রু সীমান্ত থেকে ৩০০ পরিবার সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা

গত শনিবার এসএসসি পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের  উৎকন্ঠা বিবেচনায় ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয়ের পরীক্ষা কেন্দ্রটি পার্শ্ববর্তী কক্সবাজার জেলার উখিয়া কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়। এই কেন্দ্র ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪১৯ জন এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন।

আরো পড়ুন: কুতুপালংয়ে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে ঘুমধুম কেন্দ্রের শিক্ষার্থীরা

উল্লেখ্য, গত ২৮ আগস্ট মিয়ানমার থেকে নিক্ষেপ করা ২টি মর্টার শেল অবিস্ফোরিত অবস্থায় ঘুমধুমের তুমব্রু’র উত্তর মসজিদের কাছে পড়ে। এ ঘটনার পাঁচ দিন পর গত ৩ সেপ্টেম্বর ঘুমধুম এলাকায় দুটি গোলা পড়ে এবং ৯ সেপ্টেম্বর একে ৪৭ এর গুলি এসে পড়ে। তবে গত শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) মাইন বিস্ফোরণ ও গুলি-মর্টার শেল নিক্ষেপে হতাহতের ঘটনা ঘটে। এতে নো ম্যান্স ল্যান্ডে বসবাসরত রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের মধ্যে চরম ভীতি ছড়িয়ে পড়েছে।

তারেকুর/ মাসুদ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়