ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১০ ১৪৩১

ভাষা শহিদদের স্মরণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে নানা আয়োজন

ক্যাম্পাস ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:১১, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  
ভাষা শহিদদের স্মরণে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে নানা আয়োজন

নানা আয়োজনে দেশের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) অমর একুশে, ভাষা শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে রাইজিংবিডি.কম এর সংবাদদাতাদের পাঠানো সংবাদে থাকছে বিস্তারিত-

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় (রবি)

মাতৃভাষা বাংলার মর্যাদা সমুন্নত রাখতে ও ভাষা শহিদদের সর্বোচ্চ আত্মত্যাগকে স্মরণ করে যথাযযোগ্য মর্যাদায় ‘অমর একুশে', ভাষা শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে রবি। রাত ১২.০১ মিনিটে  অমর একুশের কালজয়ী গানের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহ্ আজম শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। 

এর আগে মহান ভাষা আন্দোলনের শহিদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে শহিদ বেদিতে রাত এগারোটা থেকে সাংস্কৃতিক পরিবেশনায় অংশ গ্রহণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।

পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের আগে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবন-৩ প্রাঙ্গণে  ভাষা আন্দোলনের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ফিরোজ আহমেদ, শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. মো. ফখরুল ইসলাম প্রমুখ। পরে বিকাল ৫টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি)

দিবসের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহিদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন কুবি পরিবার। রাত ১২টা ১ মিনিটে কুবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈনের নেতৃত্বে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. আসাদুজ্জামানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় প্রধান, হল প্রাধ্যক্ষবৃন্দ শহিদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি, বঙ্গবন্ধু পরিষদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন আবাসিক হল, কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ, শাখা ছাত্রলীগ, বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস ক্লাবসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সংগঠন ফুল দিয়ে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি)

ইবিতে রাত ১২টা ১মিনিটে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম। এ সময় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া ও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এইচএম আলী হাসান উপস্থিত ছিলেন।

পরে পর্যায়ক্রমে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, কর্মকর্তা-কর্মচারী সমিতি, শাপলা ফোরাম, বঙ্গবন্ধু পরিষদ (শিক্ষক ইউনিট), বিভাগ ও হলসমূহ, সাংবাদিক সমিতি, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধা নিবেদন করে। এরপর শহিদদের প্রতি সম্মান জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন ও আত্মার মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত করা হয়।

এছাড়াও এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে অর্ধনমিতকরন ও কালো পতাকা উত্তেলন করেন উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য। পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম।

এর আগে (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত ১১টা ৪৫ মিনিটে উপাচার্য ও উপ-উপাচার্যের নেতৃত্বে প্রশাসন ভবন থেকে একটি পদযাত্রা বের করা হয়। পদযাত্রাটি ক্যাম্পাস্থ বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহিদ মিনারে গিয়ে মিলিত হয়।

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)

চুয়েটে শহিদ দিবস উপলক্ষে দিনের প্রথম প্রহরে সকাল সাড়ে ৭টায় ক্যাম্পাসের আবাসিক এলাকায় প্রভাতফেরীর মাধ্যমে দিনব্যাপী কর্মসূচীর শুরু হয়। প্রভাতফেরীতে নেতৃত্ব দেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। এরপর চুয়েট কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারের সামনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ করা হয়।

পরে ভাষা শহিদদের শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন উপাচার্য। এ সময় সঙ্গে ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দীন আহাম্মদ ও রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. শেখ মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির।

এছাড়া মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা, বাদ আছর মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, কবিতা আবৃত্তি, উপস্থিত বক্তৃতা, দেশাত্মবোধক গান, পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (পবিপ্রবি)

পবিপ্রবিতে দিবসটি উপলক্ষে একুশের প্রথম প্রহর রাত ১২টা ১ মিনিটে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংগঠন,পবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতিসহ বিভিন্ন সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। 

পরে সকাল সাড়ে ৭টায় পবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবনের সামনে  জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও অর্ধনমিত করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. স্বদেশ চন্দ্র সামন্ত এবং কালো পতাকা উত্তোলন করেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. মো. শামসুজ্জোহা। এরপর কালো ব্যাজ ধারণ ও প্রশাসনিক ভবনের সামনে থেকে  প্রভাতফেরি অনুষ্ঠিত হয়। প্রভাতফেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের  প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সৃজনী বিদ্যানিকেতনে শিশুদের চিত্রাঙ্কন, সুন্দর হাতের লেখা, কবিতা আবৃত্তি, দেশাত্ববোধক গানের প্রতিযোগিতাসহ দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) 

যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বাকৃবিতে সকাল ৭ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অংশগ্রহণে প্রভাতফেরি বের করা হয়। এরপর সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে শহিদদের উদ্দেশ্যে শ্রদ্ধা নিবেদন ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বাকৃবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমদাদুল হক চৌধুরী। এসময় ভাষা শহিদদের আত্মার মাগফেরাতের জন্য দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। 
এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

সকাল ১১ টার দিকে বাকৃবি শিক্ষক সমিতির আয়োজনে ‘ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস: মাতৃভাষার সঠিক চর্চা ও প্রয়োগে আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। 

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি)

হাবিপ্রবিতে দিবসটি উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় হাবিপ্রবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম. কামরুজ্জামান প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে তাঁর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। 

পরে উপাচার্যের  নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা কালো ব্যাচ ধারণ করে আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে প্রভাতফেরি পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। পরে শহিদদের বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করেন। ক্রমান্বয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করেন হাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, ডিনগণ, শিক্ষকবৃন্দের বিভিন্ন সংগঠন, কর্মকর্তাবৃন্দের সংগঠন, হাবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগ—এর নেতৃবৃন্দ, কর্মচারীসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

এরপর শহিদ মিনার প্রাঙ্গনে উপাচার্যের বাণী বিতরণ, টিএসসিতে শিশুদের চিত্রাঙ্কন, রচনা, আবৃত্তি ও দেশাত্মবোধক গানের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সকাল সাড়ে ১১টায় প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়া বাদ জোহর শহিদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে কেন্দ্রীয় মসজিদে বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (ববি)

ববিতে দিবসটি উপলক্ষে সকাল ৯ টায় উপাচার্য (রু.দা.) অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভূঁইয়ার নেতৃত্বে ফুল দিয়ে শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এরপর পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শিক্ষক সমিতি, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, বিভিন্ন হল, বিভিন্ন বিভাগসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। 

এদিকে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরতে সকাল ১১ টায় বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি এক আলোচনা সভার আয়োজন করে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)

এদিন সকালে ‘মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২৪’ উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিমের পক্ষে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন। 

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাতফেরি, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, ‘আমরা তোমাদের ভুলবো না’ শিরোনামে একুশের পংক্তিমালা শীর্ষক পরিবেশনাসহ নানা আয়োজন করা হয়। এছাড়াও দিনব্যাপী ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয় এবং কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।

রাজশাহী কলেজ

রাত ১২টা ১ মিনিটে ভাষা শহিদদের স্মরণে রাজশাহী কলেজ শহিদ মিনার এবং দেশের প্রথম শহিদ স্মৃতিস্তম্ভ রাজশাহী কলেজ মুসলিম ছাত্রাবাসে ভুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমিটি ও শিক্ষকবৃন্দ। এছাড়া কালোব্যাজ ধারণ, কালো পতাকা উত্তোলন, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত, প্রভাত ফেরি, পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া মাহফিল, পুরস্কার বিতরণী, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বইমেলাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

চাদঁপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চাঁবিপ্রবি)

দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগে সকাল ১০টায় ক্যাম্পাস কনফারেন্স রুমে দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।  আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নাছিম আখতার।

সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মেজর (অব.) মো. আবদুল হাইসহ শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

সরকারি তিতুমীর কলেজ

ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় কলেজে পালিত হয়েছে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা ও শহিদ দিবস। রাত ১২টা ১ মিনিটে কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করার মাধ্যমে তিতুমীর কলেজের সকল কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ৭টায় প্রভাত ফেরি ও বিভিন্ন বিভাগের পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে শহিদ বরকত মিলনায়তনে ভাষা দিবসের বিশেষ প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শিত হয়। পরে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ)

ডিআইইউতে অমর একুশের প্রহরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. গনেশ চন্দ্র সাহার নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারের বেদিতে পুস্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যমে এ শ্রদ্ধা জানানো হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়টির অতিরিক্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. শাহ আলম চৌধুরী।

/মেহেদী/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়