ঢাকা     সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৯ ১৪৩১

রাবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু

ভর্তিচ্ছুদের থেকে অস্বাভাবিক দাম নিচ্ছে খাবার দোকানগুলো

রাবি সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৩৪, ৫ মার্চ ২০২৪  
ভর্তিচ্ছুদের থেকে অস্বাভাবিক দাম নিচ্ছে খাবার দোকানগুলো

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি)  ২০২৩–২৪ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আজ মঙ্গলবার (৫ মার্চ) শুরু হয়েছে। পরীক্ষায় অংশ নিতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা ভর্তিচ্ছু এবং অভিভাবকে পরিপূর্ণ ক্যাম্পাস। এই সুযোগেই ক্যাম্পাসের খাবারের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি করেছে দোকানগুলো।

সরেজমিনে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন চত্বরের হোটেলগুলোতে ভর্তিচ্ছু ও তাদের অবিভাবকদের থেকে খাবারের অস্বাভাবিক দাম নিতে দেখা গেছে। এর মধ্যে, পরিবহন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন সাগর ক্যান্টিনে সবচেয়ে বেশি খাবার খেতে দেখা যায় শিক্ষার্থীদের। এ সুযোগে তাদের খাবারের দাম মূল্য তালিকার চেয়েও কয়েকগুণ বেশি রাখতে দেখা গেছে।

এ বিষয় জিজ্ঞেস করলে ক্যান্টিনের পরিচালক সাইদুর রহমান খোকন বলেন, এখানে খাবারের মূল্য বেশি নেওয়া হচ্ছে না। এসময়  প্রশাসনের বেঁধে দেওয়া মূল্য তালিকা পাইনি বলে জানান তিনি।

পরে অভিযোগের প্রেক্ষিতে সহকারী প্রক্টর ড. কামারুজ্জামান ও ড. মো হামিদুল ইসলাম সাগর ক্যান্টিনে অভিযান চালিয়ে নির্ধারিত মূল্য তালিকা লিখে তৎক্ষণাৎ দোকানে টাঙাতে বলেন।

এখানে খেতে এসে প্রতারিত হন ক্যাম্পাসের বর্তমান শিক্ষার্থী জাহাঙ্গীর আলম। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড ইলেকট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, ক্যাম্পাসে যখন প্রশাসন কর্তৃক মূল্য তালিকা বেধে দেওয়া হয়। তখন ব্রয়লার মুরগী দুই পিস ৩০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই দোকানে দুই পিস ব্রয়লারের মূল্য ৪০ টাকা নেওয়া হচ্ছে।

মারজান আল শাকিব নামের ঢাকা থেকে আগত এক ভর্তিচ্ছু বলেন, এখানে খাবারের দামের ক্ষেত্রে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা নিয়ম আছে, সেটা জানতাম না। দূর থেকে পরীক্ষা দিতে আসা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এ রকম প্রতারণা অনুচিত।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, দোকানিদের এমন অপতৎপরতা আটকাতে প্রক্টরিয়াল বডি সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছে। কাজে সহযোগিতার জন্য আমরা ১০ জন শিক্ষার্থীকেও সঙ্গে রেখেছি। পরীক্ষার এই কয়দিন আমাদের মনিটরিং অব্যহত  থাকবে।

সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, আমরা সবারই সহযোগিতা চাচ্ছি। যে দোকানে দাম বেশি নেওয়া হচ্ছে, তাদের নাম আমাদের কাছে দেওয়ার অনুরোধ করছি। আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নিব। অযথা দাম বৃদ্ধির ঠেকাতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সবসময় প্রস্তুত।

/শাকিবুল/মেহেদী/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়