ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ১১ ১৪৩১

জাবিতে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করে ভবন নির্মাণ বন্ধের দাবি

জাবি সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:২৪, ২৩ মে ২০২৪  
জাবিতে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করে ভবন নির্মাণ বন্ধের দাবি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য ধ্বংস করে যত্রতত্র ভবন নির্মাণ বন্ধের দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া আসন্ন গ্রীষ্মকালীন ছুটি ও ঈদুল আজহার ছুটিতে গাছ কেটে নির্মাণ কাজ শুরু না করার আহ্বান জানান তারা।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নূরুল আলমের কাছে এ স্মারকলিপি জমা দেন তিন শিক্ষার্থী। এ সময় উপাচার্য তাদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন।

তারা হলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী জাহিদুল ইসলাম ইমন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী তৌহিদ মোহাম্মদ সিয়াম এবং নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী সোহাগী সামিয়া।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, ক্যাম্পাসে ছুটি চলাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ে সব ধরনের অফিশিয়াল কাজ বন্ধ থাকে। এমনকি অধ্যাদেশ অনুযায়ী সিন্ডিকেট সভা করার অনুমতিও নেই। তাই আমরা বন্ধে গাছ না কাটতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। বন্ধে গাছ কাটার বিরুদ্ধে আমরা সদা তৎপর। যদি প্রশাসন ভবন তৈরির নামে বন্ধ ক্যাম্পাসে লুকোচুরি করে গাছ কাটার ঘৃণ্য প্রচেষ্টা দেখায়, তাহলে উদ্ভূত যেকোনো পরিস্থিতির দায় প্রশাসন তথা উপাচার্যকেই নিতে হবে।

স্মারকলিপিতে আরও বলা হয়, সম্প্রতি সারা দেশে ‘হিট ওয়েভ’ এর মতো উচ্চ তাপমাত্রাগত পরিবেশ বিপর্যয়ের মধ্যেও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে গড় তাপমাত্রা রাজধানী ঢাকার গড় তাপমাত্রার তুলনায় তিন ডিগ্রি সেলসিয়াস কম দেখা গেছে। যা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অস্তিত্বশীল প্রাণ, প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র্যেরই ইতিবাচক অবদান।

মাস্টারপ্ল্যান উপেক্ষা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে যেসব স্থানে ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে, সেখানে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক উদ্ভিদ কর্তন, জলাশয় ভরাট ও লেক ক্ষতির সম্মুখীন হবে। এতে প্রাণিকুলের বাস্তুসংস্থান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরিবেশগত বৈচিত্র্যের জন্যে অমোচনীয় ক্ষতি বয়ে আনতে পারে।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, পরিবেশগত ক্ষতি এড়িয়ে ভবন নির্মাণ ও উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে সব অংশীজনদের অংশগ্রহণে বিশেষজ্ঞনির্ভর মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন ও উন্নয়নকার্যে তার অনুসরণ অপরিহার্য। প্রশাসন এ প্রয়োজন উপলব্ধি করে ইতোমধ্যেই একটি ‘মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন কমিটি’ গঠন করায় আমরা সাধুবাদ জ্ঞাপন করছি। তবে অংশীজনের মতামত ছাড়াই তড়িঘড়ি ভবন নির্মাণ শুরু হলে প্রশাসনের সদিচ্ছা ও দায়িত্বশীলতা ব্যাপক আকারে প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান ক্ষুণ্ন হতে পারে।

/আহসান/মেহেদী/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়