ঢাকা     সোমবার   ১৭ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৩ ১৪৩১

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কর্মবিরতি

ক্যাম্পাস ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:০১, ২৮ মে ২০২৪  
প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কর্মবিরতি

অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত সর্বজনীন পেনশন স্কিম ‘বৈষম্যমূলক’ উল্লেখ করে তা প্রত্যাহার, প্রতিশ্রুত সুপার গ্রেডে শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি এবং স্বতন্ত্র বেতনস্কেল প্রবর্তন- এ তিন দফা দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে নানা কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের আহ্বানে মঙ্গলবার (২৮ মে) বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে এসব কর্মসূচি পালন করা হয়। রাইজিংবিডির সংবাদদাতাদের পাঠানো খবরে থাকছে বিস্তারিত-

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (হাবিপ্রবি)

সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত ড. মুহাম্মদ কুদরাত-এ-খুদা অ্যাকাডেমিক ভবনের নিচে তিন দফা দাবিতে কর্মবিরতি ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করে হাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজার রহমান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. সাদেকুর রহমান, গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. শ্রীপতি সিকদার, হাবিপ্রবি প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. বলরাম রায়, ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাত হোসেন সরকার, প্লান্ট প্যাথলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. এটিএম শফিকুল ইসলাম, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. মাঈনুদ্দিন আহম্মেদ, মার্কেটিং বিভাগের সহকারী  অধ্যাপক শেখ মো. সহিদ উজ জামান প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন অধ্যাপক ড.সাদেকুর রহমান।

অধ্যাপক ড. সাদেকুর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের যে শুভঙ্করের ফাঁকি দেওয়ার অপচেষ্টা চলছে, তা কখনোই হতে দেওয়া হবে না। আমরা প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই, আপনি বিচক্ষণতার সঙ্গে আমাদের সমস্যার সমাধান করবেন। আমরা মনে করি, একদল কুচক্রী মহল সরকারের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের দূরত্ব সৃষ্টির জন্য এমন হঠকারী সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি)

সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত কর্মবিরতির ঘোষণা দেয় ইবি শিক্ষক সমিতি। তবে পরীক্ষাসমূহ এ কর্মসূচির আওতামুক্ত ছিল। আগামী ৪ জুনের মধ্যে সুরাহা না হলে বৃহত্তর কর্মসূচির ঘোষণা দেয় শিক্ষক সমিতি।

সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা আমাদের জন্য মাঠে নামিনি। আমরা মাঠে নেমেছি অনাগত শিক্ষকদের জন্য। সার্বজনীন পেনশন নীতিমালা চালু হলে মেধাবীরা শিক্ষকতা পেশায় আগ্রহী হবে না। যত অযোগ্যরা আসবে একটি পক্ষের লাভ হবে। আগামী ৪ জুনের মধ্যে এ নীতিমালার প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার করা না হলে আরো বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।’ 

বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুটেক্স)

'বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন' ঘোষিত কর্মসূচির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ব্যাজ ধারণ ও মানববন্ধন করে বুটেক্স শিক্ষক সমিতি।

এ সময় বক্তব্য দেন, সমিতির সভাপতি ও ইয়ার্ণ ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ড. মো. রিয়াজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ও টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. সাইদুজ্জামান, সমাজকল্যাণ সম্পাদক এবং গণিত ও পরিসংখ্যান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মারজিয়া ইয়াসমিন, ইন্ডাস্ট্রিয়াল অ্যান্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি)

সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি করেন জবির বিভিন্ন বিভাগ, অনুষদ ও ইন্সটিটিউটের শিক্ষকরা। এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস চালু থাকলেও এ সময়ে শিক্ষকরা সশরীরে কোনো ধরনের ক্লাস নেননি। তবে পরীক্ষাসমূহ এ কর্মসূচির আওতামুক্ত ছিল।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. জাকির হোসেন বলেন, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের আহ্বানে আমরা কর্মবিরতি পালন করছি। পরবর্তী কর্মসূচিতে যাতে যাওয়া না লাগে, তার আগেই আশা করি সরকার আমাদের দাবি মেনে নেবে। প্রত্যয় স্কিম থেকে শিক্ষকদের বাদ দিতে হবে। ধারাবাহিক কর্মসূচি হিসেবে আগামী ৪ জুন সকাল সাড়ে ৮টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করা হবে।

শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়

সকাল ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসের মূল ফটকে শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সমিতির আহ্বায়ক হাফসা আক্তার, যুগ্ম আহবায়ক মো. আব্দুল হালিম, সদস্য সচিব মো. আব্দুল্লাহ আল সিয়াম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

অ্যাকাডেমিক ভবন-১ প্রাঙ্গণে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেন হবিগঞ্জ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অনুষদের ক্লাস নেওয়া থেকে বিরত থাকেন শিক্ষকরা।

এ সময় কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন, ওশানোগ্রাফি অ্যান্ড ব্লু ইকোনমি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. অরুণ চন্দ্র বর্মন, ক্রপ বোটানি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মো. আবুবকর সিদ্দীক, জলজ সম্পদ ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ বিভাগের প্রভাষক ইফতেখার আহমেদ ফাগুন, জেনেটিক্স অ্যান্ড প্লান্ট ব্রিডিং বিভাগের প্রভাষক মোহতাসিম বিল্লাহ সাজিদ, কৃষি অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক তৌকির আহামেদ প্রমুখ।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি)

সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ রাসেল মিডিয়া চত্বরে কর্মবিরতি পালন করেন বেরোবি শিক্ষকরা। তবে পরীক্ষাসমূহ এ কর্মসূচির আওতামুক্ত ছিল।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. বিজন মোহন চাকীর সভাপতিত্বে কর্মবিরতিতে বক্তারা বলেন, প্রত্যয় স্কিমটি নামে সর্বজনীন হলেও আদৌতে সর্বজনীন নয়। সরকারের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান― সামরিক ও বেসামরিক আমলাতন্ত্র ও বিচার বিভাগকে এই প্রক্রিয়ার বাইরে রেখে একে সর্বজনীন বলার সুযোগ নেই।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি)

পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করে জাবি শিক্ষক সমিতি।

কর্মসূচির বিষয়ে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মোতাহার হোসেন বলেন, কথা ছিল যারা পেনশনের বাইরে তাদের জন্যই এই ‘প্রত্যয় পেনশন স্কিম। কিন্তু এখানে হুট করে প্রশাসনের লোকদের বাদ দিয়ে শিক্ষকদের যুক্ত করা বৈষম্যমূলক। বলা হচ্ছে এটি সর্বজনীন, কিন্তু এটা তো সর্বজনীন না। এটা বৈষম্যমূলক। এটা চালু হলে ভবিষ্যতের মেধাবী শিক্ষার্থীরা শিক্ষকতাকে পেশা হিসেবে বেছে নিবে না।

উল্লেখ্য, সর্বজনীন পেনশন স্কিমের আগের চারটি স্কিমের সঙ্গে ‘প্রত্যয়’ নামের একটি প্যাকেজ চালু করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। গত ১৩ মার্চ অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে বিশ্ববিদ্যালয়সহ সব ধরনের স্বশাসিত, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ বা সমজাতীয় সংস্থা এবং তাদের অধীনস্থ অঙ্গপ্রতিষ্ঠানগুলোতে কর্মরতদের বর্তমান পেনশন ব্যবস্থা থেকে বের করে সর্বজনীন পেনশন স্কিমে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। আগামী ১ জুলাই থেকে এসব প্রতিষ্ঠানে যারা যোগদান করবেন তাদের বাধ্যতামূলকভাবে সর্বজনীন পেনশনের সর্বশেষ স্কিমের আওতাভুক্ত করতে হবে। ফলে আগামী ১ জুলাই ও তার পরে নিয়োগপ্রাপ্তরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

/মেহেদী/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়