ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১২ ১৪৩১

ইতালির পথে প্রাণ হারানো ৫ যুবকের বাড়িতে মাতম

মাদারীপুর প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪৫, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  
ইতালির পথে প্রাণ হারানো ৫ যুবকের বাড়িতে মাতম

ছেলে মামুন সেখের মৃত্যুর খবর জানার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন মা

অবৈধভাবে সমুদ্রপথে ইতালি যাওয়ার সময় মাদারীপুরের রাজৈর উপলেরার ৫ যুবক মারা গেছেন। এই ঘটনায় আহত হয়েছে আরও কয়েকজন। যুবকদের মৃত্যুর খবরে এলাকাজুড়ে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। আদরের সন্তানদের হারিয়ে দিশেহারা পরিবার। কোনো শান্তনাই থামাতে পারছে না স্বজনদের আহাজারি।

মরদেহ দেশে আনার দাবি স্বজনদের। এই ঘটনায় দালালের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন এলাকাবাসী। মরদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সরকারের সাহায্য প্রার্থনা করছেন পরিবারের সদস্যরা। পুলিশ বলছে, মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন: তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকাডুবি: ৮ বাংলাদেশির পরিচয় প্রকাশ

জানাগেছে, আফ্রিকার দেশ লিবিয়া থেকে ইউরোপে নৌকায় পাড়ি দেওয়ার সময় ভূমধ্যসাগরের তিউনিসিয়া উপকূলে ডুবে মারা যান ৮ বাংলাদেশি। মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) মারা যাওয়াদের পরিচয় প্রকাশ করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য থেকে জানা যায়, নৌকায় চালকসহ ছিলেন ৫৩ জন। এদের মধ্যে ৮ বাংলাদেশি মারা গেছেন। যাদের ৫জনের বাড়ি মাদারীপুরের রাজৈরে।

আরও পড়ুন: ইতালি যাওয়ার পথে মাদারীপুরের ৩ যুবকের মৃত্যু

মারা যাওয়ারা হলেন- রাজৈর উপজেলার সেনদিয়া গ্রামের সুনীল বৈরাগীর ছেলে সজল বৈরাগী, একই উপজেলার পরিতোষ বিশ্বাসের ছেলে নয়ন বিশ্বাস, ইউসুফ আলীর ছেলে মামুন সেখ, কাজী মিজানুরের ছেলে কাজি সজীব ও কায়সার।

আরও পড়ুন: ইতালির পথে সাগরে নিহত ৩ যুবকের লাশ ফেরত পেতে অনিশ্চয়তা

স্বজনরা জানান, গত ১৪ জানুয়ারি মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার বেশ কয়েকজন যুবক ইতালির উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হন। তিউনিসিয়ার ভূমধ্যসাগরে নৌকার ইঞ্জিন ফেটে যায়। এতে দুর্ঘটনা ঘটে। ব্যাংক ঋণ ও সুদে দালালদের দেওয়া টাকা পরিশোধ করা নিয়ে দুঃচিন্তায় রয়েছেন তারা। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের একাধিক স্বজনদের অভিযোগ, মানবপাচারকারী চক্রের সক্রিয় সদস্য গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার রাঘদি ইউনিয়নের সুন্দরদী গ্রামের বাদশা কাজীর ছেলে মোশারফ কাজী ইতালি নেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে প্রত্যেকের কাছ থেকে ১৩-১৫ লাখ টাকা নেন। পরে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় ইতালি পাঠালে ঘটে এই দুর্ঘটনা। এই কাজে সহযোগিতা করে মোশারফের ছেলে যুবরাজ কাজী। এমন ঘটনায় দোষিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন স্বজন ও এলাকাবাসী।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, নিহতদের পরিবার মামলা করলে পুলিশ সব ধরনের আইনি পদক্ষেপ নেবে।

বেলাল/মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়