ঢাকা, মঙ্গলবার, ৭ মাঘ ১৪২৬, ২১ জানুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

১৭তম আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১২-০৯ ১২:৩৭:০৮ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১২-০৯ ১০:০৫:৩০ এএম

'আমরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ’ এই প্রতিপাদ্যে বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে একযোগে উদযাপিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস।

জাতিসংঘ ২০০৩ সালে ৯ ডিসেম্বরকে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস ঘোষণা করে। সে হিসেবে এবার ১৭তম আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস।

জাতিসংঘ সারা বিশ্বকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করার লক্ষ্যেই ইউনাইটেড ন্যাশনস কনভেনশন অ্যাগেইনস্ট করাপশন (আনকাক) এর মাধ্যমে দুর্নীতিবিরোধী কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

বাংলাদেশ আনকাকের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ২০০৭ সালে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস পালন শুরু করে। যদিও সরকারিভাবে ২০১৭ সাল থেকে দিবসটি উদযাপিত হচ্ছে।

‘আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস-২০১৯’ উপলক্ষে বোববার বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। পাশাপাশি ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) ও সরকারি বিভিন্ন মন্ত্রণালয় দিবসটি পালন করছে।

সোমবার সকাল ৯টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে সংস্থাটির চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ শান্তির প্রতীক পায়রা ও ফেস্টুন উড়িয়ে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসের উদ্বোধন ঘোষণা করবেন।

এরপর সকাল সকাল ১০টায় ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের সামনে হবে মানববন্ধন। মানবন্ধন শেষে সকাল পৌনে ১১টায় বাংলাদেশ শিল্পকালা  একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা অডিটরিয়ামে ‘শিক্ষার্থী ও সততা সংঘের সমাবেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভা হবে। সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে দেশের প্রতিটি মহানগর, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মানববন্ধন, আলোচনা সভা, তথ্য চিত্র প্রদর্শন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, ৯ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস। এবারের দিবসেও যানজট ও জন হয়রানির কারণে দুর্নীতি বিরোধী র্যাোলি করছে না প্রতিষ্ঠানটি।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দুর্নীতি বৈশ্বিক সমস্যা বলেই বিশ্বব্যাপী এ দিবসটি পালন হচ্ছে। এদেশে দিবসটি সরকারিভাবে পালন হতো না। ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে কমিশন সরকারিভাবে পালনের উদ্যোগ গ্রহণ করি। সরকার কমিশনের  প্রস্তাবটি আমলে নিয়ে ২০১৭ সাল থেকেই এ দিবসটি সরকারিভাবে পালিত হচ্ছে।  দিবসটি সরকারিভাবে পালন করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের  দৃঢ় অবস্থান আরও সুস্পষ্ট ও সুদৃঢ় হয়েছে।

তিনি বলেন, এসব কর্মসূচিতে সাধারণ মানুষের সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি করতে কমিশনের প্রতিটি বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়, সকল দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি এবং তরুণ প্রজন্মের কণ্ঠস্বর সততার সংঘের সদস্যদের ইতোমধ্যেই অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এক পরিসংখ্যান তুলে ধরে ইকবাল মাহমুদ বলেন, ২০১৯ সালের নভেম্বর পর্যন্ত দুদকে ২২ হাজার ২৩৬টি অভিযোগ এসেছে।এর মধ্যে তিন হাজার অভিযোগ যাচাই-বাচাইয়ের মাধ্যমে অনুসন্ধানে নেওয়া হয়েছে। আমরা আহ্বান করবো, দুর্নীতির তথ্য দেন, লোকের নাম না দিলেও কোনো সমস্যা নেই। অভিযোগের মধ্যে সত্যতা থাকলেই হয়।”  

দুদকের পাশাপাশি ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে দুর্নীতিবিরোধী মানববন্ধনের আয়োজন করে। এছাড়া সোমবার দুর্নীতিবিরোধী কার্টুন ও আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে।

 

ঢাকা/এম এ রহমান/নাসিম