ঢাকা     সোমবার   ০৪ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ২০ ১৪২৯ ||  ০৪ জিলহজ ১৪৪৩

এক কার্গো এলএনজি আমদানিতে ব্যয় হবে ৮৮৬ কোটি টাকা

কেএমএ হাসনাত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৮:৪৩, ২৫ মে ২০২২   আপডেট: ০৮:৪৫, ২৫ মে ২০২২
এক কার্গো এলএনজি আমদানিতে ব্যয় হবে ৮৮৬ কোটি টাকা

দেশে গ্যাসের চাহিদা ক্রমেই বাড়ছে। চলতি বছরের ৫ মাসে ১২টি কার্গো এলএনজি আমদানি করতে হয়েছে। এবার ১৩তম কার্গো আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে। এক কার্গোতে ৩,২০০,০০০ এমএমবিটিইউ এলএনজি আমদানি করা হবে বলে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে। আর এ জন্য ব্যয় হবে ৮৮৬ কোটি ৭৬ লাখ ৭ হাজার ৮৪০ টাকা।

সূত্র জানায়, ‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন-২০১০ (সর্বশেষ ২০২১ সালের সংশোধনীয়সহ)’-এর আওতায় মাস্টার সেল অ্যান্ড পারচেজ অ্যাগ্রিমেন্ট (এমএসপিএ) স্বাক্ষরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্য থেকে কোটেশন সংগ্রহ প্রক্রিয়ায় স্পট মার্কেট থেকে ২০২২ সালের জন্য ১৩তম কার্গো এলএনজি আমদানি হচ্ছে। এরআগে গত সপ্তাহে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় ১২তম কার্গো আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রতিমাসে গড়ে ২টি করে কার্গো এলএনজি আমদানি করা হয়েছে।

দেশের ক্রমবর্ধমান গ্যাসের চাহিদা পূরণের জন্য কাতারগ্যাস এবং ওমান ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল (ওটিকিউ) এর সঙ্গে দুটি দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির মাধ্যমে এলএনজি আমদানির পাশাপাশি স্পট মার্কেট থেকেও এলএনজি কেনা হচ্ছে। স্পট মার্কেট থেকে এলএনজি কেনার লক্ষ্যে যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে এমএসপিএ প্রস্তুত করে আইন ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের ভেটিং নেওয়া হয় এবং তা চূড়ান্ত করা হয়। পরবর্তীতে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির নীতিগত অনুমোদনের ভিত্তিতে পেট্রোবাংলা এমএসপিএ অনুস্বাক্ষরকারী ১৬টি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুড়ান্ত করা এমএসপিএ স্বাক্ষর করে।

সূত্র জানায়, কোভিড-১৯ এর জন্য সরাসরি অথবা কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে দরপ্রস্তাব গ্রহণ না করে এলএনজি স্পট পারচেজ (এলএসপি) সফটওয়্যার এর মাধ্যমে দরপত্র গ্রহণ করা হচ্ছে। ২০২২ সালে স্পট মার্কেট থেকে কার্গো গ্রহণের জন্য উক্ত সফটওয়্যারের মাধ্যমে এর আগে প্রথম দরপ্রস্তাব আহ্বান করা হয়। ওই দরপ্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে পাওয়া দরপত্রগুলো কারিগরি ও আর্থিকভাবে নন রেসপন্সিভ হওয়ায় জানুয়ারি মাসের জন্য অনুমোদিত ১ কার্গো এলএনজি আমদানি করা সম্ভব হয়নি।

উল্লেখ্য, ২০২০, ২০২১ ও ২০২২ সালে স্পট মার্কেট থেকে কার্গো গ্রহণের জন্য ওই সফটওয়্যার-এর মাধ্যমে ৩৫টি দরপ্রস্তাব আহ্বান করা হয়। এরমধ্যে ২৭টি কার্গো এলএনজি গ্রহণের জন্য সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির অনুমোদন নেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০২২ সালের জুন মাসে নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহের জন্য স্পট মার্কেট থেকে ১ কার্গো এলএনজি আমদানি করা প্রয়োজন। চলতি মাসের ৮ তারিখে আরপিজিসিএল থেকে এমএসপিএ স্বাক্ষরকারী ১৬টি প্রতিষ্ঠানের কাছে জুন মাসের জন্য স্পট ভিত্তিতে ১ কার্গো এলএনজি সরবরাহের দরপ্রস্তাব আহ্বান কর ই-মেইলে চিঠি পাঠানো হয়।

দরপত্রে কারিগরি যেসব শর্ত দেওয়া হয়েছিল, 

১.এমএসপিএ-এর সিডিউলে বর্ণিত এলএনজি’র গুনগত মান ও হিটিং ভ্যালু অনুযায়ী ৩১,০০,০০০ থেকে ৩২,০০,০০০ এমএমবিটিইউ এলএনজি সরবরাহ করতে হবে
২. ২০২২ সালের ১১-১২ জুন তারিখের মধ্যে এলএনজি সরবরাহ করতে হবে,
৩. এলএনজি কার্গোটি দেশে বিদ্যমান দুটি ভাসমান এলএনজি টার্মিনালে সরবরাহের উপযোগী হতে হবে।

অন্যদিকে অর্থনৈতিক শর্তাবলীর মধ্যে রয়েছে, 
১.এলএনজি একক মার্কিন ডলার/এমএমবিটিইউতে উল্লেখ করতে হবে, 
২. এলএনজির একক দরপ্রস্তাব কনফার্মেশন নোটিশ অথবা দরপ্রস্তাব উন্মুক্তকরণের পর থেকে ৪ দিন (২০২২ সালের ২৬ মে) পর্যন্ত কার্যকর থাকতে হবে।

সূত্র জানায়, দরপ্রস্তাবে ২টি প্রতিষ্ঠান অংশ নিয়ে ২টিই রেসপন্সিভ হয়। দরপত্রে অংশগ্রহণকারী সিঙ্গাপুর ভিত্তিক ভিটল এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেড প্রতি এমএমবিটিইউ’র দাম ২৫.৭৫০০ ডলার উল্লেখ করে সর্বনিম্ন দরদাতা হয়। অন্যদিকে দরপত্রে অংশ নেওয়া অপর প্রতিষ্ঠান যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক এক্সেলারেট এনার্জী এলপি প্রতি এমএমবিটিইউ’র দাম ২৬.৪৬০০ ডলার উল্লেখ করে।

দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি দরপত্রের সব কিছু অনুসরণ করে সর্বনিম্ন দরদাতা  ভিটল এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেডের কাছ থেকে ১ কার্গো এলএনজি কেনার সুপারিশ করে। ১৫ শতাংশ ভ্যাট এবং ২ শতাংশ আইটিসহ ১ কার্গো এলএনজি কিনতে মোট ব্যয় হবে ৮৮৬ কোটি ৭৬ লাখ ৮৪০ টাকা।

এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদনের জন্য অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেয় সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির পরবর্তী সভায় উপস্থাপন করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

ঢাকা/হাসনাত/ইভা 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়