ঢাকা     বুধবার   ৩০ নভেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৬ ১৪২৯ ||  ০৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

এক সপ্তাহ পর ফোন খুললেন ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী, দল থেকে বহিষ্কার

রাজশাহী সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:১৮, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২   আপডেট: ১১:২০, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২
এক সপ্তাহ পর ফোন খুললেন ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী, দল থেকে বহিষ্কার

এক সপ্তাহ ধরেই নিজের মোবাইল ফোন বন্ধ রেখেছিলেন রাজশাহী জেলা পরিষদ নির্বাচনের এক স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী। অবশেষে তিনি তার ফোন নম্বর চালু করেছেন রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৫টার পর। 

এ দিন ছিলো নির্বাচনের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। শেষ সময় পার হওয়ার পর তিনি মোবাইল ফোন চালু করেন।

এই স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আখতারুজ্জামান রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক। জেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন না পেয়ে তিনি ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হয়েছেন। শেষ পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করায় রোববার সন্ধ্যায় তাকে দল থেকে বহিষ্কারের কথা জানানো হয়েছে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল কুমার সরকার ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াদুদ দারা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দলের মনোনয়ন বোর্ডের সিদ্ধান্ত অমান্য করে ভোটে অংশ নেওয়ায় আখতারুজ্জামানকে দল থেকে বহিষ্কার করা হলো। পাশাপাশি যারা দলীয় প্রার্থীর বিরোধীতা করবেন তারাও মূল দল বা সহযোগী সংগঠন থেকে বহিষ্কৃত হবেন।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে প্রার্থিতা বৈধ হওয়ার পর থেকেই ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী আখতারুজ্জামানের ফোন বন্ধ ছিল। এরমধ্যেই তিনি জেলা প্রশাসক ও নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন যে, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ তাকে নির্বাচন থেকে সরে যেতে হুমকি দিয়েছেন।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের চাপ থাকার কারণে ফোন বন্ধ ছিল কি না জানতে চাইলে আখতারুজ্জামান বলেন, ‘তেমন চাপ কেউ দেয়নি। কিন্তু আসাদ ভাই কয়েকজনকে নিয়ে আমার বাড়ি গিয়েছিলেন। আমাকে না পেলেও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে বলে আসেন। প্রত্যাহার না করলে অসুবিধা হবে বলেও তিনি হুমকি দেন। এটা তো জেলা প্রশাসককে জানিয়েছি।

আখতারুজ্জামান জানান, সবার কাছে পরিচিত তার মোবাইল নম্বরটি বন্ধ থাকলেও অন্য মোবাইল ব্যবহার করেছেন। ভোটারদের সাথে যোগাযোগ রেখেছেন। ভোট চেয়েছেন। তবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বিভিন্ন জায়গায় সমাবেশে নানারকম কথা বলছেন বলে শুনছেন। আওয়ামী লীগ নেতা আসাদও বিভিন্ন কথা বলছেন বলে তার কানে এসেছে। তা-ও তিনি ভোটে আছেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, আখতারুজ্জামান তো আমাদের দলের লোক। নিজে ভোট থেকে সরে গিয়ে দলীয় প্রার্থীর হয়েই যেন তিনি কাজ করেন সে জন্য তার বাসায় যাই। এটা হুমকি নয়।

আগামী ১৭ অক্টোবর রাজশাহী জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হবে।  রোববার ছিল প্রার্থিদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। তবে চেয়ারম্যান পদের কোন প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল ও ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী আখতারুজ্জামান ছাড়াও আফজাল হোসেন নামের আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

অতিরিক্ত জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম প্রামানিক জানান, ৯ জন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন। এদের মধ্যে ৮ জনই সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য প্রার্থী এবং একজন সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থী হয়েছিলেন। ৯ জন প্রত্যাহারের পর এখন তিনটি সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে ১৭ জন এবং ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডে ২৯ জন প্রার্থী ভোটের মাঠে রইলেন।

কেয়া/টিপু

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়