ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ১১ ১৪৩১

৭২ ঘণ্টার মধ্যে কুবি খোলার দাবি শিক্ষার্থীদের

কুবি সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৪৯, ২৩ মে ২০২৪  
৭২ ঘণ্টার মধ্যে কুবি খোলার দাবি শিক্ষার্থীদের

অনির্দিষ্টকালের জন্য কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) বন্ধের সিদ্ধান্ত বাতিল করে আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে খুলে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। দাবি না মানা হলে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারিও দেন তারা।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের  (১৭তম আবর্তন) শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেওয়া এ সংক্রান্ত একটি বিবৃতি থেকে বিষয়টি জানা গেছে। 

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং শিক্ষক সমিতির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের জেরে গত ৩০ এপ্রিল অনির্দিষ্টকালের জন্য কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়কে বন্ধ ঘোষণা করা হয়। কেবল অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের জেরে ক্যাম্পাস বন্ধ রেখে শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষা ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করে রাখাটা শিক্ষার্থীবান্ধব সিদ্ধান্ত হতে পারে না। এতে করে তীব্র সেশনজটে পড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

বিবৃতিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে নাম উল্লেখিত ১৭তম আবর্তনের শিক্ষার্থীরা হলেন, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ফারুক আল নাহিয়ান, গণিত বিভাগের আব্দুল্লাহ আল সায়েম, আইন বিভাগের মো. তানভীর হাসান, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের খান জাহান আলী, অ্যাকাউন্টটি অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের কামরুল হাসান ফাহিম, বাংলা বিভাগের আরাফাত হোসেন, প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের দেলোয়ার হোসেন, আইসিটি বিভাগের মোহাম্মদ জাহিদ হোসেন, রসায়ন বিভাগের মোহাম্মদ রেদোয়ান, ব্যবস্থাপনা শিক্ষা বিভাগের মেহরাব হোসেন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের জুবায়েদ হোসেন এবং অর্থনীতি বিভাগের শুভ। 

এ ব্যাপারে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ফারুক আল নাহিয়ান বলেন, আমাদের দাবি খুবই স্বচ্ছ। সেশনজট থেকে রক্ষা পেতে আমরা আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে কুবির সব স্বাভাবিক কার্যক্রম চালু করার দাবি জানাচ্ছি। আমাদের দাবি সঠিক সময়ে মানা না হলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার মানসিক প্রস্তুতি এবং নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের জুবায়েদ হোসাইন বলেন, দীর্ঘদিন আমাদের ক্যাম্পাস বন্ধ। যা আমাদের মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। বিশ্ববিদ্যালয় একজন ছাত্রের অ্যাকাডেমিক পড়াশোনার শেষ স্টেজ বলা যায়। সবাই পড়াশোনা শেষ করে চাকরির বাজারে ঢুকবে। এ সময় এতো টাল-বাহনা শিক্ষার্থীদের ক্ষতি করছে। তাই আমরা ১৭ ব্যাচ অতিদ্রুতই ক্যাম্পাস খুলে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসছি, নাটক দেখতে না।

/এমদাদুল/মেহেদী/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়