ঢাকা, সোমবার, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

‘মোশাররফ করিমের কাছে আমি কোচিং সেন্টারে পড়তাম’

আমিনুল ইসলাম শান্ত : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১৪ ৮:৩০:২০ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১৭ ১০:৪৪:৪৯ এএম

দর্শকপ্রিয় অভিনয়শিল্পী মোশাররফ করিম। ২০০৪ সালের ৭ অক্টোবর রোবেনা রেজা জুঁইয়ের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। এরপর ১৫টি বসন্ত পার করেছেন এই তারকা দম্পতি। প্রেম থেকে পরিণয়, তারপর দীর্ঘ দাম্পত্য জীবনের নানা প্রসঙ্গ নিয়ে রাইজিংবিডির সহ-সম্পাদক আমিনুল ইসলাম শান্ত কথা বলেছেন রোবেনা রেজা জুঁইয়ের সঙ্গে। দুজনের আলাপচারিতা পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো—

রাইজিংবিডি: মোশাররফ করিমের সঙ্গে আপনার প্রথম পরিচয় কীভাবে হলো?

রোবেনা রেজা জুঁই: মোশাররফ করিম বন্ধুর সঙ্গে একটা কোচিং সেন্টার পরিচালনা করত। সেখানে সে পড়াত। তখন আমি দশম শ্রেণিতে পড়ি। প্রি-টেস্ট পরীক্ষার আগে অথবা পরে আমি সেই কোচিং সেন্টারে ভর্তি হই। মোশাররফ করিমের কাছে বাংলা সাহিত্য এবং ইংরেজি গ্রামার পড়তাম। এরপর এইচএসসি এলো। তখনও ওই কোচিং সেন্টারেই ভর্তি হলাম। মজার ব্যাপার এইচএসসি শেষ করে আমি নিজেও সেখানে পড়াতে শুরু করলাম। কোচিংয়ে পড়তে গিয়েই মোশাররফের সঙ্গে পরিচয়।

রাইজিংবিডি: পরস্পরের প্রতি ভালো লাগা বুঝতে পারলেন কখন?

রোবেনা রেজা জুঁই: আমি যখন কোচিং সেন্টারে পড়াতে শুরু করলাম, তখনও মোশাররফ করিমকে নিয়ে আমার মধ্যে আলাদা কোনো ফিলিংস কাজ করেনি। আমি তাকে শিক্ষক হিসেবেই দেখেছি। কিন্তু বন্ধুত্বপূর্ণ একটা সম্পর্ক ছিল। কারণ কোচিং সেন্টারের শিক্ষকরা সাধারণত স্কুল-কলেজের শিক্ষকদের মতো এতটা স্ট্রেইট থাকেন না। শিক্ষক হিসেবে যোগ দেয়ার এক বছর পর থেকে মূলত ভালো লাগার আদান-প্রদান শুরু হয়। 

রাইজিংবিডি: আদান-প্রদান কোন তরফ থেকে শুরু হয়েছিল?

রোবেনা রেজা জুঁই: মোশাররফ করিমের তরফ থেকে। কারণ আমি তাকে শিক্ষক হিসেবেই জানতাম। ফলে এ বিষয়ে ভাবিনি।

 

 

রাইজিংবিডি: তাহলে তো প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়ার কথা!

রোবেনা রেজা জুঁই: হ্যাঁ, প্রথমে মোশাররফের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলাম।

রাইজিংবিডি: তাহলে সাড়া দিলেন কখন?

রোবেনা রেজা জুঁই: প্রস্তাব পাওয়ার তিন-চার দিন পর মনে হলো— আমিও তো ওকে পছন্দ করি। কিন্তু এটাই যে ভালোবাসা বুঝতে পারছিলাম না। কিন্তু ও ঠিকই অনুভব করতে পেরেছিল। ওর প্রতি আমার ভালো লাগা যখন আবিষ্কার করলাম মনে হলো ওটাই ভালোবাসা। অথচ প্রথমে মনে হচ্ছিল, ওর প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থেকে এমন ফিলিংস হচ্ছে। যাই হোক, ও যদি প্রস্তাব না দিত তাহলে হয়তো অনেক পরে গিয়ে বিষয়গুলো উপলদ্ধি করতে পারতাম। 

রাইজিংবিডি: চার বছরের প্রেম। এ সময় কখনও দুঃসময় এসেছে?

রোবেনা রেজা জুঁই: আমাদের সম্পর্ক বিয়ে পর্যন্ত গড়াতে কিছু সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছে। ওর পরিবার থেকে তেমন সমস্যা ছিল না। কারণ মোশাররফ এমনিতেই উদাসীন মানুষ। সে সংসার করবে এটা তার পরিবার ভাবতেই পারেনি! যখন সেই ছেলে মেয়ে পছন্দ করেছে তখন পরিবার থেকে আর বাধা আসেনি। ওদিকে আমি তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছি। আমার পরিবারের সুপ্ত ইচ্ছা ছিল- পড়াশোনা শেষ করে উচ্চশিক্ষার জন্য দেশের বাইরে পাঠাবে। কিন্তু তৃতীয় বর্ষে পড়াকালীন বিয়ের সিদ্ধান্ত নিলাম। আমার এই সিদ্ধান্ত পরিবারকে খুব হতাশ করেছিল। এছাড়া কালচারাল কিছু গ্যাপ ছিল। আমার বাড়ি জামালপুর। মোশাররফ করিমের বাড়ি বরিশাল। সবকিছু মিলিয়ে প্রতিবন্ধকতা ছিল। 

রাইজিংবিডি: বিয়ের আগে এবং পরে মোশাররফ করিমের মধ্যে পার্থক্য কতটা চোখে পড়ে?

রোবেনা রেজা জুঁই: কোনো তফাৎ নাই (হাসি)। বিয়ের আগে এক বাসায় থাকতাম না, বিয়ের পর থেকে এক বাসায় থাকি। মোশাররফ আগে থেকেই আনমনা, মনভোলা মানুষ। ও মানুষকে খুব স্বাধীনতা দিতে পছন্দ করে। মাঝেমধ্যে একটু বেশি রেগে যায়। এসব আগেও ছিল, এখনো আছে। বিয়ের পর একদিন আমাকে বলল, ‘আমি অভিনয়ে সময় দিতে চাই। যদি তুমি ধৈর্য ধরো’। আমার মনে হলো, একজন মানুষ এতদিন থিয়েটার করেছে, এখন তার ধ্যান-জ্ঞান এটাই হওয়া উচিত। তারপর শুরু করল। পরের ঘটনা তো সবাই জানেন। আগে ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত থাকত, এখন অভিনয় নিয়ে ব্যস্ত থাকে।

 

 

রাইজিংবিডি: মোশাররফ করিমের কোন বিষয়গুলো আপনার পছন্দ ও অপছন্দ?  

রোবেনা রেজা জুঁই: ভালো লাগার বিষয় হলো— ও খুব ডিমান্ডিং না। কোনো কিছু চাপিয়ে দিতে পছন্দ করে না। কোনো কিছু মতের বিরুদ্ধে গেলেও রিঅ্যাক্ট করে না। অপেক্ষা করতে জানে। তার ভাবনা, জুঁই বয়সে ছোট, সুতরাং আমার বয়সে এলে জুঁইও বুঝতে পারবে। এই ধৈর্য্যটা ওর আছে। আর খারাপ লাগার বিষয় হলো— ও ব্যক্তিগত সময় পার করতে পারে না। এটা কাজের চাপের কারণে হয়েছে। দর্শকের সঙ্গে সেলফি তুলতে খুব অপছন্দ করে। মাঝেমধ্যে রিঅ্যাক্ট করে। অভিনয়ে সময় দিতে গিয়ে পারিবারিক কোনো অনুষ্ঠানেই উপস্থিত থাকতে পারে না। ও অভিনয় করবে, খাবে ঘুমাবে, জগতের আর কোনো টেনশনই সে নেয় না। এটা আমার জন্য মাঝে মাঝে কষ্টের হয়ে যায়। কিন্তু আমার তো ক্যারিয়ার এবং পরিবার দুটোই সামলাতে হয়। 

রাইজিংবিডি: সম্পর্কের ১৯ বছর পর মোশাররফ করিমের কাছে আপনি কী চাইবেন?

রোবেনা রেজা জুঁই: ইন্ডাস্ট্রি ও দর্শকদের তো অনেক দিলো। এতদিন আমরা ওর কাছে কিছু চাইনি। আমরা ওকে ছেড়েই দিয়েছিলাম। এখন মাঝে মাঝে মনে হয় ওর কাছে সময়টা চাই। কারণ আমার শাশুড়ির বয়স হয়েছে। আমাদের সন্তান, আমি ও পরিবারের কাছের সদস্য যারা আছেন সবার কাছে মনে হয়- আর কত! এবার ওর কাছে আমরা কিছুটা সময় চাই।



ঢাকা/তারা 

     
 

রাইজিংবিডি স্পেশাল ভিডিও