ঢাকা     শনিবার   ১৫ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ১ ১৪৩১

জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করলেন কেজরিওয়াল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:২৮, ২৭ মে ২০২৪   আপডেট: ১৫:৫৪, ২৭ মে ২০২৪
জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করলেন কেজরিওয়াল

দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল তার অন্তবর্তী জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন করেছেন। আজ সোমবার তিনি সুপ্রিম কোর্টে আবেদন জমা দিয়েছেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গুরুতর স্বাস্থ্যের উদ্বেগের কথা উল্লেখ করে অন্তবর্তীকালীন জামিনের মেয়ার আরও সাত দিন বাড়ানোর অনুরোধ করেছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। 

আবেদনপত্রে কেজরিওয়াল লিখেছেন, তার ওজন ৭ কেজি কমে গেছে এবং কেটোন মাত্রা বেড়েছে। অবিলম্বে তার পিইটি–সিটি স্ক্যান করা প্রয়োজন। এসব কারণ দেখিয়ে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী জামিনের মেয়াদ সাত বাড়ানোর আবেদন জানিয়েছেন।

তার এ আবেদন মঞ্জুর করা হবে কিনা, আদালত এখনও কোনও সিদ্ধান্ত নেননি।

এনডিটিভি জানায়, কেজরিওয়াল দুর্নীতির মামলায় ৫০ দিন কারাগারে থাকার পর গত ১০ মে তাকে ২১ দিনের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয় ভারতের শীর্ষ আদালত। চলমান লোকসভা নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেওয়ার জন্য তাকে এই জামিন দেওয়া হয়।

তবে জামিনে মুক্ত থাকা অবস্থায় তাকে তার নিজস্ব কার্যালয় অথবা দিল্লির সচিবালয়ে যাওয়ার ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করে আদালত। এ ছাড়া, অত্যন্ত জরুরি না হলে কোনো আনুষ্ঠানিক ফাইলেও সাক্ষর না দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়।

কেজরিওয়ালের অন্তর্বর্তী জামিনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ১ জুন। শর্ত অনুযায়ী, ২ জুন কারা কর্তৃপক্ষের কাছে গিয়ে আত্মসমর্পণ করতে হবে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীকে। তবে তার আগেই জামিনের এ মেয়াদ আরও সাতদিন বাড়ানোর আবেদন করলেন তিনি। 

ম্যাক্স হাসপাতালের একটি মেডিকেল টিম এরই মধ্যে কেজরিওয়ালের প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেছে। এ বিষয়ে কেজরিওয়ালের আইনি পরামর্শদাতা বলেন, তার সুচিকিৎসার জন্য এসব পরীক্ষা করা অত্যন্ত জরুরি।

এদিকে, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর জামিন নিয়ে শুরু থেকেই সমালোচনা করে আসছেন বিজেপি নেতারা। সুপ্রিম কোর্ট থেকে তাকে বিশেষ সুবিধা দেয়া হচ্ছে বলে তারা দাবি করেন।  তবে জামিনের সঙ্গে জড়িত বিচারকরা দৃঢ়ভাবে বলেছেন যে, কেজরিওয়ালের ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম কিছু করা হয়নি।

উল্লেখ্য, গত ২১ মার্চ আবগারি মামলায় দুর্নীতির অভিযোগে কেজরিওয়ালকে গ্রেপ্তার করে ভারতের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। পরে তাকে পাঠানো হয় তিহাড় জেলে।

তবে ইডির গ্রেপ্তারির বিরোধিতা করে শীর্ষ আদালতে মামলা করেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী। তার আইনজীবীদের দাবি ছিল, নির্বাচনী প্রচার থেকে কেজরিওয়ালকে আটকাতেই ইচ্ছাকৃতভাবে জেলে পাঠানো হয়েছে। সেই আবেদনের ভিত্তিতেই গত ১০ মে কেজরিওয়ালকে অন্তর্বর্তী জামিন দেয় দেশটির সুপ্রিম কোর্ট।

/ফিরোজ/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়