ঢাকা     রোববার   ২৩ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ৯ ১৪২৮ ||  ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

গুগলের ক্যামেরায় ধরা পড়ল ২০ বছরের পলাতক আসামি

প্রকাশিত: ২০:৩৫, ৯ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ২১:৪৪, ৯ জানুয়ারি ২০২২
গুগলের ক্যামেরায় ধরা পড়ল ২০ বছরের পলাতক আসামি

গুগল স্ট্রিট ভিউ এমন একটি প্রযুক্তি সুবিধা, যার মাধ্যমে গুগল ম্যাপসে প্যানারোমিক ভিউতে ছবি দেখার পাশাপাশি বিশ্বের যেকোনো নির্দিষ্ট রাস্তার পূর্ণাঙ্গ চিত্র দেখা যায়। 

এবার গুগল স্ট্রিট ভিউয়ের তোলা ছবি দেখে জিওঅচিনো গ্যামিনো নামের একজন ইতালীয় মাফিয়া বসকে গ্রেপ্তার করেছে স্পেনের পুলিশ। দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়েছে, মাফিয়া বস জিওঅচিনো গ্যামিনো গত ২০ বছর ধরে পলাতক ছিল। খুনের দায়ে তিনি সাজাপ্রাপ্ত আসামি এবং ইতালির মোস্ট ওয়ান্টেড অপরাধীদের তালিকায় ছিলেন।

স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদের নিকটবর্তী ছোট্ট শহর গালাপাগারে সম্প্রতি তাকে শনাক্ত ও পরবর্তীতে গ্রেপ্তার করা হয়। গত ২০ বছর ধরে এ শহরে বসবাস করে আসছিলেন গ্যামিনো। বিয়ে করে নতুন জীবন শুরু করেছিলেন, শেফ হিসেবে কাজ করার পাশাপাশি ফল ও সবজির দোকান চালাচ্ছিলেন- নিজের নাম পরিবর্তন করে এসব করেছেন গ্যামিনো। 

২০১৪ সালে তার নামে ইউরোপীয় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল। এ অপরাধীর বর্তমান বয়স ৬১ বছর। স্পেনে তার অবস্থান করা নিয়ে পুলিশের কাছে তথ্য থাকলেও, সঠিক অবস্থান জানা ছিল না।

গুগল তাদের স্ট্রিট ভিউ প্রকল্পে গাড়িতে বসানো ক্যামেরার দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন সড়কে ঘুরে ঘুরে ছবি তুলে থাকে। সম্প্রতি স্পেনের ওই শহরে নিজের দোকানের সামনে একজনের সঙ্গে কথা বলা অবস্থায় গুগলের ক্যামেরায় বন্দী হোন গ্যামিনো। গুগল যদিও মানুষের চেহারা ঝাপসা করে দিয়ে থাকে, কিন্তু পুলিশ বেশ কিছু সাদৃশ্য খুঁজে পেয়েছিল। সেই সূত্র ধরে পার্শ্ববর্তী একটি রেস্তোরাঁর ফেসবুক পেজ থেকে ম্যানুয়াল নামের একজন শেফের ছবি পায় পুলিশ ও নিশ্চিত হয় ম্যানুয়াল নামের ব্যক্তিটিই আদতে সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্যামিনো। চিবুকের বাম পাশে একটি স্বতন্ত্র দাগ দেখে তাকে শনাক্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

মাদক ব্যবসায়ী গ্যামিনোকে ১৯৮৯ সালে একটি খুনের মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। ২০০২ সালে রোমের একটি কারাগারে চলচ্চিত্রের শুটিং চলার সময় সেখান থেকে পালাতে সক্ষম হোন তিনি। এরপর থেকেই পলাতক হয়ে ওঠেন, অন্যদিকে পুলিশও কয়েক দশক করে তার খোঁজ অব্যাহত রেখেছিল।

গ্রেপ্তার হওয়ার পর গ্যামিনো পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমাকে কিভাবে খুঁজে পেলেন? এমনকি গত ১০ বছর ধরে আমি আমার পরিবারকেও কখনো এখানে ডাকিনি।’

বর্তমানে স্পেনের পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন গ্যামিনো। ইতালীয় পুলিশ ফেব্রুয়ারির শেষের দিকে তাকে ইতালিতে ফেরত আনার লক্ষ্যে কাজ করছে বলে জানা গেছে।

দ্য গার্ডিয়ানকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তারা জানান, ভাগ্য গ্যামিনোকে গ্রেপ্তার কারিয়েছে তা নয়। বিষয়টি এমন না যে, আমরা পলাতক আসামিদের খুঁজে বের করার জন্য গুগল ম্যাপসে আমাদের দিনগুলো কাটিয়ে দেই। এটা বহু আগের এবং দীর্ঘ তদন্ত ছিল। আমরা সঠিক পথে  ছিলাম, গুগল ম্যাপস আমাদেরকে তদন্ত নিশ্চিত করতে সাহায্য করেছে।

পড়ুন: ছবিতে নারীর ক্লিভেজ স্পষ্ট রাখায় গুগলকে জরিমানা

ঢাকা/ফিরোজ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ