RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ১৬ জানুয়ারি ২০২১ ||  মাঘ ২ ১৪২৭ ||  ০১ জমাদিউস সানি ১৪৪২

মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, শিক্ষক গ্রেপ্তার

কুমিল্লা প্রতিনিধি  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫৩, ১৪ অক্টোবর ২০২০  
মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, শিক্ষক গ্রেপ্তার

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলায় ধর্ষণের অভিযোগে বুধবার (১৪ অক্টোবর) দুপুরে এক মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ওই শিক্ষকের নাম মাওলানা মো. ইউসুফ সোহাগ (৪০)। তিনি দেবীদ্বার উপজেলার সুলতানপুর গ্রামের সহিদুল ইসলামের ছেলে। 

ইউসুফ সোহাগ চান্দিনা পল্লী বিদ্যুৎ রোডে দারুল ইহসান তাহফিজুল কোরআন কওমী মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও মোহতামিম। ওই মাদ্রাসার ১৪ বছরের এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে।

ওই ছাত্রীর বাবা বলেন, মঙ্গলবার (১৩ অক্টোবর) তিনি জানতে পারেন তার মেয়েকে নিয়ে ওই শিক্ষক পালিয়ে গেছেন। বিষয়টি জানতে পেরে খোঁজাখুঁজি করে ব্যর্থ হয়ে স্থানীয় মানবাধিকারকর্মী লিটন সরকারকে বিষয়টি জানান। লিটন সরকার মঙ্গলবার রাতে ওই ছাত্রীসহ শিক্ষককে খুঁজে পান।

লিটন সরকার বলেন, ‘মেয়েটির বাড়ি আমার নিজ গ্রামের। বিষয়টি আমাকে অবহিত করলে দেবীদ্বার উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ওসিকে জানিয়ে মেয়েটিকে ঢাকা থেকে উদ্ধার করি।’   

তিনি জানান, ইউসুফ সোহাগ চারটি বিয়ে করেছেন। এখনও তার ঘরে দুইজন স্ত্রী রয়েছেন। ওই ছাত্রী রাইজিংবিডিকে বলে, ‘মাদ্রাসায় অধ্যায়ণরত অবস্থায় এক মাস আগে ইউসুফ হুজুর জোর করে আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করেন। আমি বিষয়টি অভিভাবককে জানাতে চাইলে তিনি বিভিন্ন ভয়-ভীতি দেখান। পরবর্তীতে সুযোগ পেলেই আমার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করতেন। মঙ্গলবার বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে জোর করে আমাকে ঢাকায় নিয়ে যান ইউসুফ হুজুর।’  

দেবীদ্বার থানার ওসি মো. জহিরুল আনোয়ার বলেন, মেয়েটির এবং মাদ্রাসা শিক্ষক উভয়ের বাড়ি দেবীদ্বার থানা এলাকায় হলেও ঘটনাস্থল যেহেতু চান্দিনা থানায়, তাই এ বিষয়ে চান্দিনা থানা আইনগত ব্যবস্থা নেবে। 

বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে চান্দিনা থানার ওসি শামসউদ্দীন মোহাম্মদ ইলিয়াছ মোবাইল ফোনে বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ইউসুফ সোহাগ অভিযোগের বিষয়ে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। তাকে অভিযুক্ত করে মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে। 

ইমরুল/বকুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়