Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     শুক্রবার   ১৮ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ৬ ১৪২৮ ||  ০৬ জিলক্বদ ১৪৪২

মধ্যরাতেও শিমুলিয়া ঘাটে বাড়ি ফেরা হাজারো মানুষের চাপ

শেখ মোহাম্মদ রতন, মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০২:১৩, ১২ মে ২০২১  
মধ্যরাতেও শিমুলিয়া ঘাটে বাড়ি ফেরা হাজারো মানুষের চাপ

ঈদে ঘরে ফেরা যাত্রীদের ঢল নেমেছে মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরি ঘাটে। গত কয়েকদিন ধরে ঘাটে মানুষের ভিড় অব্যাহত থাকলেও মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর থেকে দিবাগত মধ্যরাত ১টা পর্যন্ত যাত্রীদের চাপ আরও বেড়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত ঘরে ফেরা মানুষের ভিড়ের কারণে পা রাখার ঠাঁই ছিল না। স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে যাত্রীরা নদীর স্রোতের মতো ফেরিযোগে বাড়ি ফিরছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় ভিড় আরও বাড়তে থাকে। এদিন মধ্যেরাতেও ঘাট এলাকায় ছিল জনস্রোত।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মধ্যরাত ১টার দিকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরিণ নৌপরিবহন কর্পোরেশন (বিআই ডব্লিউটিসি'র) ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সাফায়েত আহমেদ।

তিনি জানান, ঈদে ঘরমুখো মানুষের জনস্রোত অব্যাহত ছিল। ফেরিগুলোতে যানবাহন ঠাঁই পাচ্ছিল না জনস্রোতের কারণে। 

সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ১৪টি ফেরি চলাচল করলেও রাতে সবকটি ১৫টি ফেরি সচল রয়েছে। ঘরমুখো মানুষ এবং পণ্যবাহী ট্রাক ও অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরি যান পারাপার করা হচ্ছে। শিমুলিয়া ঘাটে দায়িত্বরত মাওয়া ট্রাফিক পুলিশের ইনচার্জ (টিআই) মোহাম্মদ হিলাল উদ্দিন বলেন, রাতের বেলায় এতো মানুষ কোথা থেকে আসছে, বুঝতে পারছি না। ফেরিঘাটে হাজার হাজার মানুষ পারাপার হচ্ছে।

মাওয়া ট্রাফিক ইন্সপেক্টর হাফিজুর রহমান জানান, রাত ১টার দিকে ২ ও ৩ নম্বর ঘাট থেকে ফেরিগুলো রওনা হচ্ছে। বিশাল এই ফেরিতে অল্প সংখ্যক পণ্যবাহি গাড়ি ছাড়া সবই মানুষ। শুধু চারটি ট্রাক এবং ছয়টি ছোট যান কোনক্রমে স্থান পায়। ঘাটে এখনও দুই শতাধিক ট্রাক ও ১০-১২টি ছোট যান পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে।

এদিকে, জেলার লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার হুমায়ুন কবির জানান, জরুরি পরিসেবা ছাড়া ফেরি চলাচল বন্ধ এবং রাতে পণ্যবাহীবাহী ট্রাক পারাপারের ঘোষণার পরও অনেকেই বুঝতে না পেরে ঘাটে রওনা হয়ে চরম বিড়ম্বনায় পড়ছেন। অনেকে ফেরতও যাচ্ছেন। আর যারা পার হচ্ছেন অনেক কষ্ট করছেন।

ফেরি বন্ধের কঠোর ঘোষণা ও বিজিবি মোতায়েন করেও শিমুলিয়া ঘাট দিয়ে ঘরমুখো হাজার হাজার মানুষের স্রোত বেড়েই চলেছে।

ঢাকা/আমিনুল

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়