Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ৬ ১৪২৮ ||  ১২ সফর ১৪৪৩

দগ্ধ যুবকের মৃত্যু

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:০৬, ২৭ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৪:৪০, ২৭ জুলাই ২০২১
দগ্ধ যুবকের মৃত্যু

গাজীপুরের শ্রীপুরে গ্যাস সিলিন্ডারের মূল্য নির্ধারণ নিয়ে বাক বিতন্ডায় দোকানে হামলা এবং দোকান মালিকের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন লাগিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় ৪দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর দগ্ধ আরিফ হোসেন (২৪) মারা গেছেন।

সোমবার (২৬ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১১টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।  মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) সকালে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আরিফের ভাই সাখাওয়াত হোসেন।

আরিফ উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের উদয় খালি গ্রামের জজ মিয়ার ছেলে। 

অভিযুক্ত আসামিরা হলেন তেলিহাটি গ্রামের ফালু সরকারের ছেলে তোফাজ্জল সরকার, তার ভাই মোফাজ্জল সরকার এবং তাইজু সরকারসহ তাদের অজ্ঞাত ১০/১২ জন সহযোগী। এ সময় তারা দোকানের ক্যাশ বাক্সের ড্রয়ার ভেঙে নগদ ৯ লাখ ২০ হাজার টাকা লুটে নেয়।

শ্রীপুর ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মাহফুজ ইমতিয়াজ ভূঁইয়া মামলার বরাত দিয়ে জানান, বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) রাত ৯টায় উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের চৌরাস্তায় (তেলিহাটি মোড়) ভাই ভাই ট্রেডার্স থেকে একটি গ্যাস সিলিন্ডার ক্রয় করেন তোফাজ্জল সরকার। গ্যাস সিলিন্ডারের মূল্য নির্ধারণ নিয়ে দোকান মালিক মোজাম্মেলের সাথে তোফাজ্জলের বাক বিতন্ডা হয়।  এক পর্যায়ে তারা মারামারি শুরু করে। খবর পেয়ে তোফাজ্জলের ভাই মোফাজ্জল সরকার ও তাইজু সরকার এসে দোকানে হামলা করে এবং পেট্রোল ঢেলে আগুণ লাগিয়ে হত্যার চেষ্টা করে। 

এ সময় দোকান মালিক ও তার তিন ভাই অগ্নিদগ্ধ হয়।  এ ঘটনায় দোকান মালিক মোজাম্মেল হোসেনের ভাই তোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ১০/১২ জনকে অভিযুক্ত করে শুক্রবার (২৩ জুলাই) সকালে শ্রীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।

আহতরা হলেন উপজেলার তেলিহাটি ইউনিয়নের উদয় খালি গ্রামের জজ মিয়া, তার ছেলে মোফাজ্জল হোসেন, সাখাওয়াত হোসেন এবং সজিব। আহতদের শ্রীপুর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। 

অভিযুক্ত তোফাজ্জল সরকার বলেন, আমার ছেলে গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে ৯০০ টাকা দাম দেয়। আমি সন্ধ্যায় তেলিহাটি চৌরাস্তা যাওয়ার পর দোকান মালিক মোজাম্মেল আমার কাছে এক হাজার ৫০ টাকা দাবি করে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তারা আমাকে মারধোর করে। তারা নিজেরা দোকানের মালামাল ভাঙচুর করে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে আমাদের নামে মিথ্যা অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছে।

/রফিক/এসবি/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়