ঢাকা     সোমবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১৪ ১৪৩০

রাজশাহীর তিন আসনে নৌকার মাঝি বদল

রাজশাহী প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৫৩, ২৬ নভেম্বর ২০২৩  
রাজশাহীর তিন আসনে নৌকার মাঝি বদল

রাজশাহীর ছয়টি সংসদীয় আসনের মধ্যে তিনটিতেই নৌকার মাঝি বদল করেছে আওয়ামী লীগ। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য এই তিন আসনের বর্তমান সংসদ সদস্যরা দলীয় মনোনয়ন পাননি। মনোনয়ন না পাওয়া সংসদ সদস্যদরে ঘিরে এলাকায় রয়েছে বিতর্ক। অনেকটা জনবিচ্ছিন্নও তারা।

মনোনয়নবঞ্চিত তিন সংসদ সদস্য হলেন- রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের এনামুল হক ও রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের ডা. মনসুর রহমান।

রাজশাহী-৩ আসনে প্রথমবার দলের মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ। রাজশাহী-৪ আসনেও প্রথমবার নৌকার মাঝি হয়েছেন সাবেক ছাত্রনেতা ও তাহেরপুর পৌরসভার সদ্য সাবেক মেয়র অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ। আর রাজশাহী-৫ আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন আবদুল ওয়াদুদ দারা। তিনি ২০০৮ ও ২০১৪ সালে এ আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, রাজশাহী-৩ আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিনের বিরুদ্ধে এলাকায় শত শত বিঘা জমি দখলের অভিযোগ আছে। দলীয় নেতাকর্মীদেরও হেনস্থা করতে ছাড়তেন না তিনি। তাঁর বাবা একজন স্বাধীনতাবিরোধী ছিলেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। ২০১৪ সাল থেকে তিনি এ আসনের সংসদ সদস্য। এবার মনোনয়ন চাইলেও পাননি।

২০০৮ সাল থেকে পরপর তিনবার রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য থাকা এনামুল হকের বিরুদ্ধে দলে বিভাজন তৈরির অভিযোগ রয়েছে। বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এনামুল হক একের পর এক নারীর সঙ্গে কেলেঙ্কারিতে জড়িয়েছেন। তিনিও মনোনয়ন পাননি।

রাজশাহী-৫ আসনের ডা. মনসুর রহমানের বিরুদ্ধেও অনিয়ম করার অভিযোগ রয়েছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনে প্রথমবার সংসদ সদস্য হয়েই দলে বিভক্তি এনেছেন তিনি বলে অভিযোগ ওঠে। সম্প্রতি এক মাদরাসা শিক্ষককে লোক পাঠিয়ে বাসায় তুলে আনেন তিনি। এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচিত হন মনসুর রহমান।

রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী ও রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট) আসনের শাহরিয়ার আলম দলের মনোনয়ন পেয়েছেন। ২০০৮ সাল থেকেই তারা নিজ নিজ আসনের সংসদ সদস্য। এরমধ্যে শাহরিয়ার আলম ২০১৪ সাল থেকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীরও দায়িত্ব পালন করছেন।

আওয়ামী লীগের টিকিটে রাজশাহী-২ (সদর) আসনে টানা তিনবার সংসদ সদস্য হয়েছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা। তবে এই আসনে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামালকে দলের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। জোটবদ্ধভাবে নির্বাচনের সিদ্ধান্ত হলে আসনটি বাদশাকে ছেড়ে দেওয়া হতে পারে। তবে, আসনটিতে নিজ দলেরই প্রার্থী চান আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

রাজশাহীর পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ইয়াসিন আলী কোনো আসনের প্রার্থী হতে মনোনয়ন চাননি। তবে গোটা জেলায় কারা মনোনয়ন পাচ্ছেন তার খোঁজখবর রেখেছেন। রোববার বিকেলে দলের মনোনয়ন ঘোষণার পর সন্ধ্যায় ইয়াসিন আলী বলেন, ‘দলের নেওয়া সিদ্ধান্তগুলো খুবই ভালো হয়েছে। শুধু রাজশাহী-১ ও রাজশাহী-৫ আসনের প্রার্থী পছন্দ হয়নি।’

প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘যারা মনোনয়ন পেয়েছেন, তাদের দীর্ঘদিন ধরেই দল পর্যবেক্ষণ করেছে। তাদের বিষয়ে নানারকম খোঁজখবর রেখেছে। যাদের রেটিং ভালো, যারা এলাকায় পড়ে থেকেছেন দল তাদের মূল্যায়ন করেছে। যারা ভালো প্রার্থী তাদেরই নিশ্চয় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বেছে নিয়েছেন।’

কেয়া/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়