ঢাকা     রোববার   ২১ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

গাজীপুরের ৫ আসনেই স্বতন্ত্র হচ্ছেন আ.লীগের মনোনয়ন বঞ্চিতরা  

রেজাউল করিম, গাজীপুর || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১২, ২৮ নভেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৬:২৬, ২৮ নভেম্বর ২০২৩
গাজীপুরের ৫ আসনেই স্বতন্ত্র হচ্ছেন আ.লীগের মনোনয়ন বঞ্চিতরা  

২৯৮টি আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এবার গাজীপুরের পাঁচটি সংসদীয় আসনের জন্য ২৬ জন প্রার্থী দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন। তাদের মধ্যে থেকে শুধুমাত্র গাজীপুর-৩ আসনের প্রার্থী পরিবর্তন করা হলেছে। বাকি আসনগুলোতে বর্তমান সংসদ সদস্যদের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে। ফলে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে এবং দলের পক্ষ থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী থাকার সবুজ সংকেত থাকায় সবগুলো আসনেই প্রার্থী হচ্ছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিতরা। 

গাজীপুরের ৫টি আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন- গাজীপুর-১ (কালিয়াকৈর) আসনে আ ক ম মোজাম্মেল হক, গাজীপুর-২ (গাজীপুর সদর ও টঙ্গী) আসনে জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর-৩ (শ্রীপুর) আসনে অধ্যাপক রুমানা আলি টুসি, গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া) আসনে সিমিন হোসেন রিমি, গাজীপুর-৫ (কালীগঞ্জ) আসনে মেহের আফরোজ চুমকি। এদের মধ্যে শুধুমাত্র গাজীপুর-৩ (শ্রীপুর) আসনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হাসান সবুজের জায়গায় নতুন মুখ অধ্যাপক রুমানা আলি টুসি। 

গাজীপুরের ১, ২ ও ৫ নম্বর আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী আওয়ামী লীগ নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। এছাড়াও গাজীপুর ৩ ও ৪ নম্বর আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নির্বাচন করার জন্য নিজেদের গ্রুপের সঙ্গে আলোচনা করে প্রার্থীতার ঘোষণা করবেন বলে জানা গেছে। নেতারা জানিয়েছেন, নির্বাচনকে উৎসবমুখর করতে আওয়ামী লীগের নেতারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে পারবেন বলে সংকেত পাওয়া গেছে। 

গাজীপুর-১ আসনে আ ক ম মোজাম্মেল হকের আসনে রেজাউল করিম রাসেল: এই আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন ৫ প্রার্থী। বর্তমান সংসদ সদস্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হককেই মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। ২০০৮ সাল থেকে এই এলাকার নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি। তার নেতৃত্বে এলাকায় উন্নয়ন দৃশ্যমান। তবে দলটির স্থানীয় রাজনীতিতে অভিযোগ অনুযোগের অভাব নেই।  

গাজীপুর-১ আসনের জন্য আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাসেল, কালিয়াকৈর উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন শিকদার ও ব্যবসায়ী নুরে আলম সিদ্দিকী। 

দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাসেলসহ কয়েকজন স্বতন্ত্র নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছেন। 

রেজাউল করিম রাসেল বলেন, দল থেকে মনোনয়ন একজনকে দিয়েছে। দলের সিদ্ধান্ত আপনারা জানেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কেউ যেনো নির্বাচিত না হয়। আমি যেহেতু তৃণমূল নেতাকর্মী নিয়ে সবসময় কাজ করি। জনগণ নির্বাচনের জন্য বলছে, আমি নির্বাচন করবো বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। 

গাজীপুর-২ আসনে জাহিদ আহসান রাসেলের আসনে যুবলীগের সাইফুল ইসলাম: এই আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন ৫ জন। এই আসনে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। জাহিদ আহসান রাসেল শ্রমিক নেতা আহসান উল্লাহ মাস্টারের ছেলে। বাবার মৃত্যুর পর তিনি গাজীপুর-২ আসনে সংসদ সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। 

গাজীপুর-২ আসনে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও টঙ্গী পৌরসভার সাবেক মেয়র অ্যাডভোকেট আজমত উল্লা খান, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, মহানগর যুবলীগের যুগ্ন-আহবায়ক সাইফুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সদস্য মোস্তাফা হুমায়ুন হিমু, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র প্রার্থী মেজবাহ উদ্দিন রুবেল মনোনয়ন চেয়েছিলেন। 

এদের মধ্যে যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছেন। এছাড়াও এ আসনে মনোনয়ন ফরম নিয়েছেন জাতীয় পার্টির জয়নাল আবেদিন ও জাকের পার্টির রিনা রহমান। 

সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি দল থেকে মনোনয়ন চেয়েছিলাম পাইনি। যেহেতু, সুযোগ রয়েছে এজন্য আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। 

গাজীপুর-৩ আসন ইকবাল হোসেন সবুজের পরিবর্তে নতুন মুখ রুমানা আলী:  সংসদীয় এই আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন ৬ জন। এর মধ্যে বর্তমান সংসদ সদস্য গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজের পরিবর্তে সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট রহমত আলীর মেয়ে সংরক্ষিত আসন-৩১৪ রুমানা আলীকে মনোনয়ন দিয়েছেন। এছাড়াও, শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল, শ্রীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সাখাওয়াত হোসেন খান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জামিল হাসান দুর্জয় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন।

কেন ইকবাল হোসেন সবুজের পরিবর্তনে রুমানা আলী: রুমানা আলী সাবেক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট রহমত আলীর মেয়ে এবং সংরক্ষিত আসন-৩১৪ সংসদ সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সংসদ সদস্য হিসাবে তার কাজের শতস্ফুর্ততা মানুষকে আকৃষ্ট করেছে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাকর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ইকবাল হোসেন সবুজ ক্ষমতায় থাকাকালীন নিজ দলের লোকজনকে কোনো কাজ দেননি। সব কাজ করেছেন তার স্ত্রী, ভাই সাখাওয়াত হোসেন ও সবুজের উকিল জামাই মাসুদ আলম। এছাড়াও সাবেক মন্ত্রী  রহমত আলীর অনুসারীদের কোন ঠাসা করে রাখা ও দলীয় পদ পদবি থেকে বঞ্চিত করার অভিযোগ উঠেছে। ২০১৯ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করার অভিযোগ ওঠে সবুজের বিরুদ্ধে। নেতাকর্মীরা জানান, এসব কারণেই মনোনয়ন পাননি সবুজ।

এদিকে মনোনয়ন পাওয়ার পর সাবেক প্রতিমন্ত্রী রহমত আলীর ছেলে মনোনয়নপ্রত্যাশী ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জামিল হাসান দুর্জয় ও বোন রুমানা আলী একসঙ্গে কাজ করার ঘোষণা দিয়েছেন। এতে উৎফুল্ল উপজেলা নেতাকর্মীরা। 

রুমানা আলী বলেন, দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে এজন্য কৃতজ্ঞ। আপনারা যারা রহমত আলীকে ভালোবেসেছেন তারা তার পরিবারকেও ভালোবাসাবেন,  পরিবারের পাশে থাকবেন। শ্রীপুর উপজেলাকে আরও সমৃদ্ধ ও সুন্দর করে গড়ে তোলার জন্য সবার সহযোগিতা চাই৷ আমরা সবাই মিলে নৌকার জন্য কাজ করে যাব।

গাজীপুর-৪ আসন: এখানে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী বঙ্গতাজ তাজউদ্দিন আহমদ এর মেয়ে বর্তমান সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সিমিন হোসেন রিমি ও কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের উপদেষ্টা আলম আহমেদ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন। এদের মধ্যে থেকে তাজ কন্যা সিমিন হোসেন রিমিকে মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তবে, এই আসনে স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচনের জন্য মনোনয়ন নিয়েছেন আলম আহমেদ। 

গত ১১টি সংসদ নির্বাচনের মধ্যে অধিকাংশ সময়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। তাজউদ্দীন পরিবারের মধ্যে সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন সীমাবদ্ধ থাকলেও প্রতিবারই সংসদ নির্বাচনের সময় এই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে মনোনয়ন লাভের একটি প্রতিযোগিতা লক্ষ্য করা যায়। 

গাজীপুর-৫ আসনে স্বতন্ত্র লড়বেন মুক্তিযোদ্ধা আখতারুউজ্জামান: এই আসনে দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন ৮জন। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মেহের আফরোজ চুমকি। 

গাজীপুর জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুউজ্জামান, অ্যাডভোকেট আশরাফী মেহেদী হাসান, মো. রফিজ উদ্দিন, আব্দুল গণি ভূঁইয়া, প্রয়াত চিত্র নায়ক মো. ফারুকের ছেলে রওশন হোসেন শরৎ, মো. মোর্শেদ মোল্লা ও গাজীপুর যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক শর্মিলী দাস মিলি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েও পাননি। তবে, গাজীপুর-৫ আসনে স্বতন্ত্র নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছে গাজীপুর জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুউজ্জামান। 

গাজীপুর জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুউজ্জামান বলেন, আমি এই আসনের সংসদ সদস্য ছিলাম। তারপরও পরপর তিন বার মনোনয়ন চেয়েও পাইনি। এরপরও, আমি বিদ্রোহী হইনি। এবার যেহেতু প্রধানমন্ত্রী বলেছেন একাধিক প্রার্থীর সুযোগ রয়েছে এজন্য দলের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন ও নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করার জন্য আমি অংশ নিচ্ছি। 

মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়