ঢাকা     শনিবার   ১৩ এপ্রিল ২০২৪ ||  চৈত্র ৩০ ১৪৩০

ধান খেতে ঘুমানোর আর দরকার নেই, ভোটারদের বললেন মাহি

রাজশাহী প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৪৬, ২৩ ডিসেম্বর ২০২৩  
ধান খেতে ঘুমানোর আর দরকার নেই, ভোটারদের বললেন মাহি

ভোটারদের উদ্দেশ্যে রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ও ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি বলেছেন, পুলিশের ভয়ে আর কারও ধানখেতে ঘুমানোর দরকার নেই। কারণ, তিনি মানুষের পাশে আছেন। তিনি সবাইকে নিরাপদে ঘরে ঘুমানোর ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। এ সময় তিনি নিজের ট্রাক প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করেন।

শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) বিকেলে গোদাগাড়ীর মাটিকাটা ইউনিয়নে ভোটের প্রচারণা চালান মাহি। পরে খেতুর গ্রামের এক বাড়ির বারান্দায় বক্তব্য দেন।

মাহি বলেন, ‘১৫ বছর তো একটা পুরুষ মানুষ ছিলেন এমপি হিসেবে। এই এলাকার নাকি অনেক নিরীহ মানুষ, যারা মাঠে চাষবাস করেন তাদের হয়রানি করা হয়। কথা কি সত্য?’ তখন নারীরা চিৎকার দিয়ে বলেন, ‘সত্য’। ভিড়ের ভেতর থেকে এক নারী বলে ওঠেন, ‘রাইতে শুইতে পারছে না বাসাতে।’

এ সময় মাহি বলেন, ‘আজকে এখানে যিনি ওসি সাহেব আছেন, আমি তার সঙ্গে কথা বলবো। অনুরোধ করব যে, যার নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নেই, এমন কোনো লোককে, এমন কোনো কৃষক ভাইকে যেন তারা হয়রানি না করেন। আমি সবার উদ্দেশ্যে বলে যাচ্ছি, আপনাদের ভাই কিংবা কারও স্বামী এ রকম ভয় পাচ্ছেন যে এই বুঝি তাকে ধরে নিয়ে যাবে। আপনাদের ভাই, স্বামী, বাবাকে বলে দেন- আজকে থেকে তারা যেন নিশ্চিন্তে ঘুমায়। কারণ, মাহিয়া মাহি তাদের পাশে আছে।’

মাহি বলেন, ‘আমি আজকে ওসি সাহেবকে বলে যাচ্ছি। আজকে সবাই সবার বাবা, ভাই, স্বামীকে বলে দেন- তারা যাতে বাসায় চলে আসেন। ধান খেতে ঘুমানোর আর দরকার নাই।’ এ সময় এক নারী ‘আলহামদুলিল্লাহ’ বলে ওঠেন। অন্য নারীরা হাততালি দিতে থাকেন।

মাহি বলেন, ‘যে মানুষটা আপনাদের ভাইকে, বাবাকে বাসায় ঘুমানোর সুযোগ করে দিচ্ছে, তাকে আপনারা জিতাবেন কি না?’ তখন সবাই বলে ওঠেন ‘ইনশাল্লাহ’। মাহিও বলে ওঠেন, ‘ইনশাল্লাহ। ৭ তারিখে দেখা হবে বিজয়ে।’

তিনি বলেন, ‘যে লোক শিক্ষককে অপমান করে, কৃষক ভাইদের যারা হয়রানি করে, তাদের পক্ষে এবার জনগণ থাকবে না। মাটিকাটাবাসী থাকবে না। এই ১৫ বছরে যে কি না আমাদের নির্যাতন করেছে, তার পক্ষে আমরা এবার থাকবো না। বিপুল ভোটে এবার তাকে পরাজিত করবো।’

মাহি বলেন, ‘আগামী ৭ তারিখে আপনারা সবাই আমাকে ট্রাক মার্কায় একটা ভোট দেবেন। চৌধুরী সাহেবকে (স্থানীয় এমপি ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ওমর ফারুক চৌধুরী) বুঝিয়ে দিতে হবে, তানোর-গোদাগাড়ীর যে কৃষক পানির জন্য কষ্ট পাচ্ছে, সে কৃষক আর তাকে চায় না। কারণ, ১৫ বছর সে এই কৃষককে পানির কষ্ট দিয়েছে। পানির সমস্যার সমাধান করেনি। ৭ তারিখে বিপুল ভোটের মাধ্যমে আমাকে বিজয়ী করবেন। আমরা সবাই হাসবো, আর ফারুক চৌধুরী কাঁদবে।’

মাহি এ দিন মাটিকাটা ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে গিয়ে নিজের ট্রাক প্রতীকে ভোট চান। অন্যান্য এলাকার মতো এই ইউনিয়নের নারীরাও মাহিকে দেখেই ছুটে আসেন। ঢালিউডের তারকাকে বাড়ির সামনে দেখে খুশি হন তারা। অনেকে এই নায়িকার সঙ্গে ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

কেয়া/মাসুদ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়