ঢাকা     শনিবার   ১৩ জুলাই ২০২৪ ||  আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

সিলেট-৫ ও ৬

তীরে এসে তরী ডুবতে যাচ্ছে নাহিদের, মাসুক শিবিরেও হতাশা

নূর আহমদ, সিলেট || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১৭, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৬:১৯, ৩০ ডিসেম্বর ২০২৩
তীরে এসে তরী ডুবতে যাচ্ছে নাহিদের, মাসুক শিবিরেও হতাশা

নূরুল ইসলাম নাহিদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন

নূরুল ইসলাম নাহিদ সাবেক শিক্ষামন্ত্রী। এক সময় এলাকায় ছিলেন বেশ জনপ্রিয়। এরপর তাকে সঙ্গ দেওয়া স্থানীয় সাঙ্গপাঙ্গের জন্য বেশ সমালোচিত, বিতর্কিত হন। বিভক্ত হয়ে যায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ। মন্ত্রিত্ব যায়। তবুও বরাবরের মত সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ—বিয়ানীবাজার) আসন থেকে এবার আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান বর্ষীয়ান এ নেতা। কিন্তু শেষ মুহূর্তে এসে তীরে এসে যেন তরী ডুবতে যাচ্ছে নাহিদের। নির্বাচনের ঠিক এক সপ্তাহ আগে হঠাৎ ইউটার্ন নিয়েছেন নৌকার কর্মীরা। দলের প্রার্থীর বাইরে নিজ দলের নেতা রেখে ভিন্ন মত আর অন্য দলের প্রার্থীদের জন্য প্রকাশ্যে মাঠে নামছেন। সিলেট-৫ (কানাইঘাট—জকিগঞ্জ) আসনেও নৌকার প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিনকে রেখে ফুলতলীর পীরের ছেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হুছাম উদ্দীনের সঙ্গ নিয়েছেন অনেকেই। এ নিয়ে নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে দলের নেতাকর্মীদের মাঝে।

সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ—বিয়ানীবাজার) আসনে শুরু থেকেই আলোচনায় ছিলেন ‘সোনালী আশ’ প্রতীকের প্রার্থী তৃণমূল বিএনপির প্রার্থী শমসের মবিন চৌধুরী বীর বিক্রম। সেখানে নৌকার প্রার্থী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আর জাতীয় পার্টির লাঙলের প্রার্থী সেলিম উদ্দিন। স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা সরোয়ার হোসেন লড়ছেন ঈগল নিয়ে। নির্বাচনের প্রচারণা শুরুর পর থেকে দেখা যাচ্ছে, খুব একটা সুবিধা করতে পারছেন না নৌকার প্রার্থী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আওয়ামী লীগের বেশিরভাগ নেতাকর্মী কাজ করছিলেন সরোয়ার হোসেনের পক্ষে। কিছু ছিলেন সেলিম উদ্দিনের পক্ষে। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার রাত থেকে হঠাৎ ভিন্ন চিত্র দেখা যাচ্ছে এই আসনের আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে। বিশেষ করে গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের বেশিরভাগ অবস্থান নিয়েছেন শমসের মবিনের পক্ষে। বৃহস্পতি ও শুক্রবার রাতে উপজেলা সদরের রয়েল কমিউনিটি সেন্টারে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে সভা করেছেন। সেখানে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মঞ্জুর শাফি চৌধূরী এলিম, উপজেলা আ.লীগ সহ সভাপতি রোকন উদ্দিনসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

গোলাপগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খায়রুল হক বলেন, আমরা সিনিয়রদের নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করছি। শমসের মবিন আমাদের এলাকার কৃতি সন্তান। তার সম্মান রক্ষা করতে কাজ করছি। তিনি শেখ হাসিনার নেতৃত্বও মানেন।

মঞ্জুর শাফি চৌধূরী এলিমও বলেন, এবারের নির্বাচন ভিন্ন। অন্য কোনও প্রার্থীর পক্ষে কাজ করলে অন্যায়ের কিছু নয়।

এদিকে, সিলেট-৫ (জকিগঞ্জ—কানাইঘাট) সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন প্রবীণ নেতা, নগর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ। তার বিপক্ষে লড়ছেন দলের আরেক নেতা ড. আহমদ আল কবীর। তবে, এ মুহূর্তে ফ্যাক্টর হয়ে উঠছেন আল্লামা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলীর পীরের পুত্র হুছাম উদ্দিন চৌধুরী। মঙ্গলবার উপজেলা সদরে তার কেতলি মার্কার সমর্থনে বিরাট মিছিল করেছে জকিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ। ধীরে ধীরে তার পক্ষেও আওয়ামী লীগ নামছে বলে শোনা যাচ্ছে। ছাত্রলীগের মিছিলে নেতৃত্ব দেন উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সুলতান আহমদ।

মিছিলে অংশগ্রহণকারী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি ও কাজলসার ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম বলেন, তারা হুছামুদ্দিন চৌধূরীর পক্ষে কাজ করছেন। মিছিল করেছেন। কারণ, হুছামুদ্দিন ২০০৮ সাল থেকে আওয়ামী লীগের সঙ্গেই ছিলেন। তাই দায় শোধ করতে তারা চান হুছামুদ্দিন নির্বাচিত হোন।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিলেট-৫ (জকিগঞ্জ—কানাইঘাট) আসনের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, আওয়ামী লীগ তার সঙ্গে আছে। সাধারণ নেতাকর্মীদের তিনি বিভ্রান্ত না হতে আহ্বান জানান।

অন্যদিকে, সিলেট—৬ (গোলাপগঞ্জ—বিয়ানীবাজার) আসন থেকে নৌকার প্রার্থী নূরুল ইসলাম নাহিদকে ফোন দিলে তিনি রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা কারও পক্ষ নিলে বাধা নেই। কারণ, আওয়ামী লীগ চায় নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হোক। এ ব্যাপারে কঠিন কোনও নির্দেশনাও নেই।

ঢাকা/এনএইচ

ঘটনাপ্রবাহ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়