ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ৩০ জুন ২০২২ ||  আষাঢ় ১৬ ১৪২৯ ||  ২৯ জিলক্বদ ১৪৪৩

‘সিন্ডিকেট জটিলতায় শুরু হয়নি মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়ার প্রক্রিয়া’ 

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:১২, ২১ মে ২০২২   আপডেট: ১৫:১২, ২১ মে ২০২২
‘সিন্ডিকেট জটিলতায় শুরু হয়নি মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়ার প্রক্রিয়া’ 

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সভাপতি ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, সিন্ডিকেট জটিলতার কারণে প্রায় পাঁচ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়ার প্রক্রিয়া নির্ধারণ হয়নি। 

তিনি বলেন, ‘স্বচ্ছতার ভিত্তিতে কোনো এজেন্সি ঠিক করে না দিলে কাউকে পাঠাবে না বাংলাদেশ।’ 

শনিবার (২১ মে) বনানীর হোটেল শেরাটনে অনুষ্ঠিত মালয়েশিয়ার প্রতিযোগিতা আইন অনুযায়ী বৈধ রিক্রুটিং এজেন্সির জন্য শ্রমবাজার উন্মুক্ত করণ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এ কথা বলেন তিনি। এদিকে, একই অনুষ্ঠানে দেশটিতে শ্রমিক পাঠাতে সব ধরনের সিন্ডিকেট প্রথা বাতিলের দাবি জানিয়েছেন জনশক্তি ব্যবসায়ীদের সংগঠন বায়রা সিন্ডিকেট বিরোধী মহাজোট। 

৩ বছর বন্ধ থাকার পর গত বছরের ১৭ ডিসেম্বর খোলা হয় মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার। তবে ঘোষণার প্রায় পাঁচ মাস পেরিয়ে গেলেও এখন কর্মী যাওয়ার প্রক্রিয়া নির্ধারণ হয়নি।

আর হাতেগোনা কয়েকটি এজেন্সিকে নিয়ে গড়ে ওঠা সিন্ডিকেটই কর্মী পাঠানোর কাজ পেতে যাচ্ছে—এমন অভিযোগ বায়রা সিন্ডিকেট বিরোধী মহাজোটের। আর এ জন্যই বাড়ছে জটিলতা। 

আইন অনুযায়ী বৈধ এজেন্সির মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর অনুরোধ জানান আলোচকরা। 

তারা বলেন, সীমিত সংখ্যক রিক্রুটিং এজেন্সি কাজ করলে খরচ বাড়বে। ক্ষতিগ্রস্ত হবেন কর্মীরা। তবে অন্যায়ভাবে কাউকে পাঠাবে না বাংলাদেশ। তাই স্বচ্ছতার ভিত্তিতে কোনো এজেন্সি ঠিক না করে দিলে সেটা বাংলাদেশের গ্রহণ করা ঠিক হবে না বলেও জানিয়েছেন প্রবাসী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ।

তিনি জানান, ২০১৬ সালে ১০টি বাংলাদেশি রিক্রুটিং লাইসেন্স নিয়ে গঠিত সিন্ডিকেটের মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় জনশক্তি পাঠানো শুরু হয়। এরপর ২০১৮ সালে অতিরিক্ত অভিবাসন ব্যয়সহ নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেওয়া বন্ধ করে দেয় দেশটি।

ঢাকা/হাসান/ইভা 

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়