ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১৪ ১৪২৭ ||  ১১ সফর ১৪৪২

কোটি টাকার মাছ লুট, সর্বস্বান্ত মৎস্যজীবীরা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:০১, ৭ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
কোটি টাকার মাছ লুট, সর্বস্বান্ত মৎস্যজীবীরা

ভ্যাপসা গরম এবং ভারী বৃষ্টির ফলে পানিতে অক্সিজেন ঘাটতির কারণে জেলার অধিকাংশ বিল, বাওড় ও পুকুরের কয়েকশ টন মাছ মরে ভেসে উঠছে। স্থানীয়রা সেসব লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে, তাতে জেলে ও মৎস‌্যজীবীরা সর্বস্বান্ত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন।

কয়েকদিন ধরে জেলার কালীগঙ্গা, বাদলবাসা বাওড়, নান্দিনা-চাপাইগাছি, রাধানগর, কালিদাসপুর ও ডাকুয়ার মতো জলাশয়ের এই ঘটনায় সর্বস্বান্ত হয়েছেন বলে দাবি করছেন জেলে ও মৎস্যজীবিদের।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মাহবুবুর রহমান তালুকদার জানান, ভেসে উঠা কোটি টাকার মাছ লুটপাট ঠেকাতে মৎস্য অফিস আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ও মৎস্যজীবীরা চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

কুমারখালী উপজেলার বাদলবাসা বাওড়ের মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক আকমল হোসেন বলেন, ‘কয়েকদিন ধরে গুমোট ও ভ্যাপসা গরম চলতে চলতে হঠাৎ ভারী বৃষ্টির কারণে পানির নিচ থেকে উপরিভাগে মাছ ভেসে উঠে। বৃহস্পতিবার গভীর রাত থেকে আজ শুক্রবার সারাদিন স্থানীয় মানুষজনের হৈ চৈ শুনে বাওড় পাড়ে গিয়ে দেখি, দুই পাড় থেকে শত শত মানুষ টেটা, ফলা, জাল-পলো দিয়ে মাছ ধরছে। এসময় বিস্তীর্ণ বাওড়ের পানিতে বড় বড় কার্প জাতীয় অন্তত দেড়শ মে: টন মাছ তারা ধরে নিয়ে যান। ২/৩ বছর ধরে বড় হওয়া  এসব মাছের বাজার মূল্য ৩০ লাখ টাকা বলে দাবি করেন মৎস্যজীবী আকমল হোসেন।

সদর উপজেলার হাতিয়া বিলের মৎস্যজীবি আনিচুর রহমান বলেন, ‘চাষ করা মাছের একদম ভরা মৌসুমে প্রাকৃতিক কারণে মাছ মরে যে ক্ষতি হলো এইটা কাটিয়ে উঠা খুব কষ্ট হয়ে যাবে। অক্সিজেনের অভাবে আমার বিলের সবচেয়ে বড় সাইজের মাছগুলিই মরে গেছে। আমার এখন পথে বসার দশা হয়ে গেছে।’

কুমারখালী উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা গৌতম কুমার রায় বলেন, ‘গভীর রাতে বাদলবাসা বাওড়ের জেলেরা মোবাইলে কল করে মাছ ভেসে যাওয়ার কথা জানায়। রাতেই আমরা এসে মাছ লুটপাটের দৃশ্য দেখে দ্রুত কুমারখালী থানায় পুলিশ পাঠানোর অনুরোধ করি। সংবাদ পেয়ে বাশগ্রাম পুলিশ ক্যাম্পের দুইজন পুলিশ এসেছিলেন কিন্তু তারা শতশত নারী-পুরুষকে ঠেকাতে ব্যর্থ হন।

কুষ্টিয়া জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মাহবুবুর রহমান তালুকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মৎসজীবীদের পূনর্বাসনে মৎস্য বিভাগের পক্ষ থেকে সব রকম সহায়তা করা হবে।

কাঞ্চন কুমার/সাজেদ 

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়