ঢাকা     বুধবার   ১৭ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৪ ১৪৩১

রঙিন ফুলকপিতে বেশি লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষক

ফরিদপুর প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:৫৫, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  
রঙিন ফুলকপিতে বেশি লাভের স্বপ্ন দেখছেন কৃষক

ফরিদপুরে পরীক্ষামূলকভাবে প্রথমবারের মতো রঙিন ফুলকপি চাষ করে সফলতা পেয়েছে স্থানীয় কৃষি বিভাগ। ভালো ফলনের পাশাপাশি ফুলকপির ভালো দামও পাওয়া যাচ্ছে। ফলে রঙিন ফুলকপি চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন স্থানীয় সবজি চাষিরা।

ফরিদপুর সদর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এ বছরেই প্রথম ফরিদপুর সদর উপজেলায় রঙিন ফুলকপির পরীক্ষামূলক চাষ হয়েছে। ‘কৃষি উন্নয়নের মাধ্যমে পুষ্টি ও খাদ্য নিরাপত্তা জোরদারকরণ প্রকল্প’র আওতায় কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের হাটগোবিন্দপুর গ্রামের কৃষক শেখ মোহাম্মদ আলীর মাঠে এই প্রদর্শনী বাস্তবায়ন করা হয়। প্রদর্শনীতে দুই রঙের রঙিন ফুলকপি চাষ করা হয়। গোলাপি রঙের ফুলকপির নাম ভ্যালেন্টিনা ও হলুদ রঙের ফুলকপির নাম ক্যারোটিনা। সাদা ফুলকপির চেয়ে এই দুই জাতের রঙিন ফুলকপিতে পুষ্টিগুণ বেশি, দেখতেও সুন্দর। গতানুগতিক সাদা রঙের ফুলকপির চেয়ে রঙিন ফুলকপির বাজারমূল্যও বেশি।

স্থানীয় কৃষক শেখ মোহাম্মদ আলী মূলত একজন সবজি চাষী। তিনি গতবছরও ফুলকপি ও বাধাকপি চাষ করেছিলেন কিন্তু তেমন একটা লাভের মুখ দেখেন নাই। তাই এ বছর রঙিন ফুলকপি চাষের আগ্রহ প্রকাশ করেন। কিন্তু বীজের জোগাড় কোথা থেকে করা যায় এ বিষয়ে পরামর্শ পেতে তিনি উপজেলা কৃষি অফিসে যোগাযোগ করেন। উপজেলা কৃষি অফিসার আনোয়ার হোসেন তার সাথে কথা বলে তার আগ্রহের কথা জানতে পেরে তাকে একটি প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করে দেন।

মোহাম্মদ আলী বলেন, সিজনের শুরুতে এই ফুলকপি পিস প্রতি ৭০ টাকা করে জমিতেই বিক্রি হয়, এখন প্রতি পিচ ৩০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে; যা সাদা ফুলকপির চেয়ে প্রায় ১৫ থেকে ২০ টাকা বেশি। এই কপি চাষাবাদে তেমন কোনো বাড়তি খরচ হয় না, পোকামাকড়ের আক্রমণও কম।

মাঠ পরিদর্শনে গিয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ফরিদপুর’র উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রদর্শনীতে যে দুই রঙের ফুলকপি চাষ করা হয়েছে তা বেশ পুষ্টিগুণ সম্পন্ন। হলুদ রঙের ফুলকপির নাম ক্যারোটিনা যাতে অতিরিক্ত পরিমাণে বেটা ক্যারোটিন থাকার কারণে এই রং হয়ে থাকে। ঠিক একই কারণে গাজরের রং কমলা হয়। এই রঙের সবজিতে অন্য রঙের সবজির তুলনায় প্রায় ২৫ গুণ বেশি ভিটামিন ‘এ’ উপাদান থাকে ফলে এগুলো বেশ পুষ্টিকর।

বেগুনি রঙের ফুলকপির নাম ভ্যালেন্টিনা। এই ফুলকপিগুলো রান্না করার পর কিছুটা বিবর্ণ হয়ে যায়। তবে বেগুনি ফুলকপি সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট অ্যান্থোসায়ানিনের উপস্থিত থাকার কারণে এই ফুলকপির রং বেগুনি। কমলা ফুলকপির মতো বেগুনি ফুলকপিতেও সাদা ফুলকপির তুলনায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বেশি থাকে। বেগুনি ফুলকপি প্রদাহ উপশম, কার্ডিওভাসকুলার এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি কমানোর জন্য উপকারী।

এই দুই জাতের চাষের ফুলকপি চাষের পদ্ধতি সম্পর্কে উপজেলা কৃষি অফিসার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ভ্যালেন্টিনা ও ক্যারোটিনা জাতের ফুলকপি সাধারণ ফুলকপির মতোই পরিচর্যা করতে হয়। অল্প জমিতে এই ফুলকপি চাষ করে বেশি লাভ পাওয়া যায়।

তামিম/ফয়সাল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়