ঢাকা     শুক্রবার   ৩১ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৭ ১৪৩১

নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষকদের কক্সবাজার ভ্রমণের প্রলোভন!

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:২৬, ১৯ এপ্রিল ২০২৪   আপডেট: ১১:৩৯, ১৯ এপ্রিল ২০২৪
নির্বাচনে দায়িত্ব পালনকারী শিক্ষকদের কক্সবাজার ভ্রমণের প্রলোভন!

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের অনুষ্ঠানে ডেকে আবারও নির্বাচিত হলে সপরিবারে কক্সবাজার ভ্রমণের আশ্বাস দিয়েছেন এক চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। 

এসব শিক্ষকরা নির্বাচনে সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করে থাকেন। এই চেয়ারম্যান প্রার্থী এমন এক হাজার শিক্ষক শিক্ষিকাকে সপরিবারে কক্সবাজার ভ্রমণের আশ্বাস দেন। 

আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আগ মুহূর্তে তার এমন ঘোষণায় নানা সমালোচনার ঝড় উঠেছে কালিয়াকৈরে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অন্যান্য প্রার্থীরাও।

এলাকাবাসী, প্রার্থী সমর্থক ও উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ২ এপ্রিল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। এর ধারাবাহিকতায় আগামী ২১ মে কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচনী মাঠে একাধিক চেয়ারম্যান,  ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী কামাল উদ্দিন সিকদার গত মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা ও ঈদ পুনর্মিলনীর নামে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের আমন্ত্রণ জানান। আমন্ত্রিতদের জন্য সাড়া উপজেলার কালামপুর এলাকায় সোহাগ পল্লী পিকনিক স্পটে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের নামে সহস্রাধিক শিক্ষক-শিক্ষিকাকে ডেকে তার নির্বাচনী প্রচারণা করেন ওই প্রার্থী। 

এ সময় কামাল উদ্দিন সিকদার বলেন, আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আমি আবারও চেয়ারম্যান প্রার্থী। এ নির্বাচনে আরো ২-৩ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী আছেন। আপনারা বিচার বিশ্লেষণ করে আমাকে সহযোগিতা করবেন। যদি আমি আবারও নির্বাচিত হতে পারি তাহলে তিন মাসের মধ্যে অবশ্যই প্রত্যেক শিক্ষক শিক্ষিকাকে  সপরিবারে দুইদিনের জন্য কক্সবাজারে সফরে নিয়ে যাওয়া হবে। 

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের আগ মুহূর্তে তার এমন ঘোষণার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন মহল সমালোচনার ঝড় উঠেছে। 

উল্লেখ্য, ওই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী শিক্ষক-শিক্ষিকারা আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। 

এর আগে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মাঝুখান উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাসিক বেতন ও এসএসসি পরিক্ষার্থীদের ফরম পূরণের অর্থ দেওয়ার ঘোষণা দেন ওই প্রার্থী। এসব নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অন্যান্য প্রার্থীরাও।

এবিষয়ে কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান এবং আসন্ন নির্বাচনের চেয়ারম্যান প্রার্থী সেলিম আজাদ বলেন, সরকারি বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষক-শিক্ষিকারা নির্বাচনের সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসার হিসাবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাদের অনুষ্ঠানে দাওয়াত করে নিয়ে নির্বাচনে জেতাতে পারলে সপরিবারে কক্সবাজার ভ্রমণ করাবেন এমন আশ্বাস নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন বলে মনে করি। 

কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আচরণবিধিতে উল্লেখ আছে, সরকারি কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী কোনো প্রার্থীর পক্ষে প্রচার-প্রচারণায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। অথচ ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিক্ষকরা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সহকারী প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করে থাকেন । 

নির্বাচনের আগ মুহূর্তে কোনো প্রার্থী শিক্ষকদের ডেকে এনে এ ধরণের প্রলোভন দেওয়া নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘণ কিনা জানতে চাইলে কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাচন অফিসার হাফিজুর রহমান কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি। 


রেজাউল/টিপু

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়