ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৮ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪৩১

তীব্র গরমে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে ছন্দপতন

ফেনী সংবাদদাতা  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৩৯, ২৪ এপ্রিল ২০২৪   আপডেট: ২২:৩৯, ২৪ এপ্রিল ২০২৪
তীব্র গরমে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে ছন্দপতন

তীব্র গরমে শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ছন্দপতন ঘটেছে। জীবিকার তাগিদে প্রতিকূল পরিবেশ উপেক্ষা করেও তারা ঘর থেকে বাইরে বের হচ্ছেন। অতিরিক্ত গরমে দীর্ঘসময় কাজ করতে না পারায় এবং রাস্তায় মানুষের আনাগোনা কম থাকায় তাদের আয়ে ভাটা পড়েছে। 

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) ফেনী শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে দেখা যায়, সূর্যের প্রচণ্ড তাপে কাহিল হয়ে পড়েছেন রিকশাচালক, পথচারী, হকার ও ফুটপাতের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। রোদ থেকে বাঁচতে মাথায় গামছা, মাথাল কিংবা ছাতা ব্যবহার করছেন তারা। আবারও গরমে হাঁপিয়ে ওঠা অনেকে ক্লান্তি দূর করতে সড়কের পাশে ভ্রাম্যমাণ দোকান থেকে শরবতে তৃষ্ণা মেটাচ্ছেন।

শহরের শহীদ শহিদুল্লাহ কায়সার সড়কে ডলু মিয়া নামে এক রিকশাচালক বলেন, গরমে ঠিকমতো রিকশা চালানো যায় না। আবার রাস্তায় যাত্রীও অন্যান্য সময়ের তুলনায় কম। গত কয়েক দিন মালিকের জমা টাকা দিতেই কষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

হারুন নামে আরেক রিকশাচালক বলেন, ‘সকালে কিছু সময় রিকশা চালিয়ে বিকেলের আগে আর বের হতে পারি না। এত গরমে ঘরেও শান্তি নেই। সারা দিনে অল্প কিছুক্ষণের জন্য ঘরে ফিরলেও লোডশেডিং। আয়-রোজগার কমে যাওয়ায় পরিবার নিয়ে খুব কষ্টে দিন পার করছি।’ 

ফেনী শহরের ট্রাংক রোড জিরো পয়েন্টে কথা হয় ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ী বয়োবৃদ্ধ রফিকুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আগে এরকম গরম দেখিনি। পেটের দায়ে বাধ্য হয়ে ঘর থেকে বের হয়েছি। কতক্ষণ হাঁটার পরপরই বিশ্রাম নিতে হচ্ছে। গরমে দৈনিক ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা আয় কমে গেছে।’ 

শহরের রাজনন্দিনী দীঘির পাড়ে জুতা সেলাইয়ের কাজ করছিলেন আবুল খায়ের। তিনি বলেন, ‘গরমে আয় একবারে কমে গেছে। আগে দৈনিক ৪০০-৭০০ টাকা আয় হতো। গত কয়েক দিন তার অর্ধেকও আয় হয় না। খুবই অসহায় হয়ে পড়েছি। তারপরও সংসার তো আর গরম বুঝবে না। তাই নিরুপায় হয়ে এতো গরমে বসে আছি।’ 

শহরের কলেজ রোডের চা বিক্রেতা রাজন বলেন, বিকেল পর্যন্ত দোকানে একদম ক্রেতা নেই বললেই চলে। মানুষজন গরমে চা খেতে পছন্দ করে না। গত কয়েক দিনে দৈনিক আয় অর্ধেকে নেমে এসেছে।

চলমান দাবদাহ আরও কিছু দিন অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। ফেনী আবহাওয়া অধিদপ্তরের উচ্চ পর্যবেক্ষক মুজিবুর রহমান বলেন, চট্টগ্রাম বিভাগে নিম্ন থেকে মাঝারি তাপপ্রবাহ চলছে। চলমান তাপপ্রবাহ আরও কিছু দিন পর্যন্ত স্থায়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বুধবার ফেনীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৩৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
 

সাহাব/বকুল 

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়