ঢাকা     বুধবার   ১৯ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৫ ১৪৩১

নিলাম না করেই উপজেলা পরিষদের গাছ কেটে বিক্রি!

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:১৮, ২৬ মে ২০২৪   আপডেট: ১১:২২, ২৬ মে ২০২৪
নিলাম না করেই উপজেলা পরিষদের গাছ কেটে বিক্রি!

মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলা পরিষদ চত্বরের পুকুর পাড় থেকে ১৮টি মেহগনি ও জামগাছ কেটে ষোলটি বিক্রি করা হয়েছে। এ সকল গাছ বিক্রি করতে নিলাম কমিটির সভা আহবান করা হলেও সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার আগেই গাছ বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। 

জানা গেছে, গত সোমবার (২০ মে)  ইউএনওর সিএ মো. আতোয়ারের নেতৃত্বে এই ১৮টি গাছ কাটা হয়। এরমধ্যে ১৬টি গাছ ঘিওর পূর্ব পাড়ার বেলাল (৪৮) নামে এক ব্যবসায়ী কিনে নেন। দুটি গাছ অফিসের আসবাবপত্র তৈরি করার উদ্দেশ্যে রেখে দেওয়া হয়। সরকারি গাছ বিক্রি করতে হলে উপজেলা নিলাম কমিটির মাধ্যমে যথাযথ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হয়। কিন্তু এখানে নিলাম কমিটির সভা আহ্বানের আগেই গাছ কেটে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। 

এ বিষয়ে গাছের ক্রেতা বেলাল হোসেন বলেন, উপজেলা চত্বরের পুকুর পাড় থেকে ১৬ টি গাছ আমি কিনেই কেটেছি। গাছের মূল্য বাবদ ইউএনও অফিসের আতোয়ারকে ৯০ হাজার টাকা দিয়েছি।

উপজেলা নিলাম কমিটির সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার মো. আশরাফুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, গাছ বিক্রির জন্য নিলাম কমিটির সভা আহ্বান করা হয়েছে। কিন্তু নিলাম সংক্রান্ত কার্যাবলী শেষ হওয়ার পূর্বেই গাছগুলো কে বা কারা কর্তন করেছে সেটা আমার জানা নেই।

উপজেলা বন কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) শরিফুল ইসলাম বলেন, গাছ বিক্রির বিষয়টি আমি জানি না।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাজেদুল ইসলাম বলেন, গাছ বিক্রির বিষয়ে কোন মিটিং হয়েছে কিনা বলতে পারবো না। এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

উপজেলা চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান বলেন, সরকারি গাছ বিক্রি করতে হলে মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন প্রয়োজন। সেটা ছাড়া গাছ বিক্রির কোনো সুযোগ নেই। এটা নিয়ে তদন্ত হওয়া উচিত। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস সহকারী (সি,এ) আতোয়ার রহমানের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, অফিসে এসে স্যারের সাথে বিস্তারিত কথা বলেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম বলেন, যথাযথ প্রক্রিয়া মেনেই গাছ কাটা হয়েছে তবে সংখ্যা অতো হবে না।

চন্দন/টিপু

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়