Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২২ ১৪২৮ ||  ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

ইলিশ রক্ষায় আভিযানিক দলে হামলার ঘটনায় মামলা, নিখোঁজ ব্যক্তি ও পুলিশের অস্ত্র উদ্ধার

শরীয়তপুর সংবাদদাতা || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২৩:৪৮, ১০ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ২৩:৫০, ১০ অক্টোবর ২০২১
ইলিশ রক্ষায় আভিযানিক দলে হামলার ঘটনায় মামলা, নিখোঁজ ব্যক্তি ও পুলিশের অস্ত্র উদ্ধার

ফাইল ছবি

শরীয়তপুরে মা ইলিশ রক্ষা আভিযানিক দলের ওপর হামলার ঘটনায় শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানায় রোববার (১০ অক্টোবর) সকালে ২০ ব্যক্তিকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১৩ ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। আর ওই হামলার ঘটনায় নিখোঁজ মৎস বিভাগের মৎস সম্প্রসারণ কর্মী আব্দুল বারেক মিয়াকে উদ্ধার করে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর পুলিশের হারিয়ে যাওয়া আগ্নেয়াস্ত্র চায়না রাইফেল ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

উপজেলা মৎস বিভাগের কর্মকর্তারা নজরুল ইসলাম জানান, নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে পদ্মা নদী থেকে মা ইলিশ শিকার করছেন জেলেরা। শনিবার সন্ধ্যায় শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার কাচিকাটা ইউনিয়নে পদ্মা নদীতে অভিযানে নামে উপজেলা মৎস বিভাগের কর্মী ও পুলিশ সদস্যরা। তারা একটি স্পিডবোট নিয়ে অভিযানে গেলে মরিছাকান্দি এলাকায় জেলেরা তাদের ওপর হামলা করে। এ সময় তাদের বহনকারি স্পিডবোট উল্টে নদীতে তলিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করেন।

ওই হামলায় মৎস বিভাগের মৎস সম্প্রসারণ কর্মী জাহাঙ্গীর হোসেন, ওমর আলী, মাঠ পর্যায়ের সহকারি কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ দাস ও সখিপুর থানার উপ-পরিদর্শক মোস্তাফিজুর রহমান, পুলিশ সদস্য মেহেদী হাসান আহত হন। আর মৎস বিভাগের মৎস সম্প্রসারণ কর্মী আব্দুল বারেক নিখোঁজ হন। এ সময় পুলিশের দুটি আগ্নেয়াস্ত্র (চায়না রাইফেল) খোয়া যায়।

ঘটনার পর রাতেই একটি উদ্ধার করা হয়। ঢাকা থেকে ডুবুরি এনে নদীতে উদ্ধার অভিযান চালানো হয়। রোববার দুপুরে ওই অস্ত্রটি ও ৫ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। আর রোববার রাতে নিখোঁজ আব্দুল বারেককে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়া হয়।

সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান হাওলাদার বলেন, ‘শনিবার সন্ধ্যায় জেলেরা পুলিশ ও মৎস কর্মকর্তাদের ওপর হামলা চালায়। ওই ঘটনায় পাঁচজন আহত হয়েছে। ঢাকা ও চাঁদপুরে তাদের চিকিৎসা চলছে। আর মৎস বিভাগের একজন কর্মী নিখোঁজ ছিলেন। আহত অবস্থায় রাতেই তাকে উদ্ধার করে ঢাকায় নেয়া হয়েছে। আর আমাদের যে অস্ত্র ও গুলি হারিয়েছিল তা উদ্ধার করা হয়েছে। উপজেলা মৎস কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।’

শরীফুল/আমিনুল

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়