ঢাকা     সোমবার   ০৩ অক্টোবর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৮ ১৪২৯ ||  ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলের’ কাছে জিম্মি লাইটার জাহাজ মালিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪৪, ১০ আগস্ট ২০২২   আপডেট: ১২:০৬, ১০ আগস্ট ২০২২
‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলের’ কাছে জিম্মি লাইটার জাহাজ মালিকরা

চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজের সিরিয়াল দেওয়ার নামে চলছে অবৈধ বাণিজ্য। ফলে সময়মত পণ্য পরিবহন ব্যহত হচ্ছে। এমনকি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জ্বালানি পরিবহনও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এতে ‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল’ নামের সংগঠনটির কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন আমদানিকারক ও অন্যান্য জাহাজ মালিকরা।

‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল’ সংগঠনটির কাছ থেকে পণ্য খালাসের জন্য সিরিয়াল না নিলেই লাখ লাখ টাকা জরিমানা করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন জাহাজ মালিক, আমদানিকারক ও সিএন্ডএফ ব্যাবসায়ীরা। তবে নিজেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছে সংগঠনটি। তাদের দাবি, যারা সংগঠনের নিয়ম ভঙ্গ করেছে শুধুমাত্র তাদেরকেই জরিমানা করা হচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জাহাজ মালিক ও আমদানিকারকরা জানান, চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে থাকা মাদার ভেসেল থেকে আমদানি পণ্য খালাস করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় পরিবহন করা হয় লাইটার জাহাজে। কতিপয় লাইটার জাহাজ মালিকদের সিন্ডিকেট ‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল’ গঠন করে লাইটার জাহাজে আমদানি পণ্য পরিবহন নিয়ন্ত্রণ করছে। তাদের সিরিয়াল ছাড়া এবং নির্ধারিত ভাড়ার বাইরে অন্য কোনো জাহাজ পণ্য পরিবহন করতে পারে না। সিরিয়াল ও কমিশনের নামে এই সংগঠনটি বছরে শত কোটি টাকার অবৈধ বাণিজ্য করছে। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক জন জাহাজ মালিক অভিযোগ করেন, সম্প্রতি পায়রা ও রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য আমদানি করা কয়লা চট্টগ্রাম বন্দর থেকে খালাস করে লাইটার জাহাজে নিয়ে যাওয়ার সময় বাধা প্রদান করে ‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল।’ সেল থেকে সিরিয়াল না নেওয়ার অভিযোগে কয়লাবাহী লাইটার জাহাজে লোড ও পরিবহনে বাধা দেওয়া হয়। পরবর্তীতে সাতটি লাইটার জাহাজকে ৩৫ লাখ টাকা জরিমানা করে সংগঠনটি। এছাড়াও চট্টগ্রাম বন্দর থেকে আমদানি পণ্য পরিবহনে নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন তারা। 

‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলে’র সাধারণ সম্পাদক নুরুল হক বলেন, ‘লাইটার জাহাজে পণ্য পরিবহন শৃঙ্খলার মধ্যে রাখতেই এই সিরিয়াল সিস্টেম চালু করেছে সংগঠন। এখানে কোনো অনিয়ম নেই। কেউ যদি শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে সংগঠন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।’ 

বিআইডব্লিউটিসি’র নীতিমালা উপেক্ষা করে সিরিয়াল না নিয়ে পণ্য পরিবহনের দায়ে বিভিন্ন জাহাজকে জরিমানা করার সত্যতা স্বীকার করে তিনি আরও বলেন, ‘লাইটার জাহাজ মালিকরা আমাদের সদস্য। আমাদের ঘরের কেউ যদি নিয়ম ভঙ্গ করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার এখতিয়ার আমাদের রয়েছে।’

‘ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল’ এর কো-কনভেনার বেলায়েত হোসেন বলেন, ‘পণ্য পরিবহনে বাধা দেওয়া এবং জাহাজকে জরিমানা করার ক্ষমতা ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেলের নেই।’ 

রেজাউল/ মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়