ঢাকা     শুক্রবার   ১৯ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৪ ১৪৩১

স্ত্রীর মর্যাদা পেতে ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে এক সন্তানের জননী

নীলফামারী প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫৩, ১ জুন ২০২৩   আপডেট: ২২:৪৮, ২ জুন ২০২৩
স্ত্রীর মর্যাদা পেতে ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে এক সন্তানের জননী

অভিজিৎ সর্বঙ্গ পাপন

নীলফামারীর ডোমারে এক ছাত্রলীগ নেতার বাড়িতে স্ত্রীর মর্যাদা পেতে অনশন করছেন এক নারী। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১ জুন) দুপুরে অনশন শুরু করেন ওই নারী। এদিকে, ওই নারীকে দেখে পালাতে গিয়ে পা মচকে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ওই ছাত্রলীগ নেতা।

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতার নাম অভিজিৎ সর্বঙ্গ পাপন। তিনি ডোমার পৌর এলাকার ছোটরাউতা সাহাপাড়া এলাকার দেবরঞ্জন সর্বঞ্জের ছেলে ও ডোমার পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে ভুক্তভোগী নারী ছাত্রলীগ নেতা পাপনের বাড়িতে আসেন। তখন তাকে দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন পাপন। এ সময় ওই নারীকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ উঠে। ভুক্তভোগী চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু করলে স্থানীয়রা এগিয়ে আসেন।

থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেন। তখন সবার অগোচরে বাড়ির পেছন দিয়ে পালানোর চেষ্টা করেন পাপন। এ সময় পড়ে গিয়ে তার পা মচকে যায়। পরে পুলিশ হেফাজতে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।

ভুক্তভোগী নারী বলেন, ২০১৩ সালে পাপনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ি। ২০১৪ সালে পঞ্চগড়ের বোদেশ্বরি মন্দিরে আমরা বিয়ে করি। পরে পাপন আমাকে বলে, এখন কাউকে কিছু জানাইও না। আমার মায়ের হার্টের সমস্যা, মাকে আমি আস্তে আস্তে ম্যানেজ করে তোমাকে বাড়ি নিয়ে যাব। এখন তুমি ভাড়া বাসায় থাকো।

তিনি বলেন, আমি যখন সাহাপাড়া নারু সাহা নামে এক লোকের বাড়িতে ভাড়া ছিলাম। সে সময় তার মা আমাদের সম্পর্কের কথা জানতে পারেন। পরে তার মা আমাকে গালিগালাজ করেন ও মারতে আসেন। পরে বাড়িওয়ালা আমাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন।

ভুক্তভোগী আরও বলেন, নীলফামারী ও ডোমার শহরের বিভিন্ন জায়গায় আমরা বাসা ভাড়া করে সংসার করে আসছিলাম। কিন্তু একমাস হলো, পাপন আমার সঙ্গে দেখা করে না, খোঁজও নেয় না। এমনকি, আমার মোবাইল ফোনও রিসিভ করে না। এখন সে আমাকে স্ত্রী বলে স্বীকার করছে না। আমি যেখানে ভাড়া ছিলাম, সেখানে গিয়ে জিজ্ঞেস করলে বুঝতে পারবেন আমার স্বামী কে। আমার জীবন-যৌবন সব শেষ করে এখন আমাকে স্ত্রী হিসেবে মানে না। আমাকে খারাপ বানানোর জন্য সে অনেক চেষ্টা করেছে। আমার তিন মাসের পেটের বাচ্চা নষ্ট করে দিছে। আজ আমি তার বাড়িতে অবস্থান নিয়েছি স্ত্রীর মর্যাদা পেতে। সে আমাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করছে। আমি স্ত্রীর মর্যাদা চাই।

অভিজিৎ সর্বঙ্গ পাপন বলেন, ‘ওই নারীর তিনটা স্বামী আছে। সে বিভিন্ন জায়গায় মানুষকে ব্লাকমেইল করে টাকা নেয়। আমার কাছেও টাকা চায়। তার একটা ছেলে আছে। আমি অবিবাহিত একটা ছেলে। সে আজ পরিকল্পিতভাবে এখানে এসেছে।’

ডোমার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদ উন নবী বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘এ ঘটনায় থানায় এখনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সিথুন/কেআই

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়