ঢাকা     শনিবার   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১১ ১৪৩০

শেরপুরে সবজির বাজার স্থিতিশীল, বাড়তি দাম অন্যান্য পণ্যের

শেরপুর প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৪১, ১ ডিসেম্বর ২০২৩  
শেরপুরে সবজির বাজার স্থিতিশীল, বাড়তি দাম অন্যান্য পণ্যের

শীত শুরু হলে শেরপুরের সবজির বাজার থাকে সহনশীল পর্যায়ে। কিন্তু এখনো বাড়তি দামেই কিনতে হচ্ছে চাল, চিনি, আটা ও ময়দার মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যগুলো।

শীতের সবজি বাজারে আসা শুরু করায় দাম কিছুটা কমে এখন স্থিতিশীল। এছাড়াও মফস্বল শহরের প্রধান খাবার ব্রয়লার মুরগির দাম স্থিতিশীল অবস্থায় রয়েছে। কিছুটা স্বস্তি এসেছে মাছের বাজারেও।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) বিকেলে শহরের বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র।
অন্যদিকে বাজারে নতুন করে পাতাসহ পেঁয়াজ আসা শুরু হয়েছে। এতে অন্যান্য পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। এখন বাজারে দেশি পেঁয়াজ ১১০ এবং আমদানি করা পেঁয়াজ ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

সবজির বাজার ঘুরে দেখা যায়, বাজারে বেগুন বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, করলা ৬০, ঢেঁড়স ৬০, পটল ৫০, বরবটি ৫০, শসা ৪০, পেঁপে ৩০, মিষ্টি কুমড়া ৪০ থেকে ৫০ টাকার মধ্যে এবং ধনে পাতা বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকা প্রতি কেজি।

এছাড়া লেবুর হালি ১২ থেকে ১৫ টাকা, কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা এবং জালি কুমড়া ৪০ টাকা। এদিকে আলু বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৫০ টাকা এবং কাঁচা মরিচ ৮০ থেকে ১২০ টাকায়।

এদিকে আটা ও ময়দার দামও বেড়েছে। খোলা আটা কিনতে এখন ক্রেতাকে গুনতে হচ্ছে কেজিতে ৪৮ থেকে ৫০ টাকা। আর প্যাকেট আটার কেজি কিনতে খরচ হচ্ছে কমবেশি ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। একইভাবে খোলা ময়দা ৬০ থেকে ৬৫ এবং প্যাকেট আটা ৬৫ থেকে ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে শহরের খোয়ারপার, নয়ানীবাজার, বাজিতখিলা, নতুন বাস টার্মিনালসহ বিভিন্ন এলাকার দোকানে দেখা গেছে ৭০০ থেকে ৭৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে গরুর মাংস। যা এক মাস আগের চেয়ে কেজিতে দেড়শ টাকা কম।

নয়ানীবাজার এলাকায় বস্ত্র ব্যবসায়ী কাজী মাসুম বলেন, শীতের সময় সবজি থাকে পানির দামে। শেরপুরের সবজি দেশের বিভিন্ন জায়গায় যায়। এরপরও আমাদের যদি বেশি দামে সবজি কিনতে হয় এটা দুঃখজনক।

ভ্রাম্যমাণ এক সবজি বিক্রেতা বলেন, চার হাত ঘুইরা তরকারি আমগর হাতে আহে। কিনন লাগে বেশি দিয়ে। কমে বেচলে আমগর কি থাকবো।

তারিকুল/ফয়সাল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়