ঢাকা     শনিবার   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১১ ১৪৩০

নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন 

শম্ভুসহ আ.লীগের পাঁচ নেতার বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ

বরগুনা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:২৫, ১১ ডিসেম্বর ২০২৩   আপডেট: ০৯:৩৩, ১১ ডিসেম্বর ২০২৩
শম্ভুসহ আ.লীগের পাঁচ নেতার বিরুদ্ধে শাস্তির সুপারিশ

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরগুনা-১ (বরগুনা সদর-আমতলী তালতলী) আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের আরও চার নেতার বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে।

জেলা নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান, যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ আহমদ সাঈদ নির্বাচন কমিশন সচিব বরাবর তিনটি প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন। 

প্রতিবেদন পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আবদুল্লাহ হাই আল হাদি। 

জেলা নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির, বরগুনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শাহ মোহাম্মদ ওলি উল্লাহ ও আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে। 

৭ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশন সচিব বরাবরে পাঠানো প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বরগুনার বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি ছাড়াই সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ বিশেষ বর্ধিত সভা করে। সভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু নির্বাচনী প্রচারণামূলক বক্তব্য দেন। বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর কবির, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক শাহ মোহাম্মদ অলিউল্লাহ অলি প্রচারণামূলক বক্তব্য দিয়ে নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন।

প্রতিবেদনে আচরণবিধির ২০০৮ এর ৬(খ) ও ৬(গ) এবং নির্বাচনি আরচরণবিধি ১৭ বিধির অধীনে নির্বাচনের বিকল্প অনিয়ম সংগঠিত হওয়ায় ১৫ হাজার টাকা করে জরিমানার সুপারিশ করা হয়। 

এর আগে ৪ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশন সচিবের বরাবরে নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটি আরেকটি প্রতিবেদন পাঠায়। ওই প্রতিবেদনেও বরগুনা-১ আসনের আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও তার সমর্থক মতিয়ার রহমানের বিরুদ্ধে গত ২৮ নভেম্বর সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে আমতলী পৌরসভা ও শহরে বিশাল জনসমাবেশ ও মোটরসাইকেল মিছিল বের করে জনচলাচল বিঘ্নিত করার অভিযোগ আনা হয়। এতে আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মেয়র মতিয়ার রহমান ও বরগুনা-১ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুকে নির্বাচন কমিশনে ডেকে তিরষ্কার ও অঙ্গীকারনামা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়। 

৩ ডিসেম্বর আরেকটি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, গত ৩০ সেপ্টেম্বর বরগুনার বুড়িরচর ইউনিয়নের আমজেদ মার্কেটে ব্রিজের উত্তর পাশে আবদুর রহিমের দোকানে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর সমর্থক জহিরুল ও খোকনসহ কয়েকজন মিলে স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম সরোয়ার টুকুর সমর্থক মো. শহিদুল ইসলাম ও রাজিব মিয়াকে মারধর করে। এ ঘটনায় নির্বাচনে রাজনৈতিক দল প্রার্থীর আচরণ বিধিমালা ২০১৮ এর বিধি ১১(গ) লঙ্ঘন হয়েছে। যেহেতু বরগুনা সদর থানায় অভিযোগ হয়েছে সে কারণে উভয় প্রার্থীকে নির্বাচন কমিশনে ডেকে সতর্ক করার সুপারিশ করা হয়। এর মধ্যে আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিয়ার রহমান ভুল স্বীকার করে লিখিত জবানবন্দী দিয়েছেন। 

জেলা নির্বাচন অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান আহমদ সাঈদ বলেন, তিনটি ঘটনায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। এসব ঘটনায় আমতলী উপজলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিয়ার রহমানসহ চারজনের লিখিত জবানবন্দী নেওয়া হয়েছে। এরপরও আচরণবিধি লঙ্ঘন করে তালতলী ও আমতলী উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় স্বতন্ত্র প্রার্থীদের হুমকি দিয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর সমর্থক কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতা। এসবের তথ্য উপাত্ত ও প্রমাণাদি সংগ্রহ করা হয়েছে। 

ইমরান/টিপু

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়