ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২০ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৬ ১৪৩১

জেলা পরিষদ উপনির্বাচন

দুই প্রভাবশালীকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হলেন বিল্লাল মিয়া

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪৮, ৯ মার্চ ২০২৪   আপডেট: ১৯:০১, ৯ মার্চ ২০২৪
দুই প্রভাবশালীকে হারিয়ে চেয়ারম্যান হলেন বিল্লাল মিয়া

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের উপনির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। আওয়ামী লীগের দুই প্রভাবশালী নেতাকে পরাজিত করে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন রাজনৈতিক কোনো পদ-পদবী না থাকা মো. বিল্লাল মিয়া। তিনি ‘ঘোড়া’ প্রতীকে ৭৪৩ ভোট পেয়েছেন।

শনিবার (৯ মার্চ) সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম। মো. বিল্লাল মিয়া পেশায় ব্যবসায়ী।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম জানান, নির্বাচনে ১ হাজার ৩৮৪ জন ভোটার ছিলেন। ভোট দিয়েছেন ১ হাজার ৩৬৬ জন। ৯৮ দশমিক ৭০ শতাংশ ভোট পড়েছে। নির্বাচনে বিল্লাল মিয়ার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার দুইবারের সাবেক মেয়র মো. হেলাল উদ্দিন ‌‘চশমা’ প্রতীকে পেয়েছেন ৪৯০ ভোট। অপর প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যমান শফিকুল আলম ‘আনারস’ প্রতীকে পেয়েছেন ১৩৩ ভোট।

আরও পড়ুন: প্রার্থীর ওপর হামলার অভিযোগে আটক ৮

বিল্লাল মিয়া ২০২২ সালের ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত জেলা পরিষদের নির্বাচনে আশুগঞ্জ উপজেলা থেকে সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। উপনির্বাচনে তিনি সদস্য পদ থেকে পদত্যাগ করে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালের ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত জেলা পরিষদের নির্বাচনে জেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আল-মামুন সরকার চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেন। ২০২৩ সালের ২ অক্টোবর তিনি মারা যান। এরপর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। জেলার নয়টি উপজেলা, পাঁচটি পৌরসভা ও ১০০টি ইউনিয়ন পরিষদ নিয়ে গঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদ। নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ১৩৮৪ জন। এর মধ্যে নাসিরনগর উপজেলায় ১৭১ জন, সরাইল উপজেলায় ১১৯ জন, আশুগঞ্জ উপজেলায় ১০৪ জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলায় ১৬১ জন, বিজয়নগর  উপজেলায় ১৩০ জন, কসবা উপজেলায় ১৪৬ জন, আখাউড়া উপজেলায় ৮১ জন, নবীনগর উপজেলায় ২৮৮ ও বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় ১৮৪ জন ভোটার ছিলেন।

মাইনুদ্দীন/মাসুদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়