ঢাকা, শুক্রবার, ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৫ জুন ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

‘আফ্রিকা মহাদেশের ২৫ কোটি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হবে’

আমিনুল ইসলাম : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৮ ৫:৩২:৫৮ এএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৮ ৯:৪৫:১৯ এএম

আফ্রিকা একটি সুবিধাবঞ্চিত ও নিষ্পেষিত মহাদেশ। সম্পদ ও কর্মক্ষম জনশক্তির আধিক্য থাকা সত্ত্বেও তারা পিছিয়ে। যুগ যুগ ধরে শোষণ আর নিষ্পেষণের শিকার। যুদ্ধ, গৃহযুদ্ধ, দুর্ভিক্ষ, মহামারিকে সঙ্গী করে গরীব মহাদেশের তকমা নিয়ে সময়ের উল্টোপিঠে চলছে মহাদেশটি। করোনাভাইরাসের এই মহামারির সময়ে মহাদেশটি নিয়ে অনেকেই বেশ শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। কারণ, মহাদেশটির অধিকাংশ দেশগুলোতেই নেই ভালো মানের ডাক্তার, হাসপাতাল, প্রয়োজনীয় মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও সুযোগ-সুবিধা।

তাইতো ২০১৪ সালে ইবোলা ভাইরাসের সময় লাইবেরিয়ায় কাজ করা ডাক্তার জেরি ব্রাউন মনে করছেন আফ্রিকার দেশগুলো যদি সামাজিক দূরত্ব, সামাজিক বিচ্ছিন্নতা, লকডাউন, করোনাভাইরাস রুখে দেওয়ার নিয়ম-নীতি না মানে তাহলে কমপক্ষে ২৫ কোটি মানুষ আক্রান্ত হতে পারে।

১৭ মার্চ থেকে এই মহাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়েছে। মাত্র ২১ দিনের ব্যবধানে মহাদেশের ৫৪টি দেশেই ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। আক্রান্ত করেছে ১০ হাজার ৪২৭ জন। মারা গেছে ৫১৯ জন। সেরে উঠেছে ৯৯৩ জন।

আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি দক্ষিণ আফ্রিকায়, ১৭৪৯। আলজেরিয়ায় এই সংখ্যা প্রায় ১৫০০ (১৪৬৮)। মিশরে ১৩২২, মরোক্কোতে ১১৮৪, ক্যামেরুনে ৬৮৫, বুরকিনা ফাসোতে ৩৬৪ জন ও আইভরিকোস্টে ৩২৩ জন।

আক্রান্ত দেশের তালিকায় আছে অ্যাঙ্গোলা, বেনিন, বোতসোয়ানা, বুরুন্ডি, কাবোভার্দে, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক, চাদ, কমোরস, কঙ্গো রিপাবলিক, কঙ্গো, জিবুতি, ইকোয়াটুরিয়াল গায়না, ইরিত্রিয়া, ইসোয়াতিনি (সোয়াজিল্যান্ড), ইথিওপিয়া, গাম্বিয়া, গ্যাবন, ঘানা, গিনি, গিনি বিসাও, কেনিয়া, লেসোথো, লাইবেরিয়া, লিবিয়া, মাদাগস্কার, মালাউয়ি, মৌরিতানিয়া, মরিশাস, মরোক্কো, মোজাম্বিক, নামিবিয়া, নাইজার, নাইজেরিয়া, রুয়ান্ডা, সাও তোমে অ্যান্ড প্রিন্সিপে, সেনেগাল, শিসেলস, সিয়েরালিওন, সোমালিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, দক্ষিণ সুদান, সুদান, তানজানিয়া, টোঙ্গো, তিউনিশিয়া, উগান্ডা, জাম্বিয়া ও জিম্বাবুয়ে।

আফ্রিকা মহাদেশের অধিকাংশ দেশেরই নেই করোনা প্রস্তুতি। নেই করোনা মোকাবেলার মতো সরঞ্জামাদি (পিপিই, মাস্ক, ভেন্টিলেটর)। বিভিন্ন দেশের ঘণবসতিপূর্ণ শহরগুলো ও উদ্বাস্তু শিবিরে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লে সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে যাবে।

আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যা নাইজেরিয়ায়, ২০ কোটি। দেশটিতে ভেন্টিলেটর রয়েছে মাত্র ৫০০টি। প্রথম সারির কয়েকটি দেশে ৮০ থেকে ১০০টি রয়েছে। আর মহাদেশটিতে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা বিভিন্ন উদ্বাস্তু শিবিরের কথা না হয় বাদই দেওয়া গেল। যেখানে ১ কোটি ৮০ লাখ শরনার্থী রয়েছে।

যেখানে উন্নত বিশ্ব করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে আফ্রিকা মহাদেশের দেশগুলোর অবস্থা কি হবে সেটা অনুমান করতে বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন পড়ে না।

 

ঢাকা/আমিনুল