Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাইডেন প্রশাসনকে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান

কূটনৈতিক প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৩৮, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১  
রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বাইডেন প্রশাসনকে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান

রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধানে নতুন মার্কিন প্রশাসনকে দ্বিপক্ষীয় ও বহুপাক্ষিকভাবে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন।

শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, শুক্রবার ইউএস থিঙ্ক ট্যাঙ্ক প্রতিষ্ঠান ‘নিউলাইন ইনস্টিটিউট অন স্ট্র্যাটেজি অ্যান্ড পলিসি’র সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ আহ্বান জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. আজিম ইব্রাহিম অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। অনুষ্ঠানে জাতিসংঘ, ওআইসি ও যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা সরাসরি এবং অনলাইনে যোগ দেন।

মতবিনিময় সভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১১ লাখ রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসনই এ সমস্যা সমাধানের একমাত্র উপায়।’

রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরিতে মিয়ানমারের ওপর আরও বেশি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপে বাইডেন প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান এ কে আব্দুল মোমেন।

এ সময় রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারে বিশেষ দূত নিয়োগ দিতে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রস্তাব দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

পরে সিএফআর আয়োজিত ‘বাংলাদেশ-মার্কিন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এবং রোহিঙ্গা ইস্যু’ শীর্ষক ভার্চুয়াল ইভেন্টে যোগ দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। অধিবেশন পরিচালনা করেন রাষ্ট্রদূত আইসোবেল কোলম্যান।

এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে করোনা মহামারি মোকাবিলায় বাংলাদেশের চলমান টিকাদান কর্মসূচি এবং বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কথা তুলে ধরেন একে আব্দুল মোমেন।

একই দিনে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইলিনয় থেকে নির্বাচিত মার্কিন কংগ্রেসওমেন জান স্কাওকস্কির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেওয়ায় বাংলাদেশের প্রশংসা করেন জান স্কাওকস্কি।

রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশকে মানবিক ও রাজনৈতিক সহায়তা দেওয়ায় মার্কিন সরকারকে ধন্যবাদ জানান একে আব্দুল মোমেন। তিনি মিয়ানমারের ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ এবং জিএসপি সুবিধা প্রত্যাহারের মতো আরও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য মার্কিন সরকারকে প্রভাবিত করতে মার্কিন আইন প্রণেতাদের সহায়তার অনুরোধ করেন।

এর আগে গত মঙ্গলবার মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী, তার আগে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে টেলিফোনে আলোচনা করেন একে আব্দুল মোমেন।

দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক বৃদ্ধি এবং বাইডেন প্রশাসনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার বিষয়ে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা জানাতে ওয়াশিংটন ডিসি সফর করছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন।

ঢাকা/হাসান/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে