ঢাকা     শুক্রবার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১০ ১৪৩০

রাজশাহী সিটিতে ৭ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৪৮, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩  
রাজশাহী সিটিতে ৭ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

ফাইল ছবি

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (আরসিসি) গত কয়েক বছরে নাগরিক সুবিধা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রায় ২৯৫ দশমিক ৬০ কোটি টাকা ব্যয়ে সাতটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে।

রোববার প্রধানমনন্ত্রী শেখ হাসিনা তার রাজশাহী সফরে এসব উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন।

প্রধানমন্ত্রী প্রায় ৩৭৬.২৮ কোটি টাকা আনুমানিক ব্যয়ের ছয়টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পাশাপাশি প্রায় ১,৬১২.৫৭ কোটি টাকা ব্যয়ে বিভিন্ন সংস্থার বাস্তবায়িত ১৮টি প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন।

প্রায় ৫ কোটি ২ লাখ টাকা ব্যয়ে রাজশাহী নগরীর সিএন্ডবি ক্রসিং এলাকায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল নির্মাণ করেছে আরসিসি। দেশের সর্ববৃহৎ এই ম্যুরালের উচ্চতা ৫৮ ফুট, মূল অংশের ফুট উচ্চতা ৫০ এবং ৪০ ফুট চওড়া বঙ্গবন্ধুর ছবি রয়েছে।

সীমানা প্রাচীরের উভয়পাশে ৭০০ ফুট জুড়ে টেরাকোটার কাজ করা হয়েছে। গ্যালারি এবং ল্যান্ডস্কেপিং সুপার গ্রানাইট দিয়ে সুসজ্জিত। ম্যুরালে শোভাবর্ধক বৈদ্যুতিক বাতিসহ রাতের দৃষ্টিনন্দন আবহ তৈরি করা হচ্ছে।

রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ম্যুরালটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন, কর্ম এবং দেশের স্বাধীনতায় প্রশংসনীয় অবদান ও ত্যাগ সম্পর্কে জানতে অনুপ্রাণিত করবে।

বিশেষ করে শিশুদের বিনোদনের নতুন দিগন্ত উন্মোচনের লক্ষ্যে রাজশাহী নগরীতে শেখ রাসেল শিশুপার্কের নির্মাণ কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। আনুমানিক প্রায় ৪.৪৩ কোটি টাকা ব্যয়ে  ছোটবনগ্রাম এলাকায় ২.১৪ একর জমির ওপর একটি সময় উপযোগী ডিজাইনের মাধ্যমে নজরকাড়া ও আকর্ষণীয় অবয়ব দেওয়ার জন্য পার্কটি স্থাপিত হয়েছে।

পার্কে রয়েছে ব্রিজ, উন্মুক্ত মঞ্চ, হাঁটার পথ, কৃত্রিম পাহাড়সহ বিভিন্ন আধুনিক রাইড এবং কার্যকর নিরাপত্তা।

রাজশাহীবাসী পার্কটিতে একটি নতুন স্থাপত্যের দৃশ্য পাবেন এবং যা শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে অবদান রাখবে, সব বয়সের মানুষ এতে উপকৃত হবেন।

যানবাহন ও জনসাধারণের চলাচল দ্রুত ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে সিটি কর্পোরেশন বিলসিমলা রেলওয়ে ক্রসিং থেকে সিটি হাট রোডকে চার লেনে উন্নীত করছে। এটি প্রায় ৪৪.৯২ কোটি টাকা ব্যয়ে চার ফুট প্রশস্ত রোড ডিভাইডারসহ রাস্তাটিকে ৮০ ফুট চওড়া করা হচ্ছে। ৩ দশমিক ৫৩২ কিলোমিটার সড়কের উভয় পাশে ৪৪ ফুট সড়ক, ১২ ফুট প্রশস্ত ড্রেন ও ফুটপাথ এবং ধীরগতির যানবাহনের জন্য ২০ ফুট সড়কও নির্মাণ করা হচ্ছে। এটি প্রায় ৫৫.৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে আরও একটি জরাজীর্ণ রাস্তাকে স্মার্ট সড়কে উন্নীত করছে।

নওদাপাড়া বাস টার্মিনাল থেকে ভদ্রা রেলওয়ে ক্রসিং পর্যন্ত ৪.১৭ কিলোমিটার রাস্তাটিকে ডবল লেন থেকে চার লেনে উন্নীত করা হচ্ছে এবং ধীরগতির যানবাহন, রাস্তার বিভাজক, ড্রেন এবং উভয় পাশে ফুটপাথের জন্য অতিরিক্ত দুটি লেনের সাথে চার লেনে উন্নীত করা হচ্ছে। পাশাপাশি উত্তর-দক্ষিণ সংযোগ সড়কের সৌন্দর্যবর্ধন ও সবুজায়ন করা হবে শোভাবর্ধক গাছপালা রোপনের মাধ্যমে।

সামগ্রিকভাবে, রাস্তাটি তাদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নতির পরিপ্রেক্ষিতে রাস্তার পাশের বাসিন্দাদের জন্য যুগোপযোগী পরিবর্তন আনবে।

মোহনপুর রেলক্রসিংয়ে প্রায় ৪০ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হয়েছে। রাস্তার এলাকা, বিশেষ করে ফ্লাইওভারটিকে একটি পর্যটন স্পট হিসাবে দেখা হয় কারণ প্রচুর লোক সমাগম হয় এতে স্থানীয়দের অনেকের জন্য আয় বৃদ্ধির সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের আলিফ লাম মীম ভাটা ক্রসিং থেকে রাজশাহী-নাটোর মহাসড়কের ছোটবনগ্রাম, মেহেরচন্ডী, বুধপাড়া ও মোহনপুর হয়ে ছোটোপায়া ক্রসিং পর্যন্ত প্রায় ১৮৯ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে পূর্ব-পশ্চিম সংযোগ সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে।

৬.৭৯৩ কিলোমিটার রাস্তার উভয়পাশে ফুটপাথ নির্মাণের পাশাপাশি, রেলক্রসিংয়ের উপর একটি ফ্লাইওভার, একটি ব্রিজ, আটটি কালভার্ট এবং মাঝামাঝিসহ বিভিন্ন প্রয়োজন ভিত্তিক আধুনিক অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে।

নবনির্মিত চার লেনের সড়কটি মহানগরীর ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকা যানজট নিরসনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

মেয়র লিটন বলেন, প্রায় ১৩১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে কল্পনা সিনেমা হল ক্রসিং থেকে তালাইমারী ক্রসিং পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার রাস্তা চার লেনে উন্নীত করা হয়েছে। রাস্তর দুই পাশে রঙিন রোড লাইট বসিয়ে সুসজ্জিত ও পথচারী উপযোগী ফুটপাত নির্মাণ করা হয়েছে।

সুশোভিত ফুলের চারা রোপণের মাধ্যমে সড়কদ্বীপকে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা হয়েছে।

প্রায় ১৩.৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে রেন্টুর খরির আড়ত থেকে ধলুর মোড় হয়ে হাই-টেক পার্ক পর্যন্ত কার্পেটিং রাস্তা, ড্রেন ও ফুটপাথ নির্মাণ এবং কোর্ট থেকে শহরতলী ক্লাব পর্যন্ত ডি কার্পেটিং রাস্তা নির্মাণ কাজ বাস্তবায়িত হয়েছে।

প্রায় ১২৬.৪০ কোটি টাকা ব্যয়ে উপশহর থেকে সোনাদীঘি ক্রসিং এবং মালোপাড়া ক্রসিং থেকে সাগরপাড়া ক্রসিং পর্যন্ত দুটি মিডটাউন রাস্তা প্রশস্ত করা হয়েছে, যা শহরের যোগাযোগের ক্ষেত্রে যুগান্তকারী পরিবর্তন এনেছে।

সিটি করপোরেশন এ পর্যন্ত প্রায় ২১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য বিশিষ্ট পাঁচটি পৃথক সড়ক ও রাস্তায় ৬৯৫টি খুঁটিতে ১ হাজার ৬৫৪টি সুসজ্জিত ও দৃষ্টিনন্দন বাতি স্থাপন করেছে। এছাড়াও ১৫টি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ক্রসিং আধুনিক আলোক ব্যবস্থার আওতায় আনা হয়েছে।

সামগ্রিকভাবে, ব্যাপক অবকাঠামোগত উন্নয়ন কাজের মধ্য দিয়ে রাজশাহী মহানগরী নতুন রূপ পেয়েছে এবং আধুনিক সড়কবাতি নগরবাসী ও অন্যান্য সুবিধাভোগীদের জন্য স্বস্তি বয়ে এনেছে।

/পারভেজ/সাইফ/

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়