RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শুক্রবার   ৩০ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ১৫ ১৪২৭ ||  ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

৪৪৯ রান, ২৯ ছক্কার ম্যাচে ভাঙল যেসব রেকর্ড

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪৪, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১১:৫০, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
৪৪৯ রান, ২৯ ছক্কার ম্যাচে ভাঙল যেসব রেকর্ড

রাজস্থান রয়্যালস ও কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের ম্যাচে রোববার রাতে যা হলো তা এক কথায় অবিস্মরণীয়, অকল্পনীয়, অতুলনীয়। ছক্কা বৃষ্টির ম্যাচে ওলটপালট হয়েছে রেকর্ডবুক। একনজরে তা দেখে নেয়া যাক,

৪৪৯

দুই ইনিংসে মিলিয়ে রান হয়েছে ৪৪৯। যা আইপিএলে চতুর্থ সর্বোচ্চ। শারজাহ স্টেডিয়ামে আগে ব্যাটিং করে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ২ উইকেটে ২২৩ রান তোলে। জবাবে রাজস্থান রয়্যালস ৬ উইকেটে তোলে ২২৬ রান। আইপিএলে এক ম্যাচে সর্বোচ্চ রান ৪৬৯। ২০১০ সালে চেন্নাই সুপার কিংস ও রাজস্থান ম্যাচে এ রেকর্ড হয়েছিল।

২২৪

আইপিএলের ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড গড়েছে রাজস্থান রয়্যালস। এর আগে তারাই সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড গড়েছিল। ২০০৮ সাল ডেকান চার্জাসের বিপক্ষে ২১৫ রান করে জিতেছিল রাজস্থান। সেটি ছিল আইপিএলের প্রথম আসর। সব মিলিয়ে সর্বোচ্চ রান তাড়ায় ২২৪ রান সেরা পাঁচে জায়গা করে নিয়েছে।

৮৬

লক্ষ্য তাড়ায় শেষ পাঁচ ওভারে ৮৬ রান তোলে রাজস্থান। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শেষ পাঁচ ওভারে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তুলেছে তারা। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স ২০১৮ সালে সেন্ট লুসিয়ার বিপক্ষে শেষ পাঁচ ওভারে তুলেছিল ৯০ রান। আইপিএলে শেষ পাঁচ ওভারে লক্ষ্য তাড়ায় এর আগে সর্বোচ্চ রান ছিল ৭৭। চেন্নাই ২০১২ সালে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে এ রান করেছিল।

২৯

পুরো ম্যাচ জুড়ে ছিল ছক্কা বৃষ্টি। পাঞ্জাবের ১১ ছক্কার জবাবে রাজস্থান মেরেছে ১৮টি। সব মিলিয়ে ২৯ ছক্কা হয়েছে ম্যাচটিতে। আইপিএলে এর থেকে বেশি ছক্কার রেকর্ড আছে। ২০১৮ সালে চেন্নাই সুপার কিংস ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর ম্যাচে ৩৩ ছক্কা হয়েছিল।

রাহুল তিওয়াতিয়া ১৮তম ওভারে শেলডন কটরেলের এক ওভারে পাঁচ ছক্কা হাঁকান। প্রথম ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে আইপিএলে এমন কীর্তি দেখালেন তিওয়াতিয়া। ২০১২ সালে এক ওভারে পাঁচ ছক্কা মেরেছিলেন ক্রিস গেইল।

১৭ (২৩)

রাহুল তিওয়াতিয়া শেষ দিকে ঝড় তুললেও শুরুটা ছিল একদম বাজে। প্রথম ১৭ বলের ১২টি ছিল ডট। বাউন্ডারি ছিল একটি। তার খেলা মেষ আট বলে ছক্কা মারেন ছয়টি। কটরেলকে এক ওভারেই মারেন পাঁচটি।

১৮৩

পাঞ্জাবের দুই ওপেনার উদ্বোধনী ইনিংসে ১৮৩ রান করেন। রাহুল ও মায়াঙ্কে এ জুটি বড় রান এনে দেয়। আইপিএলের ইতিহাসে যা তৃতীয় সর্বোচ্চ জুটি। উদ্বোধনী জুটিতে ডেভিড ওয়ার্নার ও জনি বেয়ারস্টোর ১৮৫ রানের জুটি আছে।

আইপিএলের ইতিহাসে প্রথমবার দলের দুই উদ্বোধনী বোলার ৫০ এর বেশি রান দিয়েছেন। পাঞ্চাবের দুই পেসার শেলডন কটরেল ও মোহাম্মদ সামি যথাক্রমে ৫২ ও ৫৩ রান খরচ করেন।

৬২

শারজাহ স্টেডিয়ামে আইপিএলের দুই ম্যাচেই এসেছে ৬২ ছক্কা। রাজস্থান ও চেন্নাইয়ের প্রথম ম্যাচে হয়েছিল ৩৩ ছক্কা। দ্বিতীয় ম্যাচে রাজস্থান ও পাঞ্জাবের ম্যাচে হয়েছে ২৯ ছক্কা। অন্যদিকে আইপিএলের আরেক ভেন্যু আবুধাবিতে সাত ম্যাচে ছক্কা হয়েছে ৫৫টি।

ঢাকা/ইয়াসিন

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়