ঢাকা, বুধবার, ১ কার্তিক ১৪২৫, ১৭ অক্টোবর ২০১৮
Risingbd
সর্বশেষ:

রাজধানীতে জাতীয় সংখ্যালঘু কনভেনশন অনুষ্ঠিত

আরিফ সাওন : রাইজিংবিডি ডট কম
 
     
প্রকাশ: ২০১৮-০১-১২ ৬:৫১:৫৮ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-১২ ৬:৫১:৫৮ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীতে জাতীয় সংখ্যালঘু কনভেনশন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ এ কনভেনশনের আয়োজন করে। ১৯টি ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সংগঠনের ডাকে অনুষ্ঠিত এ কনভেনশনে রাজনৈতিক মত-পথ নির্বিশেষে ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও আদিবাসী সম্প্রদায়ভুক্ত বিশিষ্ট ব্যক্তিরা এতে যোগ দেন।

কনভেনশনে আলোচকরা অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন ও পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে মহলবিশেষের চক্রান্তে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বক্তারা বলেন, রাজনৈতিক স্বার্থে, গোষ্ঠীস্বার্থে ধর্মের অপব্যবহার বা সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর সঙ্গে রাজনৈতিক গোষ্ঠীর মেলবন্ধন মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনা থেকে গোটা দেশ ও জাতিকে অনেক দূরে ঠেলে দিচ্ছে। এরই সুযোগ নিয়ে সাম্প্রদায়িক শক্তি ও গোষ্ঠী নানান নামের সংগঠনের ব্যানারে একদিকে সংখ্যালঘুদের দেশত্যাগে বাধ্য করার কু-অভিপ্রায়ে ভুয়া ফেইসবুক আইডি ব্যবহার করে ইসলাম ধর্ম ও মহানবী (সাঃ)কে কটাক্ষের মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংখ্যালঘু ও আদিবাসী অধ্যুষিত পল্লীতে হামলা চালাচ্ছে। দুঃখজনক হলো, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ক্ষুণ্নে লিপ্ত এসব চক্রান্তকারী রহস্যজনক কারণে ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে।

আলোচকরা একমত পোষণ করেন, দল ও মতের ভিন্নতা সত্ত্বেও সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের স্বার্থ ও অধিকারের প্রশ্নে একাট্টা হয়ে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলা আজ সময়ের দাবিতে পরিণত হয়েছে।

কনভেনশনে ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্তের বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি ও তাকে হত্যার হুমকির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

কনভেনশনে সভাপতিত্ব করেন হিউবার্ট গোমেজ। অধ্যাপক হিরেন্দ্রনাথ বিশ্বাস এতে শোকপ্রস্তাব উত্থাপন করেন। জাতীয় ঐকমত্যের সাত দফা দাবিনামা পাঠ করেন অ্যাডভোকেট তাপস কুমার পাল। ধর্মীয়-জাতিগত সংখ্যালঘু সংগঠনসমূহের জাতীয় সমন্বয় কমিটির পক্ষে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাণা দাশগুপ্ত এতে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।

আলোচনায় অংশ নেন- পংকজ ভট্টাচার্য, ড. দুর্গাদাস ভট্টাচার্য, ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক, ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য, পীযূষ বন্দোপাধ্যায়, সাবেক প্রতিমন্ত্রী গৌতম চক্রবর্তী, সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার, সাধন মজুমদার, ছবি বিশ্বাস, মনোরঞ্জন শীল গোপাল, হেপী বড়াল প্রমুখ।

জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে কনভেনশন শুরু হয়। প্রায় ৫ ঘণ্টা স্থায়ী এ কনভেনশনের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্ব পরিচালনা করেন যথাক্রমে মনীন্দ্র কুমার নাথ ও সাংবাদিক শ্যামল দত্ত। কনভেনশনে সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ৫ দফা দাবি উত্থাপন করা হয়।

 

 

রাইজিংবিডি/ঢাকা/১২ জানুয়ারি ২০১৮/সাওন/মুশফিক

Walton Laptop
 
     
Walton