ঢাকা, শুক্রবার, ১১ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
Risingbd
অমর একুশে
সর্বশেষ:

সূবর্ণ জয়ন্তীর পথে আমাদের যাত্রা || শাহরিয়ার কবির

শাহরিয়ার কবির : রাইজিংবিডি ডট কম
 
   
প্রকাশ: ২০১৮-০১-১৯ ৩:৫৭:৪৬ পিএম     ||     আপডেট: ২০১৮-০১-২০ ৮:৫৯:৪৪ এএম

রজত জয়ন্তীর বছর শেষ করে আমরা সূবর্ণ জয়ন্তীর পথে পা বাড়িয়েছি। যে কোনো দেশের নাগরিক আন্দোলনের ইতিহাসে সম্পূর্ণ আদর্শভিত্তিক একটি আন্দোলনের ছাব্বিশ বছর চলমান থাকা নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধোত্তর বাংলাদেশে বহু সংগঠন বহু আন্দোলন করেছে, কখনও কিছু সাফল্যও অর্জন করেছে, কিন্তু ‘একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি’র মতো হাজারও প্রতিকূলতা- জেল, জুলুম, হত্যা, সন্ত্রাস মোকাবেলা করে টিকে থাকতে পারেনি।

ছাব্বিশ বছর পর যখন পেছনে ফিরে তাকাই, সাফল্যের চেয়ে বড় হয়ে দেখা দেয় সংগ্রামের স্মৃতি। প্রথম থেকেই একের পর এক আঘাত এসেছে- কখনও আন্দোলনের একক বা নির্দিষ্ট নেতৃবৃন্দের উপর, কখনও গোটা সংগঠনের উপর। সূচনালগ্নে গণআদালতে যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা গোলাম আযমের বিচারের জন্য শহীদজননী জাহানারা ইমামসহ নির্মূল কমিটির ২৪ জন নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলা করেছিল জামায়াত সমর্থিত খালেদা জিয়ার বিএনপি সরকার। এরপর সরকারের আক্রমণের লক্ষ্য হয়েছি অভাজন আমি। সরকার নিয়ন্ত্রিত সাপ্তাহিক ‘বিচিত্রা’র কার্যনির্বাহী সম্পাদকের পদ থেকে তাৎক্ষণিকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে আমাকে, গণআদালত আয়োজনের তিন মাস অতিক্রান্ত হওয়ার আগেই। পেশাগত দক্ষতার কারণে কিছু দৈনিক আমাকে নেয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখিয়েছিল। সরকারের গোপন হুমকির কারণে কেউ কেউ চূড়ান্ত আলোচনা করেও আমাকে চাকরি দিতে সাহস করেনি।

বিএনপি-জামায়াত জোট আমার উপর তাদের চূড়ান্ত প্রতিহিংসা চরিতার্থ করেছে ২০০১ সালে নজিরবিহীন সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাস সৃষ্টি করে। ক্ষমতায় এসেই তারা আমাকে গ্রেফতার করে নিক্ষেপ করেছে ভয়ঙ্কর এক কারাগারে। উচ্চতর আদালতের নির্দেশে দু’মাস কারানির্যাতন ভোগের পর জামিনে মুক্তি পাওয়ার বছর না পেরোতেই আবার গ্রেফতার করা হয়েছে। সেবার আমাকে একা নয়, আমার বন্ধু, নির্মূল কমিটির দুর্দিনের কাণ্ডারি অধ্যাপক মুনতাসীর মামুনও খালেদা, নিজামীদের প্রতিহিংসা থেকে রেহাই পায়নি।

আমার প্রথম গ্রেফতারের পর শহীদজায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরীও জামায়াত-বিএনপির প্রতিহিংসার শিকার হয়েছিলেন। তিনি আমার মুক্তির দাবিতে একটি বিবৃতিতে স্বাক্ষর দিয়েছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে ছাটাই করা হয়েছে তার তিল তিল শ্রমে গড়া উদয়ন স্কুল থেকে। ’৭১-এ যখন পাকিস্তানি সামরিক জান্তার গোলাম হয়ে জামায়াত ক্ষমতায় ছিল তখন তাদের ঘাতক ‘আলবদর’ বাহিনী দেশের অন্যান্য শীর্ষস্থানীয় বুদ্ধিজীবীর সঙ্গে শ্যামলী নাসরিন চৌধুরীর স্বামী ডা. আলীম চৌধুরীকেও নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল। ’৭১-এ শ্যামলী ভাবী, আমাদের নির্মূল কমিটির আরেক কাণ্ডারি হারিয়েছেন তার অর্ধেক জীবন, ৩০ বছর পর স্বাধীন বাংলাদেশে হারিয়েছেন তার জীবিকা।

নির্মূল কমিটির কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নিবেদিত নেতাকর্মীরা জামায়াত-বিএনপির সম্মিলিত হামলা ও নির্যাতনের কারণে অনেকে জীবিকাচ্যুত হয়েছেন, কারাগারে নিক্ষিপ্ত হয়েছেন, বহু কর্মীকে জীবনও দিতে হয়েছে। এত কিছুর পরও মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের আন্দোলন তারা স্তব্ধ করতে পারেনি। বরং আরও অনেক সংগঠন, অনেক ব্যক্তি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে সোচ্চার হয়েছে। কারাগার থেকে বেরুবার পর মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে মুনতাসীর মামুনের কলম দ্বিগুণ ধারালো হয়েছে। শ্যামলী ভাবীর বাড়ি নির্মূল কমিটির কেন্দ্রে রূপান্তরিত হয়েছে। কাজী মুকুল প্রেসের ব্যবসার টাকা অকাতরে ঢেলেছে নির্মূল কমিটির কার্যক্রমে। নিভৃতচারী ফেরদৌসী প্রিয়ভাষিণী অভিমানের খোলস ভেঙে বেরিয়ে এসে ২০০৮ সালে নির্বাচনের আগে অশক্ত শরীর নিয়ে গ্রাম থেকে গ্রামে ছুটে বেড়িয়ে তরুণ নির্বাচকমণ্ডলীকে বলেছেন: ’৭১-এর গণহত্যাকারী ও নারী ধর্ষণকারী জামায়াতকে কেউ যেন ভোট না দেয়। খালেদা-নিজামীদের আক্রোশী হামলা ও নির্যাতন নির্মূল কমিটিকে আরও শক্তিশালী করেছে।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের যৌক্তিকতা তুলে ধরার পাশাপাশি নির্মূল কমিটি এই বিচারের বিরুদ্ধে যাবতীয় অপপ্রচারের যেমন জবাব দিয়েছে- বিচার সম্পর্কে সহযোগী অনেকের বিভ্রান্তি দূর করবার জন্যও অবিরাম লড়ে গেছে। নির্মূল কমিটির আন্দোলনের প্রতি মানুষের আগ্রহ লক্ষ্য করে অনেকে চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আদালতে মামলা ঠুকে দিয়েছিল। এমনকি এক জামায়াতপন্থী যুবক অস্ট্রেলিয়ার এক আদালতে বাংলাদেশে গণহত্যার বিচার চেয়ে মামলা করেছিল। সহযোগীদের ধৈর্য্য ধরে বোঝাতে হয়েছে কেন আমরা প্রচলিত ফৌজদারি আদালতে, প্রচলিত আইনে বিচার না চেয়ে বিশেষ ট্রাইবুনালে বিচার চেয়েছি, যে ট্রাইবুনাল গঠনের আইন করেছিল বঙ্গবন্ধুর সরকার। জামায়াত সব সময় দাবি করেছে ’৭১-এ তারা গণহত্যা করেনি, আর বিচার করতে হলে বিশেষ ট্রাইবুনালে নয়, প্রচলিত ফৌজদারি আইনে প্রচলিত আদালতে বিচার করতে হবে। কারণ জামায়াত জানে ফৌজদারি আইনে ‘গণহত্যা’, ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’, ‘যুদ্ধাপরাধ’, শান্তির বিরুদ্ধে অপরাধের কোন সংজ্ঞা নেই। অপরাধের সংজ্ঞা যদি আইনে না থাকে তাহলে সে অপরাধের বিচারও সে আইনে সম্ভব নয়। ১৯৯২ সালের ২৬ মার্চ গণ-আদালতের সফল কর্মসূচিতে উদ্বিগ্ন হয়ে প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া আমাকে আর নাসিরউদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুকে ডেকেছিলেন এ নিয়ে আলোচনার জন্য। তিনি নির্দিষ্টভাবে প্রশ্ন করেছিলেন- গোলাম আযমের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ থাকলে আপনারা দেশের প্রচলিত আদালতে কেন যাচ্ছেন না? কেন গণআদালত করছেন?

পাকিস্তানি গোলাম আযমকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করবেন- এমত গোপন সমঝোতার মাধ্যমে জামায়াতের সমর্থন নিয়ে সরকার গঠন করলেও তখন বিএনপিপ্রধান খালেদা জিয়া এখনকার মতো এত অসহিষ্ণু ও জামায়াতপ্রেমী ছিলেন না। প্রায় এক ঘণ্টার এই আলোচনার বিবরণ আমার ‘গণআদালতের পটভূমি’ বইয়ে আছে। প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া আমাদের কথা শুনেছেন এবং গোলাম আযমের বিচারের জন্য আমাদের প্রচলিত আদালতে যেতে বলেছিলেন। পঁচিশ বছর আগে তাকে যে কথা বলেছিলাম পরে একই কথা বহুবার বহুজনকে বলতে হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য বঙ্গবন্ধু বিশেষ ট্রাইবুনাল আইন প্রণয়ন করেছিলেন ১৯৭৩ সালে। গণহত্যা, যুদ্ধাপরাধ, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ বা শান্তির বিরুদ্ধে অপরাধের মতো ভয়াবহ আন্তর্জাতিক অপরাধের বিচার প্রচলিত ফৌজদারি আইনে যে সম্ভব নয় আন্তর্জাতিক বিচারব্যবস্থায় তা স্বীকৃতি পেয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর নাৎসি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের সময় থেকে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মান ও জাপানি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য নুরেমবার্গ, টোকিও ও ম্যানিলায় যে সব ট্রাইবুনাল বসেছিল তার উদাহরণ অনুসরণের পাশাপাশি এসব ট্রাইবুনালের আইনে যে ঘাটতি ছিল সেগুলো পূরণ করে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সুপরিচিত আইনজ্ঞদের সহায়তায় বঙ্গবন্ধুর সরকার অত্যন্ত মানসম্পন্ন এই আইনটি প্রণয়ন করেছিল।

জামায়াত এবং তাদের সহযোগীদের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হয়ে আমাদের পরিচিতজনদের অনেকেও বলেছেন- ‘সরকার যদি বিচার না করে আমরা আদালতে যাব।’ বন্ধুদের আমরা অনেক বুঝিয়েছি। তারপরও কেউ কেউ যখন অতি উৎসাহী হয়ে ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য মামলা করতে উদ্যোগী হলেন তখন আমাদের নেতা বিচারপতি কে এম সোবহান প্রকাশ্য জনসভায় তাদের হুঁশিয়ার করে বলেছিলেন, আমাদের বার বার বারণ করা সত্ত্বেও কেউ যদি প্রচলিত আদালতে কোনো যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে মামলা করেন সেই মামলাকারীকে আমরা জামায়াত ও যুদ্ধাপরাধীদের দোসর হিসেবে ঘোষণা করতে বাধ্য হবো। তার এই কঠোর মন্তব্যের পর আমাদের সহযোগী সংগঠনের কেউ কেউ তাকে চূড়ান্ত অপমান করেছিলেন- এসব তিক্ততাও আমাদের মোকাবেলা করতে হয়েছে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের সর্বসম্মত প্রস্তাব গৃহীত হয়। এরপরও বিভ্রান্তি কাটেনি। সরকারের নীতিনির্ধারকদের কেউ নিশ্চয় প্রধানমন্ত্রীকে বুঝিয়েছিলেন কম্বোডিয়ার মতো জাতিসংঘের সহযোগিতায় ’৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার জন্য। ২০০৯-এর ফেব্রুয়ারিতে জাতিসংঘের প্রতিনিধি যখন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন তিনি এই বিচারের জন্য জাতিসংঘের সহযোগিতা চেয়েছিলেন।

এটি ছিল আমাদের জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর পরিস্থিতি। এর কার্যকারণ ও ফলাফল বিবেচনা না করে তখন অনেকে কম্বোডিয়ার মতো হাইব্রিড কোর্ট গঠনের জন্য দারুণ হইচই করেছিলেন। আমরা বিশিষ্ট আইনজীবীদের সমন্বয়ে বিচারপতি মোহাম্মদ গোলাম রাব্বানীর নেতৃত্বে ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বিষয়ক নাগরিক কমিশন’ গঠন করে গণমাধ্যমে আমাদের বক্তব্য তুলে ধরেছিলাম। আমাদের সহজ যুক্তি ছিল- যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য আমাদের দেশে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন আইন, বিচারক, আইনজীবী ও তদন্ত কর্মকর্তা থাকার পর বিচারিক বিষয়ে জাতিসংঘকে যুক্ত করবার প্রয়োজন নেই। জাতিসংঘ বা অন্য যে কোনো আন্তর্জাতিক সংস্থা বা দেশ ’৭১-এর গণহত্যার তথ্যপ্রমাণ দিয়ে আমাদের সাহায্য করতে পারে, আমাদের বিচার কার্যক্রম প্রত্যক্ষ করবার জন্য প্রতিনিধি পাঠাতে পারে- এর বেশি আমাদের প্রয়োজন নেই।

এই কমিশনের পক্ষ থেকে আমরা ট্রাইবুনালের গঠনপ্রণালী ও লোকবল সংক্রান্ত অর্গানোগ্রাম তৈরি করে আইনমন্ত্রীকে দিয়েছি। ট্রাইবুনাল গঠনে কালক্ষেপণ, যোগ্য ব্যক্তি নিয়োগ এমনকি ট্রাইবুনালের স্থান কোথায় হবে এসব বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন মন্ত্রীকে চিঠির পর চিঠি লিখেছি। ট্রাইবুনাল গঠনের পরপরই এর বিচারক, আইনজীবী ও তদন্ত কর্মকর্তাদের ’৭১ গণহত্যা সম্পর্কে আমাদের ১৮ বছরের অনুসন্ধান, প্রত্যক্ষদর্শী ও ভুক্তভোগীদের কয়েক হাজার পৃষ্ঠার জবানবন্দি অর্পণ করেছি। ১৯৯৩ সালে কবি সুফিয়া কামালের নেতৃত্বে ’৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের দুষ্কর্মের তথ্য প্রমাণ সংগ্রহের জন্য আমরা যে গণতদন্ত কমিশন গঠন করেছিলাম তারই ভিত্তিতে ট্রাইবুনালের প্রসিকিউশন ও ইনভেস্টিগেশন টিম তাদের তদন্ত আরম্ভ করেছে।

দেশে ও বিদেশে জামায়াত এবং তাদের সহযোগীদের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বিঘ্নিত ও বানচালের ষড়যন্ত্র মোকাবেলার জন্য ট্রাইবুনাল গঠনের পর থেকে আমাদের বহু সেমিনার, সম্মেলন আয়োজন করতে হয়েছে, ক্রমাগত লিখতে হয়েছে এবং বাংলা ও ইংরেজিতে কয়েক ডজন পুস্তক/পুস্তিকাও প্রকাশ করতে হয়েছে। বিচার বানচালের ষড়যন্ত্র এখনও অব্যাহত থাকলেও গত ৮ বছরে অর্ধশতাধিক যুদ্ধাপরাধীর বিচার সম্পন্ন করার ক্ষেত্রে নির্মূল কমিটির অবদান কেউ অস্বীকার করতে পারবেন না।

বিচারের ক্ষেত্রে আগামীতে আমাদের চ্যালেঞ্জ হচ্ছে: ১. এটি চলমান রাখা, ২. ট্রাইবুনালের সংখ্যা, রসদ ও দক্ষ জনশক্তি বৃদ্ধি, ৩. সাক্ষী সুরক্ষা আইনসহ প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, ৪. অপরাধী সংগঠন হিসেবে জামায়াতে ইসলামী, নেজামে ইসলাম ও মুসলিম লীগসহ ঘাতক ‘শান্তি কমিটি’ ‘রাজাকার’, ‘আলবদর’, ‘আলশামস’, ‘মুজাহিদ বাহিনী’ প্রভৃতির বিচার এবং ৫. পাকিস্তানি ১৯৫ জনসহ পরবর্তীকালে যাদের যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ পাওয়া গেছে তাদের পাশাপাশি পাকিস্তানি সামরিক জান্তার হাইকমাণ্ডের বিচার দ্রুত আরম্ভ করা।

ছাব্বিশ বছর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শহীদজননী জাহানারা ইমামসহ গোটা জাতিকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ক্ষমতায় এলে তিনি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবেন। ২০০৯ সালে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করে তিনি তার প্রতিশ্রুতি পূরণ করেছেন। তবে তার সরকারের নীতিনির্ধারকদের সবাই এ বিষয়ে তার মতো আন্তরিক এমন মনে করার কোনো কারণ নেই। প্রশাসনের রন্ধ্রে রন্ধ্রে জামায়াত এবং তাদের সহযোগীরা ঘাপটি মেরে বসে আছেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বিঘ্নিত ও বানচাল করবার জন্য বহুমাত্রিক তৎপরতা চালাচ্ছেন যা আগামীতে আমাদের শক্তভাবে মোকাবেলা করতে হবে। বর্তমান ভবন থেকে ট্রাইবুনাল সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য প্রাক্তন প্রধান বিচারপতি যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন আমরা এর কঠোর সমালোচনা করে বলেছি, প্রয়োজন আমাদের বুকের রক্ত দিয়ে হলেও ট্রাইবুনাল সরিয়ে বিচার বিঘ্নিতকরণের উদ্যোগ প্রতিহত করব। এখনও গণহত্যাকারী ও যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠনগুলোর বিচার বাকি রয়েছে। পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধীদের বিচারও আরম্ভ হয়নি। এ সব বিচার দ্রুত সম্পন্ন করবার জন্য যা করা দরকার আমরা সবই করছি।

আগামী দিনে আমাদের সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, সমাজ ও রাজনীতির মৌলবাদীকরণ ও সাম্প্রদায়িকীকরণ। এ বিষয়ে গত পাঁচ বছরে আমরা ছয় খণ্ডে তিনটি শ্বেতপত্র প্রকাশ করেছি, যার পৃষ্ঠাসংখ্যা পাঁচ হাজারেরও বেশি। বাংলাদেশের সমাজ ও রাজনীতির মৌলবাদীকরণ প্রতিহতকরণের জন্য বি-মৌলবাদীকরণ ব্যবস্থাপত্র প্রণয়নের পাশাপাশি রাজপথের আন্দোলন যেমন জোরদার করতে হবে, একই সঙ্গে আইনি লড়াইও অব্যাহত রাখতে হবে। সংখ্যালঘু ধর্মীয় ও এথনিক সম্প্রদায়ের প্রতি ঘৃণা, বৈষম্যমূলক আচরণ ও নির্যাতন বিলোপ করে সকল নাগরিকের সমান অধিকার ও মর্যাদা রক্ষার জন্য আমাদের রাজপথের লড়াই ও আইনী লড়াই চালিয়ে যেতে হবে। আমদের এ লড়াইয়ে প্রতিবেশী দেশসমূহের পাশাপাশি ইউরোপ ও আমেরিকার নাগরিক সমাজের সমচরিত্রের আন্দোলনকে যুক্ত করতে হবে। আজ একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ২৬তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। আমাদের আন্দোলনের সূবর্ণ জয়ন্তীতে আমরা এমন এক বাংলাদেশ চাই যেখানে ধর্মের নামে হত্যা, নির্যাতন, বৈষম্য, সন্ত্রাস থাকবে না। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা হবে আমাদের সকল কর্মকাণ্ডের ভিত্তি।





রাইজিংবিডি/ঢাকা/১৯ জানুয়ারি ২০১৮/তারা

Walton
 
   
Marcel