RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ২৫ অক্টোবর ২০২০ ||  কার্তিক ১০ ১৪২৭ ||  ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

প্রবেশের অপেক্ষায় পেঁয়াজের ট্রাক, পচনের আশঙ্কা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:২৬, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০   আপডেট: ১১:৩৮, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
প্রবেশের অপেক্ষায় পেঁয়াজের ট্রাক, পচনের আশঙ্কা

ঘোষণা ছাড়াই পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করায় টানা ৬ দিন ধরে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরের বিপরীতে ভারতের ঘোজাডাঙ্গায় আটকা পড়ে আছে ১৬৫ ট্রাক পেঁয়াজ।

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরের মধ‌্যে এসব পেঁয়াজ দেশে প্রবেশ করতে পারে বলে স্থলবন্দর সূত্রে জানা গেছে।

কিন্তু আজ সকাল পর্যন্ত কোন পেঁয়াজের ট্রাক ভোমরা স্থলবন্দরে আসেনি। এসব ট্রাক ভারতে আটকে থাকায় পচনের মুখে পড়ছে বিপুল পরিমাণ এ পেঁয়াজ। এতে মোটা অংকের ক্ষতির মুখে পড়েছেন আমদানিকারকরা।

ভোমরা স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীদের সংগঠন ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, গত সোমবার ভারত হঠাৎ পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করে। কিন্তু ওই ঘোষণার আগেই ভোমরা বন্দরের ব্যবসায়ীদের ১৬৫ ট্রাক পেঁয়াজ ভারত থেকে এলসি করা ছিল। এসব পেঁয়াজের ট্রাকগুলোর ডকুমেন্ট পাস করা রয়েছে।

তিনি আরও জানান, তবে এখন পর্যন্ত এই সমস‌্যার কোনো সুরহা হয়নি। তাছাড়া, ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি মূল্য নির্ধারণকারী প্রতিষ্ঠান ন্যাপেট ৩০০ ডলারের পরিবর্তে প্রতিটন পেঁয়াজের রপ্তানি মূল্য নির্ধারণ করেছে ৭০০ ডলার।

মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, আটকা পড়া প্রতি ট্রাক পেঁয়াজের মূল্য ১০ লাখ টাকা। গত সোমবার থেকে ভোমরা বন্দরের বিপরীতে ভারতের ঘোজাডাঙা সীমান্তে পেঁয়াজভর্তি ট্রাকগুলো আটকে থাকায় পেঁয়াজ নষ্ট হতে শুরু করেছে। এর মধ্যে অর্ধেক পেঁয়াজ নষ্ট হয়ে গেছে। তাছাড়া, ট্রাকগুলো দেশে ঢুকলেও অর্ধেকের বেশি পেঁয়াজ আর খাওয়ার উপযুক্ত থাকবে না। এতে প্রতি ট্রাকে ব্যবসায়ীদের ৫-৬ লাখ টাকার লোকসান হবে। সব মিলিয়ে ব্যবসায়ীদের ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৯ কোটি ৯০ লাখ টাকারও বেশি।

ভোমরা বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মহসিন হোসেন জানান, পেঁয়াজ পচনশীল দ্রব্য। পেঁয়াজের ট্রাক আটকা থাকলে সেগুলো নষ্ট হয়ে যায়। এতে আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে লোকসানে পড়বেন।

এদিকে, সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল জানান, পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা যাতে সাতক্ষীরা ও ভোমরা স্থলবন্দরে পেঁয়াজ মজুদ রেখে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির মাধ্যমে বাজারে দাম বাড়াতে না পারে সেজন্য টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। প্রতিদিন বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রি করার অপরাধে ৬ ব্যবসায়ীকে ৬৫ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

শাহীন/বুলাকী

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়