Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ১৯ এপ্রিল ২০২১ ||  বৈশাখ ৬ ১৪২৮ ||  ০৬ রমজান ১৪৪২

মুন্সীগঞ্জে ৫০ লাখ টাকার ইলিশ জব্দ

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২৩:৩৩, ২ নভেম্বর ২০২০   আপডেট: ১০:৫৯, ৩ নভেম্বর ২০২০

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে প্রায় সাড়ে ৭ মেট্রিক টন মা ইলিশ উদ্ধার করা হয়েছে। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় অর্ধকোটি টাকা।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে লৌহজংয়ের কলমা ইউনিয়নের ডহরি গ্রামের সেন্টু সর্দারের বাড়ি হতে মা ইলিশের এই বিশাল চালনটি জব্দ করা হয়।

লৌহজং উপজেলা সহকারী কশিমশনার (ভূমি) ও উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মু. রাশেদুজ্জামান অভিযান শেষে সোমবার (২ অক্টোবর) রাত সাড়ে ৯টার দিকে এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সোমবার সন্ধ্যার সময় লৌহজংয়ে কলমা ইউনিয়নের ডহরি গ্রামের সেন্টু সর্দারের বাড়িতে অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এসময় সেন্টু সর্দারের একটি ঘর তালাবদ্ধ পাওয়া যায়। তথ্যমতে ঘরের তালা ভেঙে ভিতরে দেখা যায় সারি সারি ককসিটের বাক্স। যার প্রতিটি স্কচটেপ দিয়ে মুখ বন্ধ ছিল। বড় বড় এক কটসিট খুলে দেখা যায় থরে থরে মা ইলিশ বরফের নিচে মজুদ করা হয়েছে। মোট ৫৯টি বড় আকারের ককসিটের বাক্সে এ সকল ইলিশ রাখা ছিল।

প্রতিটি বাক্সে প্রায় ১শ’র উপরে মাছ ছিল। যার ওজর হবে প্রায় সাড়ে ৭ টন। টাকার অংকে এসকল ইলিশের মূল্য হবে প্রায় অর্ধকোটি টাকা। তবে এ অভিযানের সময় মজুদকারীরা পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

তিনি আরো জানান, সরকার যখন ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত সারাদেশের নদ-নদীতে মা ইলিশ ধরা নিষেধ করেছে, তখন পদ্মা মেঘনায় এক শ্রেণির মৌসুমী জেলে এসকল মা ইলিশ শিকার করছে। আমরা প্রায় প্রতিদিন নদীতে অভিযান চালিয়ে জেলেদের জেল জরিমানা করছি। তারপরেও এদের থামানো যাচ্ছে না। তবে যেখান থেকে এসকল ইলিশ উদ্ধার করা হয়েছে এটা কোন জেলে বাড়ি নয়। এরা এক শ্রেণির মৌসুমী ইলিশ ব্যবসায়ী।

এরা অসৎ জেলেদের কাছ থেকে ইলিশ ধরা বন্ধের এ সময়ে অল্পদামে এ সকল ইলিশ কিনে ওই ঘরটিতে মজুদ করেছিল। আর মাত্র ২ পরে নিষিদ্ধের সময় পার হলেই এ সকল ইলিশ এখান থেকে ঢাকা নিয়ে উচ্চমূল্যে বিক্রি করা হতো।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির জানান, আমরা ইতিপূর্বে উদ্ধারকৃত মা ইলিশ লৌহজংয়ের প্রায় প্রতিটি এতিম খানায় বিলি করেছি। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে আমরা চিন্তা করেছি যেহেতু প্রচুর ইলিশ, তাই এবার এ সকল ইলিশ উপজেলার বাইরে জেলার অন্যান্য উপজেলার মাদ্রাসা ও এতিম খানায় বিতরণ করা হবে।

রতন/আমিনুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়