Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ১৭ মে ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ৩ ১৪২৮ ||  ০৩ শাওয়াল ১৪৪২

সেই শিক্ষকের হাতে পৌঁছালো সহায়তা 

মোসলেম উদ্দিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:১৬, ১৬ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৮:৪৭, ১৬ এপ্রিল ২০২১
সেই শিক্ষকের হাতে পৌঁছালো সহায়তা 

দিনাজপুরের সেই মাদ্রাসা শিক্ষকের হাতে প্রাথমিকভাবে কিছু সহায়তা পৌঁছেছে। 

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে নগদ অর্থ ও খাদ্য সহায়তা নিয়ে রাইজিংবিডির এই প্রতিবেদক ওই শিক্ষকের বাড়ি হাজির হন। আচমকা এভাবে সহায়তা পেয়ে আপ্লুত হয়ে পড়েন শিক্ষক মুজিবুর রহমান।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল রাইজিংবিডিতে ‘৮০’র দশকের ৩০০ টাকা বেতনের সেই শিক্ষক আজ অনাহারে’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

সংবাদটি রাইজিংবিডির উপদেষ্টা সম্পাদক উদয় হাকিমের দৃষ্টিগোচর হয়। তিনি তৎক্ষণাৎ এই প্রতিবেদকের কাছে টাকা পাঠিয়ে ওই শিক্ষকের বাড়িতে এক মাসের খাদ্য পৌঁছে দিতে বলেন। 

এছাড়া সংবাদটি পড়ে রাইজিংবিডির এক সহৃদয় পাঠক এই প্রতিবেদকের কাছে পাঁচ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন। শুক্রবার দুপুরে সেসব সহায়তা পৌঁছে দেওয়া হয় ওই শিক্ষকের বাড়ি।

রাইজিংবিডির উপদেষ্টা সম্পাদক উদয় হাকিম বলেন, ‘একজন শিক্ষক আজ অনাহারে-অর্ধাহারে জীবন যাপন করছেন। বিষয়টি খুবই হৃদয় বিদারক। রাইজিংবিডির ওই হৃদয়বান পাঠকের প্রতি কৃতজ্ঞতা, যিনি শিক্ষকের দুঃসময়ে মমতার হাত প্রসারিত করেছেন। সমাজে তার মতো অনেক হৃদয়বান ব্যক্তি আছেন, যারা চাইলে ওই শিক্ষকের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিতে পারেন। সবার ক্ষুদ্র প্রচেষ্টায় হয়তো তিনি ভালো থাকবেন।’

শিক্ষক মুজিবুর রহমান মন্ডল বলেন, ‘কখনো ভাবিনি জীবন যুদ্ধে হেরে যাব। বাঁচার তাগিদে মানুষের কাছে সাহায্যের হাত পাততে হবে! রাইজিংবিডি ও তার প্রতিনিধিকে ধন্যবাদ জানিয়ে ছোট করতে চাই না। শুধু অন্তর থেকে তাদের জন্য দোয়া করি, আমার এই দুঃসময়ে যারা খাদ্য সামগ্রীসহ আর্থিক সহযোগিতা করছেন। আমার অসহায়ত্বের কথা দেশবাসীর কাছে তুলে ধরেছেন। জীবনে তেমন কিছুই পাইনি। কিন্তু শেষ জীবনে রাইজিংবিডি আমাকে নিয়ে দুটি কথা লিখেছে, এটাই আমার জন্য ঢের।’

উল্লেখ্য, মুজিবুর রহমান ১৯৮০ সাল থেকে ফুলবাড়ী উপজেলার বলিভদ্রপুর দাখিল মাদ্রাসায় ৩০০ টাকা বেতনে শিক্ষকতা শুরু করেন। ২০১৪ সালে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন তিনি। পেনশন হিসেবে যা পান, তা দিয়ে ব্যাংকের ঋণ কিছুটা পরিশোধ করেন। বাকি টাকা দিয়ে মেয়েকে বিয়ে দেন। ১২ শতক ভিটেবাড়ি ছাড়া কিছুই নেই তাঁর। এরমধ্যে ৬ শতক জমি ছেলেকে লিখে দিয়েছেন। বাকিটা স্ত্রীকে দিয়েছেন দেনমোহর হিসেবে। স্ত্রীসহ টিনের একটি কুড়ে ঘরে বসবাস করছেন। জীবন সায়হ্নে এসে এখন তিনি অর্ধাহারে-অনাহারে ধুঁকছেন।

কোনো সহৃদয়বান ব্যক্তি শিক্ষক মুজিবুর রহমানের প্রতি বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিতে চাইলে তার ০১৭৪১-৬৯৮৪৩৩ এই বিকাশ নম্বরে টাকা পাঠাতে পারবেন।

শিক্ষক মুজবর রহমানকে অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়ার সময় হাকিমপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম মোস্তাফিজার রহমান মিলন, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বুলু, ঢাকা পোস্টের দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি মাহবুব রহমান, চ্যানেল এস টিভির হিলি প্রতিনিধি লুৎফর রহমান, দৈনিক আমাদের সময় পত্রিকার হিলি প্রতিনিধি মিজানুর রহমান ও দৈনিক বুলেটিন পত্রিকার হিলি প্রতিনিধি গোলাম রাব্বানী উপস্থিত ছিলেন।

দিনাজপুর/সনি

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়