Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২৫ ১৪২৮ ||  ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

কঠিন চীবর দানে সম্প্রীতি কামনা

সাভার প্রতিনিধি  || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৪২, ২২ অক্টোবর ২০২১  
কঠিন চীবর দানে সম্প্রীতি কামনা

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব কঠিন চীবর দান যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে ঢাকার সাভারে শুরু হয়েছে।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ভোর থেকে আশুলিয়ার পলাশবাড়ী এলাকায় বন বিহার বৌদ্ধ মন্দিরে গৌতম বুদ্ধের উপাসনায় মগ্ন হয়ে ওঠেন আগত পুন্যার্থীরা। 

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী নৃ-গোষ্ঠীর হাজারো নারী, পুরুষ ও শিশু-কিশোর আগমন ঘটে মন্দিরে। এ সময় তারা উৎসবমুখর পরিবেশে নানা ধর্মীয় আচার পালন করেন।

ধর্মীয় গুরু পরম পুর্জ্য নন্দপাল মহাস্থবির ভান্তে এ সময় পুন্যার্থীদের উদ্দেশ্যে ত্রিপিটক পাঠ করেন। একই সঙ্গে সবার উদ্দেশ্যে মূল্যবান বক্তব্য দেন।

ধর্মীয় গুরু বলেন, এই দানের মাধ্যমে প্রার্থনা করা হয় নিজের পরে মানবজাতি যেন সুখে থাকে। এরপরে যে সমস্ত প্রাণী বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে আছে তারাও যেন সুখী থাকে। সেই প্রাণীদের জন্যও আমরা এই পুণ্য বিতরণ করি। যারা দুঃখী ব্যক্তি তারা যেন মুক্তি লাভ করেন। যারা সুখী আছেন তারা যেন আরও সুখী হন। ইহলোকে যেমন সুখী হয় পরলোকেও যেন জন্ম-জন্মান্তরে তারা সুখী হতে পারে। পুরো বিশ্বে যেন সম্প্রীতি বজায় থাকে এই প্রার্থনাই চীবর দানে করা হয়।

হিলি চাকমা নামে এক পুন্যার্থী বলেন, এ অনুষ্ঠানটা আমরা আনন্দের সঙ্গে করি। সবার অনেক দিনের একটা প্রতীক্ষায় এই অনুষ্ঠানটা আমাদের বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান। আমরা বলি দানোত্তম কঠিন চীবর দান। শাস্ত্রে বলা হয় যে, আজকে আমরা যে দান করবো এই দানের ফলটা শতবর্ষে আমরা অন্যান্য কোনো দান করলে যে ফলটা হবে; সেটা এটার ষোল ভাগের একভাগও হবে না। তাই সবাই এখানে আনন্দের সঙ্গে এই ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করতে পেরে আনন্দিত। 

সাভার বন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি ডা. মেজর (অব) অজয় প্রকাশ চাকমা বলেন, এই অনুষ্ঠান আমাদের সার্বজনীন একটা গুরুত্ব লাভ করুক। দেশবাসীর কাছে আমাদের এই শান্তির বানী পৌঁছে যাক। 

তিনি আরও বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণভাবে ও নির্বিঘ্নে ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করছি। থানা পুলিশের পক্ষ থেকে আমাদের সার্বিক সহযোগিতা করা হচ্ছে।

সাব্বির/এনএইচ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়