ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ১১ ১৪৩১

বেনাপোল হয়ে দেশে ফিরছেন দ্বিগুণ যাত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১০:১০, ৩১ ডিসেম্বর ২০২২   আপডেট: ১০:১১, ৩১ ডিসেম্বর ২০২২
বেনাপোল হয়ে দেশে ফিরছেন দ্বিগুণ যাত্রী

ফাইল ছবি

করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্টের শঙ্কায় বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারত থেকে দেশে ফিরছেন স্বাভাবিকের তুলনায় দ্বিগুণ যাত্রী। ভারত ফেরত যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই দেশটিতে সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে কলকাতাসহ বিভিন্ন অঞ্চলে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভারতে চিকিৎসা এবং ভ্রমণ ভিসায় যাওয়া বাংলাদেশিরা বেনাপোল বন্দর দিয়ে দেশে ফিরছেন। ইতোমধ্যে প্রায় ৩০ হাজার যাত্রী ফিরে এসেছেন। তবে এসময়ে ভারতে গেছেন ১৯ হাজার যাত্রী। 

এদিকে, করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্টে যাতে বাংলাদেশে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য  গত ২৯ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) বন্দর এলাকায় সতর্কতা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শার্শা উপজলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইউসুফ আলী।

সতর্কতা জারির চিঠিতে বলা হয়, চীন-ভারতসহ বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও ওমিক্রনের এই উপ-ধরন শনাক্ত হওয়ায় বাংলাদেশে আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে। এ অবস্থায় নতুন ধরনকে অত্যন্ত সংক্রামক উল্লেখ করে দেশের সব স্থল, নৌ ও বিমানবন্দরে সতর্কতার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা।

আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীদের মাধ্যমে এই ভাইরাস যেন বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য চীন, ভারত, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, ব্রাজিল ও জার্মানিসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে আগত সন্দেহজনক যাত্রীদের ব্যাপারে হেলথ স্ক্রিনিং জোরদার করতে এবং তাদের র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করতেও বলা হয়েছে চিঠিতে। 

ভারত ফেরত ব্যবসায়ী কামাল হোসেন বলেন, ‘আমি কাশ্মীর যাওয়ার ইচ্ছা নিয়ে ভারতে গিয়েছিলাম। কলকাতার মানুষের মধ্যে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ায় বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে এসেছি।’

ইমিগ্রেশন ও কাস্টমসের তল্লাশি কেন্দ্রের মধ্যে ও ইমিগ্রেশন এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, অধিকাংশ মানুষের মুখে মাস্ক নেই। যাদের মাস্ক আছে সেগুলো গলায় ঝুলছে। ক্যামেরা দেখে অনেককেই মাস্ক পরতে দেখা যায়। তবে ভারত থেকে আসা যাত্রীদের মাস্ক পরে আসতে দেখা গেছে। ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস তল্লাশি কেন্দ্র ও যাত্রী টার্মিনালের আশপাশে যেসব লোকজন ভিড় করছেন তাদের মুখেও মাস্ক ছিলো না।

বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘গত সাত দিন ধরে স্বাভাবিকের তুলনায় ভারত থেকে বেশি যাত্রী দেশে ফিরছেন। যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি, করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্টের শঙ্কায় তারা দেশে ফিরছেন। সতর্কতা অবলম্বন করে যাত্রীদের সেবা দিচ্ছি আমরা।’ 

যশোরের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাক্তার নাজমুস সাদিক রাসেল বলেন, ‘আমরা ভারতে ফেরত সন্দেহজনক যাত্রীদের র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট করতে বলেছি।’

রিটন/ মাসুদ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়