ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ১০ ১৪৩১

কক্সবাজার পৌর নির্বাচন: মেয়র প্রার্থী জগদীশের অভিনব প্রচারণা

তারেকুর রহমান, কক্সবাজার || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:০৫, ২৯ মে ২০২৩   আপডেট: ১৬:০৯, ২৯ মে ২০২৩
কক্সবাজার পৌর নির্বাচন: মেয়র প্রার্থী জগদীশের অভিনব প্রচারণা

আগামী ১২ জুন কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচন। এরই মধ্যে প্রতীক পেয়ে আদা-জল খেয়ে মাঠে নেমেছেন প্রার্থীরা। পছন্দের প্রতীক নিয়ে রাস্তা-ঘাট এবং ঘরে ঘরে প্রচার-প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থী, কর্মী-সমর্থেকরা। 

জগদীশ বড়ুয়া পার্থ। ৫০ বছর বয়সী কক্সবাজারের এই ব্যক্তি নির্বাচন এলেই মাঠে দাপিয়ে বেড়ান। স্থানীয় নির্বাচন থেকে শুরু করে জাতীয় এবং রাষ্ট্রপতি নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সাহস করছেন বলে তার দাবি। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে লড়তে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে ঢাকাও গিয়েছিলেন তিনি।

কক্সবাজার পৌর নির্বাচনে প্রতিবারের মতো এবারও মেয়র পদে লড়ছেন তিনি। পেয়েছেন হেলমট প্রতীক। তাই রাত দিন মাথায় হেলমেট, জামায় আলপিন দিয়ে ১০, ২০, ৫০ ও ১০০ টাকার নোট গেঁথে প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। মাঝে মাঝে ২০০, ৫০০ এমনকি ১০০০ টাকার নোটও দেখা যায় জামায়। 

জগদীশ বড়ুয়া পার্থ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র পদে লড়ছেন।

সকাল-সন্ধ্যা একটি চাঁন্দের গাড়িতে করে মাথায় হেলমেট পরে নিজের প্রচারণায় নিজে স্লোগান তুলছেন। স্লোগানে বলছেন, ‘ভোটও দিস, টিঁয়াও দিস, আঁর নাম জগদীশ’ (ভোটও দিস, টাকাও দিস, আমার নাম জগদীশ)।

তার প্রচারণায় আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। কেউ কেউ পাগল বলে হাসি-ঠাট্টা করছেন। কেউ আবার তার কথা শুনে পকেট থেকে নোট বের করে জামায় গেঁথে দিচ্ছেন। অনেকে বলছেন এবার তাদের ভোট জগদীশ পাবেন।

এর আগে কক্সবাজার জেলা পরিষদ নির্বাচনে লড়ে ৯ ভোট পেয়ে পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে তৃতীয় হয়েছিলেন জগদীশ। 

এ ব্যাপারে জগদীশ বড়ুয়া পার্থ বলেন, ‘সবাই আমাকে ভালোবেসে নির্বাচনে প্রার্থী হতে উৎসাহ দিয়েছেন। অনেকে জামার মধ্যে টাকার নোটও গেঁথে দিচ্ছেন। খাঁটি কর্মীর অভাবে আমি নিজের প্রচারণা নিজে চালাচ্ছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি আধ্যাত্মিক একজন মানুষ। একাধারে কবি, সাহিত্যিক এবং সাধক। আমাকে লোকজন ভালোবাসেন। শুধু স্থানীয় নির্বাচন নয়, জাতীয় নির্বাচনে ঢাকা-৮ আসন থেকে নির্বাচন করেছি। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনেও মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে ঢাকা গিয়েছিলাম। কিন্তু নির্বাচন ভবনের ভেতরে যেতে পারিনি। এর আগে জেলা পরিষদ নির্বাচন করে হেরে যাই। এবার পৌর নির্বাচনে বিশাল ব্যবধানে জিতবো বলে আশাবাদী।’

কক্সবাজার শহরের বিজিবি ক্যাম্পসংলগ্ন পূর্ব বড়ুয়াপাড়ার মৃত কালীচরণ বড়ুয়ার ছেলে জগদীশ ২০১২ সালে গঠন করেন ‘বাংলাদেশ মঙ্গল পার্টি’। কথিত দলটির চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকেন তিনি। যদিও দলটির নিবন্ধন নেই বলে জানা যায়।

পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৯৪ হাজার ৮০২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার ৪৯ হাজার ৮৭৯ জন ও নারী ভোটার ৪৪ হাজার ৯২৩ জন।
 

/বকুল/

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়